BREAKING NEWS

২৪  মাঘ  ১৪২৯  বুধবার ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ 

READ IN APP

Advertisement

গরম থেকে রেহাই দিতে চলতি সপ্তাহেই দেখা মিলতে পারে বৃষ্টির

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: April 10, 2017 10:29 am|    Updated: November 30, 2019 6:26 pm

MeT predicts rain relief for scorching city

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ভ্যাপসা গরমে পুড়ছে কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গ৷ একদিকে চাঁদিফাটা রোদ, অন্যদিকে আর্দ্রতার দাপট বেড়ে যাওয়ায় এক ধাক্কায় অস্বস্তিসূচক ঊধর্বমুখী হওয়ায় নাজেহাল দক্ষিণবঙ্গবাসী৷ আগামী ২৪ ঘণ্টায় তাপমাত্রা আরও বাড়বে বলে সোমবার দুপুরে জানিয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর৷

[কালো টাকা নিয়ে মোদিকে খোঁচা চিদম্বরমের, জবাব বেঙ্কাইয়ার]

আবহাওয়াবিদরা জানিয়েছেন, সোমবার গোটা দিন পরিস্থিতির তেমন কোনও পরিবর্তন হবে না৷ বাইরে থেকে গরম হাওয়া এ রাজ্যে ঢুকছে৷ আর তাতেই বাড়ছে অস্বস্তিসূচক৷ বেড়েছে আর্দ্রতার পরিমাণও৷ তবে বিকেলের দিকে আকাশে কিছুটা মেঘের সঞ্চার হতে পারে৷ আর আশার কথাও শুনিয়েছেন তাঁরা। জানিয়েছেন, সপ্তাহান্তে বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে৷ গত শুক্রবার উত্তরপ্রদেশের উপর ঘূর্ণাবর্ত সৃষ্টির সুবাদে রাতের দিকে ছিটেফোঁটা বৃষ্টির মুখ দেখেছেন মহানগরবাসী৷ কিন্তু তারপর থেকেই আকাশে তেমন মেঘের সঞ্চার হয়নি৷

[‘মোদির নেতৃত্বেই নজিরবিহীন উন্নয়নের পথে চলেছে ভারত’]

এদিকে এমন আবহাওয়ায় রোগের প্রাদুর্ভাব বাড়ে বলে জানাচ্ছেন চিকিৎসকরা৷ তাঁদের কথায়, সারারাত ফুল স্পিডে পাখা বা এসি চালানোর পর ভোরের দিকে কিছুটা ঠান্ডা লাগছে৷ আর সেই ঠান্ডা-গরম থেকেই ঘরে ঘরে সর্দি-কাশি, জ্বর দেখা দিচ্ছে৷ চিকিৎসকরা জানাচ্ছেন, এমন অবস্থা হলে দ্রুতই ডাক্তার দেখিয়ে নেওয়া উচিত৷ বয়স্ক মানুষকে সকালের দিকে যতটা কম সম্ভব রোদে ঘুরতেও বারণ করছেন তাঁরা৷ তবে যারা বেরোচ্ছেন, তাঁদের মাথায় টুপি বা ছাতা এবং সানগ্লাস পরার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে৷ তেষ্টা পেলেই ডাব খেতেও বলছেন চিকিৎসকরা৷

[খোশমেজাজে নাচছেন ‘ক্যাপ্টেন কুল’, ভাইরাল ভিডিও]

আবহাওয়াবিদরা জানাচ্ছেন, আগামী কয়েকদিন এমনই আবহাওয়া চলবে৷ গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গের উপরে থাকা নিম্নচাপ অক্ষরেখার প্রভাবে বায়ুমণ্ডলে বেশি পরিমাণে জলীয় বাষ্প তৈরি হচ্ছে৷ এর জেরেই ভ্যাপসা গরম৷ হাঁসফাঁস করা অস্বস্তি৷ ১ বৈশাখ তো আসতে দেরি নেই৷ তবুও কালবৈশাখীর দেখা নেই৷ গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গ থেকে ওড়িশা হয়ে ছত্তিশগড় পর্যন্ত নিম্নচাপ অক্ষরেখা বিস্তৃত আছে৷ এর জেরে মেঘ তৈরি হচ্ছে৷ কিন্তু অক্ষরেখা দুর্বল হওয়ায় তা দানা বাঁধছে না৷ ফলে আকাশে মেঘ থাকলেও বৃষ্টি নেই৷ উল্টে গরম লাগছে বেশি৷ আকাশে মেঘ থাকায় রাতের উত্তপ্ত ভুপৃষ্ঠ থেকে তাপ বিকিরণ হচ্ছে না৷ তার ফলে রাতে চ্যাটচেটে গরম লাগছে৷

[মুক্তিযুদ্ধের সময় শেখ হাসিনার প্রাণ বাঁচিয়েছিলেন এই ভারতীয় মেজর]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে