২৬ কার্তিক  ১৪২৬  বুধবার ১৩ নভেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সুমিত বিশ্বাস, পুরুলিয়া: লোকালয় থেকে দাঁতালের দলকে দূরে তাড়াতে গিয়ে তাদেরই হামলার মুখে পড় গুরুতর জখম দুই বনকর্মী-সহ ৮জন। সোমবার গভীর রাতে পুরুলিয়ার বাঘমুন্ডি বনাঞ্চলের বুড়দা বিটে ক্ষিপ্ত দাঁতালের তাণ্ডব দেখে রীতিমতো ট্রমায় ভুগছেন বনদপ্তরের কর্মীরা। আতঙ্কিত আশেপাশের গ্রামের মানুষজনও। আহত ৮জন চিকিৎসাধীন দেবেন মাহাতো মেডিক্যাল কলেজ (সরকারি) ও হাসপাতালে।

[ আরও পড়ুন: বেআইনি বাজি কারখানায় বিস্ফোরণ, ঝলসে মৃত্যু মালিকের]

দিন কয়েক ধরেই বুড়দা বিট লাগোয়া এলাকায় একটি দলছুট দাঁতাল তাণ্ডব চালাচ্ছিল। তাকে ড্রাইভ করে জঙ্গলে ফিরিয়ে দেওয়ার চেষ্টায় ছিলেন বনকর্মীরা। তারই মধ্যে তাঁদের কাছে খবর পৌঁছায়, রবিবার ঝালদা বনাঞ্চল থেকে ১৩টি দাঁতালের একটি দল ঢুকে পড়েছে অযোধ্যা পাহাড় লাগোয়া বনাঞ্চল বুড়দা বিটে। খবর পেয়ে হাতির দলকে তাড়ানোর জন্য দ্রুত প্রস্তুতি নেয় বনদপ্তর। তৈরি হন হুলাপার্টির ১৫জন সদস্য এবং জনা কয়েক বনকর্মী। এরপর রাতে তাঁরা ২ শাবক-সহ হাতির দলটিকে তাড়িয়ে অযোধ্যা পাহাড়ের জঙ্গলে পাঠিয়ে দেন। কিন্তু তারপরই বিপদ উপস্থিত হয়।

PRL-ele-attack-1
বনকর্মীরা ফের খবর পান যে আমন ধান ওঠার এই সময়টায় তার গন্ধে হাতির দলটি ফের পাহাড় থেকে নেমে এসেছে খয়রাবেড়া জঙ্গলে। ফের তাদের তাড়াতে যান হুলাপার্টির সদস্য এবং বনকর্মীরা। হুলাপার্টির নেতৃত্বে ছিলেন অশোক কুমার। টর্চের তীব্র আলোয় তাদের ধাওয়া করার সময়েই আচমকা একটি দাঁতাল একেবারে ঝাঁপিয়ে পড়ে কর্মীদের উপর। একেবারে শুঁড়ে পেঁচিয়ে অশোক কুমারকে মাটিতে আছাড় মারে সে। তার হামলায় গুরুতর জখম হন রবি সিং বাবু, রাজেশ রাজোয়াড় এবং বনরক্ষী ডমনচন্দ্র সরেন। দাঁতালটি এতটাই ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে যে দিগ্বিদিক জ্ঞানশূন্য হয়ে বনকর্মীদেরই ধাওয়া করে নিয়ে যায় প্রায় ৩৫ মিটার দূরত্ব পর্যন্ত। সেই রোমহর্ষক অভিজ্ঞতার কথা বলতে গিয়ে বুড়দার বিট অফিসার সাহেব মাহাত জানিয়েছেন, ‘আমরা হাতির দলকে তাড়াচ্ছিলাম। আচমকাই একটি দাঁতাল আমাদের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে। চোখের সামনে দেখলাম, কীভাবে শুঁড়ে তুলে আছাড় মারল! আমাদের বেশ কয়েকজন কর্মী আহত হয়েছেন।’

[ আরও পড়ুন: জিয়াগঞ্জ হত্যাকাণ্ডের তদন্তে যবনিকাপাত, গ্রেপ্তার মূল অভিযুক্ত]

ক্ষিপ্ত দাঁতালের আচরণে যতটা আতঙ্কিত হয়েছেন বনকর্মীরা, ততটাই বিস্মিত। এতজন লোক, এত আলো – কোনও কিছুতেই সে ভীত না হয়ে যেভাবে হামলা চালিয়েছে, তা ভাবিয়ে তুলেছে বনদপ্তরের কর্তাদেরও। রাতে আহতদের প্রথমে পাথরডি ব্লক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়। সকালে সেখান থেকে দেবেন মাহাতো সদর হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। সেখানে তাঁদের দেখতে যান পুরুলিয়ার বিভাগের এডিএফও দেবরাজ সুর। ডিএফও রামপ্রসাদ বদানা জানিয়েছেন, ‘হাতির দলকে তাড়াতে গিয়ে আমাদের কর্মীরা দাঁতালের হামলার মুখে পড়ে আক্রান্ত হয়েছেন।’ বদনদপ্তর সূত্রে খবর, বনকর্মীদের উপর হামলা চালানোর পর দাঁতালের দলটি খয়রাবেড়া অঞ্চলের প্রায় ৩ হেক্টর জমির ধান নষ্ট করেছে। এই মুহূর্তে তাদের ইছাকোটা জঙ্গলে রয়েছে। তবে সোমবার রাতে দাঁতালের হামলার মুখে পড়া বাঘমুন্ডির বনকর্মীদের কাছে নিঃসন্দেহে এক ভয়াবহ অভিজ্ঞতা।

PRL-ele-attack-2
ছবি: সুনীতা সিং।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং