BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

রাতভর বৃষ্টির পরেও মুখভার আকাশের, রাজ্যে জারি থাকবে দুর্যোগ পূর্বাভাস হাওয়া অফিসের

Published by: Sayani Sen |    Posted: April 21, 2020 8:53 am|    Updated: April 21, 2020 4:25 pm

An Images

নব্যেন্দু হাজরা: হাওয়া অফিস আগেই পূর্বাভাস দিয়েছিল। জানিয়েছিল আগামী ৩ দিন বৃষ্টিতে ভিজবে রাজ্য। পূর্বাভাসকে সত্যি করে সোমবার সন্ধে থেকে ঝমঝমিয়ে বৃষ্টি শুরু হয়। সঙ্গে ছিল বজ্রবিদ্যুৎ-সহ ঝোড়ো হাওয়ার দাপট। রাতভর চলার ঝড়বৃষ্টির জেরে বেশ কয়েকটি জায়গায় জল জমে যায়। গাছও ভাঙে বেশ কয়েকটি। নিউটাউনে গাছ ভেঙে মাথায় পড়ে মৃত্যু হয় এক ব্যক্তির। বৃষ্টির সঙ্গে পাল্লা দিয়েই কমেছে তাপমাত্রার পারদ। তাই গরমে ত্রাহি ত্রাহি রব আমজনতাকে পেল খানিকটা স্বস্তি।

বেলা বাড়লেই তীব্র রোদ। তার সঙ্গে গরম। লকডাউনের আবহে বাড়িতে যেন ত্রাহি ত্রাহি রব রাজ্যবাসীর। প্রচণ্ড গরমে বাড়ি থাকাই দায়। কিন্তু সোমবার রাতভরের বৃষ্টিতে মিলল খানিকটা স্বস্তি। এদিন সন্ধে থেকেই দক্ষিণবঙ্গের একাধিক জেলায় বজ্রবিদ্যুৎ-সহ ঝড়বৃষ্টি শুরু হয়। কোথাও মাঝারি আবার কোথাও ভারী বৃষ্টির সঙ্গে ছিল দমকা ঝোড়ো হাওয়ার দাপট। প্রবল হাওয়ার দাপটে শহর এবং শহরতলির বেশ কয়েকটি জায়গায় জল জমে যায়। দমকা হাওয়ার দাপটে গাছও ভেঙে যায় বেশ কয়েকটি জায়গায়। লকডাউনের জেরে জরুরি পরিষেবার সঙ্গে জড়িত ছাড়া কোনও গাড়িই রাস্তায় দেখা যাচ্ছে না। তাই গাছ পড়ায় এবং জল জমায় কোনও সমস্যা পোহাতে হয়নি আমজনতাকে।

[আরও পড়ুন: ফুলশয্যায় করোনা কাঁটা, লকডাউনে বিয়ে হলেও স্বামীকে ছেড়ে হোম কোয়ারেন্টাইনে নববধূ]

আলিপুর আবহাওয়া দপ্তরের পূর্বাভাস অনুযায়ী, মঙ্গলবার সকাল থেকেই আকাশের মুখভার। কলকাতা-সহ গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গে ৬০-৭০ কিমি বেগে ঝোড়ো হাওয়ার সঙ্গে বৃষ্টির সম্ভাবনার কথা জানিয়েছে হাওয়া অফিস। ভোর থেকে প্রায় বেশ কিছু জায়গায় বজ্রবিদ্যুৎ-সহ বৃষ্টি শুরুও হয়ে গিয়েছে। সঙ্গে ঝোড়ো হাওয়া। বুধবার থেকে উত্তরবঙ্গের পাঁচ জেলা দার্জিলিং, কালিম্পং, আলিপুরদুয়ার, কোচবিহার, জলপাইগুড়িতে ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা। হাওয়া অফিসের পূর্বাভাস অনুযায়ী, উত্তরপ্রদেশ এবং বিহারে নিম্নচাপ অক্ষরেখা এবং ঘূর্ণাবর্ত তৈরি হয়েছে। নিম্নচাপ অক্ষরেখা তৈরি হয়েছে গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গ, ঝাড়খণ্ড, ছত্তিশগড়ের উপরে। তার জেরে বঙ্গোপসাগর থেকে ঢুকছে প্রচুর জলীয় বাষ্প। তার প্রভাবেই ঝড়বৃষ্টি।   

বৃষ্টির জেরে কিছুটা হলেও কমেছে তাপমাত্রার পারদ। মঙ্গলবার কলকাতার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৪.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিকের তুলনায় ১ ডিগ্রি কম। আর সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২০.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিকের তুলনায় ৬ ডিগ্রি কম। বাতাসে আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ সর্বাধিক ৯১ শতাংশ এবং সর্বনিম্ন ৬০ শতাংশ। সোমবার সন্ধে সাড়ে আটটার পর থেকে বৃষ্টি হয়েছে প্রায় ৩০ মিলিমিটার।

[আরও পড়ুন: দক্ষিণ ২৪ পরগনার দুই আক্রান্তের ঘনিষ্ঠ ৪১ জনই করোনা নেগেটিভ, স্বস্তিতে প্রশাসন]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement