BREAKING NEWS

১৪  আষাঢ়  ১৪২৯  বুধবার ২৯ জুন ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

‘জুতোপেটা করে তাড়িয়ে দেব’, মেজাজ হারিয়ে দলীয় কর্মীদেরই হুমকি দিলীপের

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: April 16, 2018 6:02 pm|    Updated: December 3, 2018 6:12 pm

Furious Dilip Ghosh lashes at Party workers

রঞ্জন মহাপাত্র, কাঁথি: রাজ্যে পঞ্চায়েত ভোটের আগে বিরোধীদের বিরুদ্ধে তোপ দাগতে শোনা গিয়েছে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষকে। কিন্তু এবার নিজের দলের কর্মীদের উপরই তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করলেন তিনি। এমনকী কর্মীদের জুতোপেটা করার মতো কুরুচিকর মন্তব্য করতেও ছাড়লেন না।

রবিবার নববর্ষের দিন পূর্ব মেদিনীপুর জেলায় একাধিক কর্মিসভায় যোগ দিতে গিয়েছিলেন দিলীপ ঘোষ। প্রথমে মহিষাদলে কর্মিসভা করেন তিনি। তারপর পটাশপুর এবং কাঁথির সাতমাইলে কর্মিসভায় উপস্থিত হন। সেখান থেকে কাঁথি এক ব্লকের মাজনায় পৌঁছান। যেখানে এক বিজেপি কর্মীর বাড়ির ছাদে কর্মিসভা করা হয়। যদিও সেখানে যে সভা হবে, তা আগে থেকে ঠিক ছিল না। সেখানে পৌঁছতে গিয়ে বেশ সমস্যায় পড়তে হয় বিজেপি রাজ্য সভাপতিকে। একটি পুকুর পাড়ের সংকীর্ণ রাস্তা দিয়ে সেই কর্মীর বাড়ি পৌঁছান দিলীপ ঘোষ। ছাদে উঠেই তেলে-বেগুনে জ্বলে ওঠেন তিনি। তখনই দলের কর্মীদের উপর ক্ষোভ উগরে দেন। রেগে গিয়ে জিজ্ঞেস করেন, “এটা কি সাইকেল যে পুকুর পারের রাস্তা ধরে পৌঁছনো যাবে?” এখানেই শেষ নয়, স্থানীয় কর্মীদের অন্যান্য কাণ্ডকারখানাতেও রীতিমতো ক্ষুব্ধ দিলীপ।

[সমাজসেবার নেশায় পঞ্চায়েতের প্রার্থী মালদহের কোটিপতি সমীর ঘোষ]

সে অঞ্চলে গিয়ে তিনি জানতে পারেন, স্থানীয় বিজেপি কর্মীরা পটাশপুর, কাঁথির বিভিন্ন জায়গায় প্রচার করেছিলেন দলের কর্মী সভায় হাজির থাকবেন বিজেপি নেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায়। বিজেপি মহিলা মোর্চার সভাপতি তথা অভিনেত্রী লকেটের নাম করে ভিড় টানতে চেয়েছিলেন তাঁরা। যে কারণে ব্যানারে তাঁর ছবি ও নাম দিয়ে প্রচার চালানো হয়। বিজেপির এমন প্রচারে লকেটকে দেখার জন্য ছুটির দিনে সে সব এলাকায় ভিড়ও হয়েছিল চোখে পড়ার মতো। কিন্তু স্থানীয় বাসিন্দারা অভিনেত্রীকে দেখতে না পেয়ে দিলীপ ঘোষকেই প্রশ্ন করে বসেন, কেন লকেট আসেননি? দলীয় কর্মীদের এমন মিথ্যে প্রচারে আরও মেজাজ হারান দিলীপ। কর্মীদের উদ্দেশে প্রশ্ন করেন, “আমাকে কেন মিথ্যে কথা বলা হয়েছে? মণ্ডলের কে এটা করেছে বলুন, তাঁকে সাসপেন্ড করব। জুতোপেটা করে তাড়িয়ে দেব। আমার দরকার নেই এমন কর্মীদের। এটা ভদ্রলোকের পার্টি। মিথ্যে কথা বললে এ পার্টিতে থাকা যাবে না। দরকার হলে সিপিএম থেকে লোক এনে ভোট করব। নতুন পার্টি তৈরি করব। কিন্তু এমন কর্মীদের দলে চাই না।” প্রকাশ্যে কর্মীদের এমন মন্তব্য করায় দিলীপ ঘোষের উপর ক্ষুব্ধ অনেক বিজেপি কর্মীরাও। সচরাচর যাঁকে বিরোধীদের একহাত নিতে দেখা যায়, সেই দিলীপ ঘোষ যে এভাবে দলীয় কর্মীদের ভর্ৎসনা করবেন, তা অনেকেই অনুমান করতে পারেননি।

[শান্তিপূর্ণ পঞ্চায়েত নির্বাচনের দাবিতে ধর্মতলায় অনশনে কংগ্রেস, মিছিলে বামেরা]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে