Advertisement
Advertisement
Lok Sabha Election 2024

তৃণমূলের সঙ্গে হাত মেলানো! KPP-সহ একাধিক সংগঠনকে হুমকি KLO সুপ্রিমো জীবন সিংহের

তৃণমূলের পাশে দাঁড়ানো রাজবংশী ও কামতাপুরী সংগঠনগুলিকে জীবন সিংহের হুমকির ভিডিও ভাইরাল।

Lok Sabha Election 2024: KLO Supremo Jiban Singha's viral video to threat other organisations who support TMC
Published by: Sucheta Sengupta
  • Posted:April 12, 2024 7:21 pm
  • Updated:April 12, 2024 7:42 pm

বিশ্বজ্যোতি ভট্টাচার্য, শিলিগুড়ি: আশঙ্কাই সত্যি হল। ভোটের দিন এগিয়ে আসতেই ভাইরাল (Viral Video) আত্মসমর্পণকারী কেএলও সুপ্রিমো জীবন সিংহের দ্বিতীয় হুমকি ভিডিও। শুক্রবার ভাইরাল ওই ভিডিওতে যে রাজবংশী ও কামতাপুরী সংগঠনগুলি তৃণমূলের পাশে দাঁড়িয়েছে, তাদের সতর্ক করেন জীবন সিংহ। যদিও ভিডিওটিকে গুরুত্ব দিতে নারাজ তৃণমূল, বিজেপি-সহ বাম দলগুলি। যদিও কামতাপুর পিপলস পার্টির (KPP) তরফে সংগঠনের সুপ্রিমোর ভাইরাল ভিডিও নিয়ে কোনও মন্তব্য করা হয়নি।

এবারের লোকসভা নির্বাচনে  (Lok Sabha Election 2024) গ্রেটার কোচবিহার পিপলস অ্যাসোসিয়েশনের দুই গোষ্ঠী এবং কামতাপুর প্রোগ্রেসিভ পার্টির অমিত রায় গোষ্ঠী তৃণমূলকে সমর্থন করেছেন। সদ্য ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে জীবন সিংহ ওই দলগুলির কড়া সমালোচনা করে অভিযোগের সুরে বলেন, ওরা কামতাপুর রাজ্য ও ভাষার দাবিতে বছরের পর বছর চলা আন্দোলনের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করছে। কারণ, তৃণমূলের (TMC) সঙ্গে হাত মিলিয়েছে। তাদের প্রার্থীদের সমর্থনে প্রচার করছে।

Advertisement

[আরও পড়ুন: রামে যাওয়া ভোট ফেরাতে কৌশল বদল বামের, ভোটার মার্কিং, খাটিয়া বৈঠক, স্কোয়াডে নজর]

ভোটের নির্ঘন্ট ঘোষণার আগেই কামতাপুর পিপলস পার্টির নেতৃত্ব আশঙ্কা প্রকাশ করেছিল, বিজেপি লোকসভা নির্বাচনে জীবন সিংহকে ব্যবহার করে বিভ্রান্তি ছড়াতে পারে। সেজন্য ওই দলের তরফে কর্মীদের সতর্ক থাকতে বলা হয়। শুধু তাই নয়। নির্বাচনী প্রচারে রাজ্যের শাসকদলের পাশাপাশি বিজেপির বিরুদ্ধেও তারা সুর চড়াতে ভোলেননি। তাদের অভিযোগ, বিজেপি (BJP) কথা দিয়েও রাখেনি। কামতাপুরী ভাষার সাংবিধানিক স্বীকৃতির আশ্বাস বেমালুম ভুলে গিয়েছে।

Advertisement

[আরও পড়ুন: বেঙ্গালুরু ক্যাফে বিস্ফোরণে বাংলা যোগ! রাজ্যে NIA-র জালে দুই চক্রী]

দলের তরফে প্রশ্ন তোলা হয়েছে, এটা ওদের অবহেলা নাকি চক্রান্ত? দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি নিখিল রায় বলেন, “বিজেপির বিরোধিতা ছাড়া উপায় নেই। ওরা শুধু আমাদের সঙ্গে বেইমানি করেনি। উত্তরের ভূমিপুত্রদের অপমান করেছে। উত্তরবঙ্গবাসীর উচিত নয় ওই দলটিকে ভোট দেওয়া।” আলিপুরদুয়ারের তৃণমূল নেতা তথা দলের রাজ্য কমিটির অন্যতম সম্পাদক মৃদুল গোস্বামী অবশ্য জীবনের ভাইরাল ভিডিওকে গুরুত্ব দেননি। তিনি বলেন, “এসব ভোটে প্রভাব ফেলে না।” একই দাবি আলিপুরদুয়ারের প্রাক্তন আরএসপির বিধায়ক নির্মল দাসের।

Sangbad Pratidin News App

খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ