৯ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

পাওনা টাকা চাইতে গিয়ে খুন লটারি বিক্রেতা! ধুন্ধুমার কাটোয়ায়

Published by: Tanumoy Ghosal |    Posted: April 19, 2019 4:58 pm|    Updated: April 19, 2019 5:03 pm

An Images

ধীমান রায়, কাটোয়া: বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে নিখোঁজ ছিলেন। শুক্রবার সকালে মাঠে মিলল এক লটারি বিক্রেতার মৃতদেহ। তুমুল উত্তেজনা ছড়াল কাটোয়ার শ্রীখণ্ড গ্রামে। রাস্তায় মৃতদেহ রেখে প্রায় ঘণ্টা চারেক অবরোধ করলেন গ্রামবাসীরা। বিক্ষোভকারীদের অভিযোগ, পাশের গ্রামে এক ব্যক্তির কাছে পাওনা টাকা চাইতে গিয়েই খুন হয়েছেন ওই যুবক। অভিযুক্তকে গ্রেপ্তারের দাবি তুলেছেন তাঁরা।

[আরও পড়ুন: ভোট পরবর্তী অশান্তিতে উত্তপ্ত চোপড়া, গুলিবিদ্ধ কিশোর]

মৃতের নামে ইহাল শেখ। বাড়ি, শ্রীখণ্ড গ্রামের দক্ষিণ মুসলিমপাড়ায়। গ্রামে একটি লটারির দোকান চালাতেন বছর আঠেরোর ওই যুবক। পরিবারের লোকেরা জানিয়েছেন, রোজ দুপুরে বাড়িতে খেতে আসতেন ইহাল। কিন্তু বৃহস্পতিবার বিকেল গড়িয়ে গেলেও তিনি আসেননি। বাড়ির লোকেরা খোঁজাখুঁজি করতে শুরু করেন। মৃতের বাবা জিয়ারুল শেখ জানিয়েছেন, শ্রীখণ্ড গ্রামের ডাকবাংলো মোড়ে লটারি বিক্রি করতেন ইহাল। সেখান গিয়ে কয়েকজনকে জিজ্ঞাসা করে জানা যায়, দুপুর বারোটা নাগাদ বুঁইচি গ্রামের বাসিন্দা ভোলা ঘোষের সাইকেলে চেপে ইহালকে যেতে দেখা গিয়েছে। সন্ধ্যায় ভোলা ঘোষের বাড়িতেও যান ওই যুবকের পরিবারের লোকেরা। ইহাল শেখের পরিবারের লোকেদের দাবি, ভোলা তাঁদের বলে, ইহাল তাঁর বাড়িতে এসেছিলেন। কিছুক্ষণ পর আবার অন্য একজনের বাইকে চেপে চলে যান। বৃহস্পতিবার অনেক রাত পর্যন্ত খোঁজাখুঁজি চলে, ইহাল শেখের আর সন্ধান পাওয়া যায়নি।

শুক্রবার সকালে কাটোয়ার বুইঁচি গ্রামে কাছেই একটি মাঠে ইহাল শেখের মৃতদেহ পড়ে দেখতে স্থানীয় বাসিন্দারা। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, মৃতদেহের একাধিক জায়গায়, এমনকী যৌনাঙ্গেও আঘাতের চিহ্ন ছিল। ঘটনাটি জানাজানি হতেই উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। মৃতদেহটি রাস্তায় তুলে নিয়ে গিয়ে অবরোধ শুরু করেন মৃতের পরিবারের লোক ও গ্রামবাসীরা। সকাল আটটা থেকে বারোটা পর্যন্ত চলে অবরোধ। পরিবারের লোকেদের দাবি, লটারির দাম বাবদ ভোলা ঘোষের কাছ থেকে হাজার টাকা পেতেন ইহাল। বহুবার তাগাদা দেওয়া সত্ত্বেও টাকা দেয়নি ভোলা। বৃহস্পতিবার টাকা দেওয়ার নাম করে ইহালকে সাইকেলে চাপিয়ে নিয়ে গিয়েছিল সে। পরিকল্পনামাফিক ওই লটারি বিক্রেতাকে খুন করা হয়েছে। শেষপর্যন্ত পুলিশের আশ্বাসে অবরোধ ওঠে।

ছবি: জয়ন্ত দাস

[আরও পড়ুন:  ভোটের ১১ দিন আগে নিখোঁজ ইভিএমের দায়িত্বে থাকা অফিসার, থমথমে কৃষ্ণনগর]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement