৩০ ভাদ্র  ১৪২৬  মঙ্গলবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

দিব্যেন্দু মজুমদার, হুগলি: বৃদ্ধ বয়সে নিজের সন্তানের কাছে প্রতারিত হতে হল এক দম্পতিকে! মা-কে জালনোট দিয়ে এক যুবক পেনশনের টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ। ঘটনাটি ঘটেছে হুগলির চুঁচুড়ার কাপাসডাঙায়। তবে এখনও থানায় অভিযোগ দায়ের করেননি ওই দম্পতি। এদিকে ঘটনার পর থেকে গুণধর ছেলে বেপাত্তা।    

[আরও পড়ুনতৃণমূলে নেতার ঘরেই রমরমিয়ে মধুচক্রের আসর, আপত্তিকর অবস্থায় পুলিশের জালে ৩]

রাজ্য সরকারের সেচ দপ্তরে চাকরি করতেন শিবসাধন রায়। চাকরি জীবন কেটেছে মুর্শিদাবাদের জঙ্গিপুরে। চাকরি থেকে অবসর নেওয়ার পর, এখন স্ত্রীকে নিয়ে চুঁচু়ড়ার কাপাসডাঙায় থাকেন শিবসাধনবাবু। স্ত্রী পক্ষাঘাতে শয্যাশায়ী, পেনশনের টাকায় সংসার চলে। জানা গিয়েছে, জঙ্গিপুরে চাকরি করার সুবাদে শিবসাধন রায়ের পেনশনের টাকাও সেখানকারই একটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকে জমা পড়ে। ওই দম্পতির একমাত্র ছেলে রাজীব এক বিবাহিতা মহিলার সঙ্গে জঙ্গিপুরেই থাকেন। পরিবারের লোকেরা জানিয়েছেন, প্রতি মাসে জঙ্গিপুরে গিয়ে পেনশনের টাকা তুলে আনেন শিবসাধন রায়। ছেলে রাজীবও বাবার সঙ্গে থাকে। গত শুক্রবার যখন পেনশনের টাকা তুলতে জঙ্গিপুরে গিয়েছিলেন অবসরপ্রাপ্ত ওই রাজ্য সরকারি কর্মচারী, তখনও যথারীতি ব্যাংকের বাইরে দাঁড়িয়েছিল রাজীব। পেনশনের টাকা নিয়ে বাবার সঙ্গে চুঁচুড়ার কাপাসডাঙার বাড়িতে এসেছিল সে। শনিবার রাতে শিবসাধনবাবুর স্ত্রীর হাতে টাকার ব্যাগটি দিয়ে টিভি কেনার নাম করে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যায় রাজীব।

শিবসাধন রায়ের স্ত্রী রাধারানিদেবীর দাবি, বুধবার সকালে তিনি যখন মিনারেল ওয়াটারের টাকা মেটাতে যান, তখন জানতে পারেন ৫০০ টাকার নোটটি জাল। অন্য একটি পাঁচশো টাকার নোট দিলে দেখা যায় সেটিও জাল! শেষপর্যন্ত ব্যাগের বাকি নোটগুলি পরীক্ষা করে প্রতিবেশীরা জানান, ওই ব্যাগের একটি নোটও আসল নয়। নিজের ছেলে যে এমনভাবে ঠকাবে, তা স্বপ্নেও ভাবেননি ওই বৃদ্ধ দম্পতি। এ মাসে কীভাবে সংসার চালাবেন, তা ভেবেই পাচ্ছেন না তাঁরা। তবে এখনও থানায় কোনও অভিযোগ দায়ের করেননি অবসরপ্রাপ্ত রাজ্য সরকারী কর্মচারী শিবসাধন রায়। প্রতিবেশীরা সাহায্য করলে থানায় যাবেন বলে জানিয়েছেন তিনি।               

[আরও পড়ুন: অস্ত্র হাতে রাস্তায় ঘুরছে ‘অশরীরী’ ছেলেধরা! আতঙ্ক আলিপুরদুয়ারে]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং