৪ ফাল্গুন  ১৪২৬  সোমবার ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 

BREAKING NEWS

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

৪ ফাল্গুন  ১৪২৬  সোমবার ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 

BREAKING NEWS

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: স্বাভাবিকের থেকে দেরিতে হলেও কিছুদিন আগেই রাজ্যে প্রবেশ করেছে বর্ষা। কিন্তু শুরু থেকেই কার্যত বৃষ্টির দেখা মিলছে না দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলিতে। ছিঁটেফোটা বৃষ্টি হলেও কমছে না আর্দ্রতাজনিত অস্বস্তি।অর্থাৎ তীব্র দাবদাহে নাজেহাল দশা দক্ষিণবঙ্গের বাসিন্দাদের। অন্যদিকে ঠিক উলটো ছবি উত্তরে। বৃষ্টির জেরে কার্যত দিশেহারা উত্তরবঙ্গের বাসিন্দারা। পাহাড় ও সমতলের কয়েকদিনের টানা বৃষ্টিতে জলমগ্ন উত্তরবঙ্গের জলপাইগুড়ি, কোচবিহার, আলিপুরদুয়ার, দার্জিলিং। আগামী ২৪ ঘণ্টাও দিনভর বৃষ্টি হবে উত্তরবঙ্গের বেশ কয়েকটি জেলায়, জানিয়েছে হাওয়া অফিস।

[আরও পড়ুন: অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্র যেন মরণফাঁদ, বাঁকুড়ায় ভেঙে পড়া বাড়িতেই প্রাণের ঝুঁকি নিয়ে যাতায়াত]

শেষ কয়েকদিন ধরেই অবিরাম বৃষ্টি চলছে উত্তরবঙ্গের সবকটি জেলায়। প্রবল বৃষ্টির জেরে ধস নেমেছিল বিভিন্ন এলাকায়। ধসের কারণে শিলিগুড়ির সঙ্গে একাধিক এলাকার যোগাযোগ বিচ্ছিন্নও হয়ে পড়েছিল। সেইসঙ্গে বৃষ্টির জেরে জল বাড়তে থাকে নদীগুলির। ফলে প্লাবিত হয় উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন এলাকা। ঘরবন্দি হয়ে পড়েন স্থানীয়রা। শিলিগুড়ির সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ায় আটকে পড়েন পর্যটকরা। রবিবার থেকে কিছুটা স্বাভাবিক হয় পরিস্থিতি। ধীরে ধীরে শুরু হয়েছে যান চলাচল। তবে এখনও ঘরবন্দি স্থানীয়রা। বন্ধ রাখা হয়েছে স্কুল-কলেজও।

উত্তরবঙ্গের বাসিন্দারা এখন অব্যাহতি চাইছে বৃষ্টি থেকে। কিন্তু আবহাওয়া দপ্তরের পূর্বাভাস ফের নিরাশ করল উত্তরবঙ্গবাসীদের। আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, আগামী ২৪ ঘণ্টায় ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টি হবে কোচবিহার, জলপাইগুড়ি, ও দুই দিনাজপুরে। পাশাপাশি, হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাত হবে মালদহে। বর্তমানে কোচবিহারের যা পরিস্থিতি, তাতে আগামী ৪৮ ঘণ্টা ফের বৃষ্টি এলাকার পরিস্থিতি আরও খারাপ হবে বলেই মনে করছেন সকলে। অর্থাৎ একদিকে যখন বৃষ্টির জন্য হাহাকার করছে দক্ষিণবঙ্গের বাসিন্দারা। সেইসময়ই  অতিবৃষ্টিতে ভয়ংকর বিপদে উত্তরবঙ্গের বাসিন্দারা। 

[আরও পড়ুন: বোমাবাজির প্রতিবাদে অবরোধ উঠতেই ফের অশান্ত কাঁকিনাড়া, রাস্তায় দাপাল দুষ্কৃতীরা]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং