৩০ কার্তিক  ১৪২৬  রবিবার ১৭ নভেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

শুভদীপ রায়নন্দী, শিলিগুড়ি: উড়ো চিঠি দিয়ে সেচ দপ্তরের আধিকারিকের বিরুদ্ধে কাটমানি নেওয়ার অভিযোগ!  চিঠি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে পাঠিয়ে তদন্তের আরজি জানালেন মহকুমা পরিষদের সভাধিপতি তাপসকুমার সরকার। ঘটনায় শোরগোল পড়ে গিয়েছে শিলিগুড়িতে।

[আরও পড়ুন: বিজেপির সদস্য সংগ্রহ অভিযানে হামলার অভিযোগ, রণক্ষেত্র নামখানা কলেজ চত্বর]

শিলিগুড়ি মহকুমা পরিষদের ক্ষমতায় বামেরা। মহকুমা পরিষদের সভাধিপতি তাপস কুমার সরকার জানিয়েছেন, উড়ো চিঠি পাঠিয়ে সেচ দপ্তরের এক্সজিকিউটিভ ইঞ্জিনিয়ার সুনীল কুমার ঠাকুরের বিরুদ্ধে প্রকল্প পিছু পাঁচ শতাংশ কাটমানি নেওয়ার অভিযোগ করেছেন ঠিকাদাররা। অভিযোগ খতিয়ে দেখার আরজি জানিয়ে চিঠিটি মুখ্যমন্ত্রী, সেচ মন্ত্রী ও সংশ্লিষ্ট দপ্তরের সচিবকে পাঠিয়ে দিয়েছেন তিনি। শিলিগুড়ি মহকুমা পরিষদের সভাধিপতির দাবি, এর আগেও ওই ইঞ্জিনিয়ারের বিরুদ্ধে অসহযোগিতার অভিযোগ উঠেছিল। সভাধিপতি বলেন, “এর আগে মার্চ মাসে একবার একইভাবে উড়ো চিঠির মাধ্যমে আমাদের কাছে অভিযোগ এসেছিল। কিন্তু চিঠিতে কোন নাম ঠিকানা না থাকায় আমরা গুরুত্ব দিইনি। ফের জুলাই মাসে একই অভিযোগ আসায় আমাদের সন্দেহ হয়। সেজন্য মুখ্যমন্ত্রী ও সেচমন্ত্রীকে আবেদন করেছি এই অভিযোগের উচ্চ পর্যায়ের তদন্তের জন্য।” অভিযোগ, স্রেফ মহকুমা পরিষদ বাম পরিচালিত হওয়ায় কারণেই সেচ দপ্তরের এক্সজিকিউটিভ ইঞ্জিনিয়ার সুনীল কুমার ঠাকুর কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কোনও সহযোগিতা করেন না। এমনকী, মহকুমা পরিষদকে না জানিয়ে অনেক কাজ ফেলেন তিনি। 

জানা গিয়েছে, গত ২২ মার্চ ঠিকানাবিহীন ওই উড়ো চিঠি পান শিলিগুড়ি মহকুমা পরিষদের সভাধিপতি। যদিও কাটমানি নেওয়া ও মহকুমা পরিষদের সঙ্গে অসহযোগিতার মানতে নারাজ সেচ দপ্তরের অভিযুক্ত ইঞ্জিনিয়ার সুনীল কুমার ঠাকুর। তাঁর দাবি, ‘এমন কোনও বিষয় আমার জানা নেই। অভিযোগ ভিত্তিহীন।’

[ আরও পড়ুন: লোক ঠকাতে রাজি নন, এক টাকাতেই চা বিক্রি করেন কৃষ্ণনগরের যুবক]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং