BREAKING NEWS

১৫  আষাঢ়  ১৪২৯  বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

পাহাড়ে পরিবর্তনের ডাক মমতার

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: September 23, 2016 9:07 am|    Updated: June 22, 2022 4:05 pm

Mamata calls for change in North Bengal

কিংশুক প্রামাণিক, কালিম্পং: দশটি বোর্ড ইতিমধ্যেই হয়ে গিয়েছে৷ বিমল গুরুংদের আরও কোণঠাসা করতে চারটি নতুন বোর্ড গঠনের প্রক্রিয়া শুরু করল রাজ্য৷ ভুজেল, নেওয়ার, খস সম্প্রদায়কেও বোর্ডভুক্ত করার পাশাপাশি পাহাড়ের সংখ্যালঘুদেরও উন্নয়ন বোর্ডের আওতায় আনার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ মমতার শরণাপন্ন হয়েছে গুরুং সম্প্রদায়ও৷ তারা চায় ওবিসির স্বীকৃতি৷ বিষয়টি কেন্দ্রীয় সরকারের আওতায়৷ মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, কালীপুজোর পর তিনি আবার পাহাড়ে আসবেন৷ তখন এ নিয়ে কথা হবে৷

একই সঙ্গে মমতা এদিন বুঝিয়ে দেন, চার হাজার কোটি টাকা পেয়েও পাঁচ বছরে কিছুই করতে পারেনি মোর্চা৷ লোকসভা আসন, বিধানসভা আসন, জিটিএ সবই মোর্চার হাতে৷ কিন্তু যেটুকু কাজ হয়েছে, সবই তিনি করেছেন এই সব নতুন বোর্ডগুলির মধ্য দিয়ে৷ উন্নয়নের স্বার্থেই তাই পাহাড়ে পরিবর্তন দরকার৷ সামনে পঞ্চায়েত ও পুরভোট৷ ওই নির্বাচন থেকেই শুরু হোক মোর্চার উৎখাত অভিযান৷ তিনি বলেন, “আমাকে পাহাড়ের মেয়ে ভাবুন, বোন ভাবুন৷ আমি বার বার আসি৷ যত দিন বাঁচব আসব৷ কখনও আপনারা আমাদের জেতাননি৷ কিন্তু বিশ্বাস করি একদিন না একদিন আপনারা আমাদের জেতাবেন৷ সেই দিনটার অপেক্ষায় রইলাম৷”

মোর্চাকে বার্তা দিয়ে তাঁর সাফ কথা, “পাহাড়ের সাময়িক সমাধান নয়, স্থায়ী সমাধান দরকার৷ বদল করুন৷ উন্নয়নই সব সমস্যার সমাধান৷ যত অর্থ লাগবে দেব৷ পাহাড় না এগোলে বাংলা এগোতে পারবে না৷”

বৃহস্পতিবার কালিম্পং মেলা গ্রাউন্ডে লেপচা বোর্ডের পঞ্চম বর্ষপূর্তির অনুষ্ঠানে যোগ দেন মমতা৷ ক্ষমতায় এসে লেপচাদের দীর্ঘদিনের দাবি তিনি মেনে নিয়েছিলেন৷ গঠিত হয় লেপচাদের উন্নয়ন পর্ষদ৷ মমতাকে নিজেদের ভাগ্যদেবী ‘কিংচুম ডরমিট’-এর আসনে বসান উল্লসিত লেপচারা৷ সেই বোর্ড পাঁচ বছরে চুটিয়ে কাজ করেছে৷ এদিন সূচনা হয়ে গেল জলপ্রকল্পের৷ যখন জিটিএ-র বিরুদ্ধে কাজ না করার অভিযোগ তখন লেপচাদের এই অগ্রগতি পাহাড়ের সাধারণ মানুষের মধ্যে প্রভাব ফেলে৷ অন্য সম্প্রদায়গুলিও বোর্ডের দাবি তুলতে থাকে৷ জিটিএকে বাদ দিয়েই বিকল্প পথে উন্নয়নের লক্ষ্যেই এরপর একে একে শেরপা, তামাং, রাই, লিম্বু, ভুটিয়া – সহ মোট দশটি সম্প্রদায়ের উন্নয়ন ও সাংস্কৃতিক বোর্ড গড়ে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷

আর এতেই খেপে উঠেছেন মোর্চা নেতারা৷ এই বোর্ডগুলিই পাহাড়ে মোর্চার কর্তৃত্ব আলগা করে দিয়েছে৷ সেটা বুঝেই নতুন করে গোর্খাল্যান্ডের দাবি সামনে এনে ভাবাবেগে সুড়সুড়ি দিচ্ছে গুরুং বাহিনী৷ ঝুলি থেকে বেরিয়ে পড়েছে রাজ্য ভাগের দাবি৷ বনধ করলে সফল হবে না আঁচ করেই শুরু হয়েছে রিলে অনশন৷ কিন্তু সেই অনশনে স্থানীয় মানুষের কতটা সমর্থন রয়েছে, তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে৷ এদিন অনশনকে পাশ কাটিয়েই মেলা গ্রাউন্ড উপচে দিয়ে উৎসবে মাতেন লেপচারা৷ শুক্রবার তামাংরাও একইভাবে বোর্ড গঠনের বর্ষপূর্তি উৎসব করবে৷

সমতলে সিপিএম-কংগ্রেসের মতো পাহাড়ে মোর্চায় বড় ভাঙন ধরছে৷ রবিবার মোর্চা ভেঙে একটি বড় অংশ তৃণমূলে যোগ দিতে পারে৷ মুখ্যমন্ত্রী এদিনের সভায় কারও নাম না করে নরমে গরমে গুরুংদের কড়া বার্তা দেন৷ তিনি বলেন, দার্জিলিং এলে আমি রাজনৈতিক কথা কম বলি৷ কিন্তু পুরভোট পঞ্চায়েত ভোট এখানে দীর্ঘদিন হয়নি৷ ডিসেম্বরে পুরসভাগুলির মেয়াদ শেষ হবে৷ নির্বাচন কমিশনকে বলব, আপনারা দয়া করে ভোটের প্রক্রিয়া শুরু করুন৷ যে দল জেতে জিতুক, জেতার পর সে যেন কাজ করে৷

জিটিএকে চার হাজার কোটি পাঁচ বছরে আমরা দিয়েছি৷ জিটিএর লোকেরা আমাদের দোস্ত৷ কিন্তু ভাল করে কাজ হয়নি৷ তাই বোর্ডগুলির ভিতর দিয়ে কাজ করছি৷ এখানে আমাদের দল কোনও ভোটে জেতেনি৷ কিন্তু পাহাড়ে ভোট এলেই এই চাই ওই চাই শুনি৷ এক বছর এই চলে৷ বাকি চার বছর কোনও কাজ হয় না৷ এসব আর চলবে না৷ কাজ করতে হবে৷ এদিনের সভায় উপস্থিত ছিলেন মুখ্যসচিব বাসুদেব বন্দ্যোপাধ্যায়, ডিজি সুরজিৎ করপুরকায়স্থ, ইন্দ্রনীল সেন, বাইচুং ভুটিয়া, শান্তা ছেত্রী, লেপচা বোর্ডের থমসং-সহ বিশিষ্টরা৷

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে