১৪ চৈত্র  ১৪২৬  শনিবার ২৮ মার্চ ২০২০ 

Advertisement

সচেতনতা বাড়াতে অভিনব উদ্যোগ, বিয়েবাড়িতেই প্রচার ক্যানসার বিশেষজ্ঞের

Published by: Sucheta Chakrabarty |    Posted: February 18, 2020 8:41 pm|    Updated: February 18, 2020 8:41 pm

An Images

টিটুন মল্লিক, বাঁকুড়া: ক্যানসারের মতো মারণরোগ থাবা বসাতে পারে শরীরে। এই রোগ থেকে পুরোপুরি নিস্তারের উপায় এখনও আবিষ্কার হয়নি বিশ্বে। বর্তমানে শরীরের যে কোনও অঙ্গেই এ রোগ হতে দেখা যায়। তবে সঠিক সময়ে এ রোগ শনাক্তকরণ করা গেলে ও যথাযথ চিকিৎসা আক্রান্ত মানুষকে সুস্থ করে তুলতে পারে। এবার এই দুরারোগ্য নিয়ে সচেতনতা গড়ে তুলতে অভিনব উদ্যোগ নিলেন বাঁকুড়ার এক নবদম্পতি। ক্যানসার নিয়ে সচেতনতার বার্তা দিতে বেছে নিলেন বিয়ের আসরকে।

বাঁকুড়ার (Bankura)১৫ নম্বর ওয়ার্ডের প্রণবানন্দ পল্লির বাসিন্দা সৌমেন্দু বন্দ্যোপাধ্যায়। পেশায় বাঁকুড়ার ওন্দা সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতালের ক্যানসার (Cancer) বিশেষজ্ঞ সৌমেন্দু। তালড্যাংরার সাবড়াকোনের বাসিন্দা স্বাগতা। তাঁরা সোমবার বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। মঙ্গলবার বাঁকুড়ার গোবিন্দনগর বাসস্ট্যান্ডে একাটি বেসরকারি লজে প্রীতিভোজের আয়োজন করেন তারা। আর পাঁচটা বিয়ের মতো এই বিয়েটাও সাধারণ হতেই পারত। কিন্তু কর্কট রোগের সচেতনতা প্রচার করতে তারা একটু আলাদা ভাবে সাজান নিজেদের বিয়ের আসর। প্রীতিভোজের অনুষ্ঠানে মেনুকার্ডের সঙ্গে ক্যানসার সংক্রান্ত সচেতনার বার্তা দিয়ে বুকলেট ছাপালেন ওই নবদম্পতি।

তবে হঠাৎ বিয়ের অনুষ্ঠানে ক্যানসার নিয়ে সচেতনতার বার্তা দিতে চাইলেন কেন? এই প্রশ্ন করায় সৌমেন্দু বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, ‘ছাত্রাবস্থা থেকেই দেখেছি ক্যানসার সম্বন্ধে মানুষের মধ্যে বেশ কিছু ভ্রান্ত ধারনা রয়েছে।ক্যান্সার ছোঁয়াচে নয়। এটি নিজে এক রোগী থেকে অন্যদের মধ্যে ছড়াতে পারে না। ক্যানসার কোনও ক্ষত থেকেও হয় না। এই সমস্ত ছোট ছোট ভ্রান্ত ধারণা এবং রোগাক্রান্ত হলে কী করা প্রয়োজন তা নিয়ে সচেতনতা গড়ে তুলতেই আমার এই উদ্যোগ।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমি নিছক বিয়ের অনুষ্ঠানে আনন্দ করতে চাইনি। আমি চেয়েছিলাম ক্যানসার সংক্রান্ত সচেতনতার পাঠ দিতে। বিয়েবাড়িতে বন্ধুবান্ধব-সহ আত্মীয় স্বজনকে একসঙ্গে পাওয়ার এই সুযোগটি তাই হাতছাড়া করতে চাইনি।’ সৌমেন্দুর এই উদ্যোগকে সমর্থন করেন তার স্ত্রী স্বাগতাও।

সৌমেন্দুর এই উদ্যোগকে স্বাগত জানান বাঁকুড়ার শহরের বাসিন্দা ও আমন্ত্রিতরাও। ছাতনার বাসিন্দা বংকু মিশ্র বলেন, এই উদ্যোগের মাধ্যমে সৌমেন্দু নতুন একটা দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন। এভাবে সবাই এগিয়ে এলে গুরুত্বপূর্ণ স্বাস্থ্যসেবার চ্যালেঞ্জটা অনেকটাই সহজ হয়ে যাবে অনেকের কাছে। আমন্ত্রিতদের জানাতে সৌমেন্দুর বুকলেটে সহজ ভাষায় লেখা ছিল ক্যানসারের বিভিন্ন উপসর্গ। ক্যানসারের সতর্কতার সংকেতগুলি হল শরীরের কোনও স্থানে আচমকাই একটি মাংসপিণ্ড গজিয়ে ওঠা, ত্বকে কোনও তিল বা আঁচিল দেখা যাওয়া। আন্ত্রিক অভ্যেসে পরিণত হয় অনেক সময়। অনেকে আবার অনবরত বদহজমের সমস্যায় ভোগেন। যে কোনও অস্বাভাবিক রক্তপাত-সহ নানাবিধ সংকেতগুলি তুলে ধরা হয়েছে এই বুকলেটে। সৌমেন্দুর আশা তাঁর এই আয়োজন ভবিষ্যতে কিছুটা হলেও সচেতনতা বাড়াবে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement