BREAKING NEWS

১০ মাঘ  ১৪২৮  সোমবার ২৪ জানুয়ারি ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

পার্টি অফিসে ধর্ষণের চেষ্টা, বিজেপি নেতাকে গ্রেপ্তারের দাবিতে পুলিশের দ্বারস্থ নেত্রী

Published by: Subhamay Mandal |    Posted: May 14, 2019 9:22 am|    Updated: June 3, 2019 7:39 pm

Nadia BJP woman leader alleges rape, accuses cops of apathy

ছবি প্রতীকী

বিপ্লব দত্ত, কৃষ্ণনগর: ভোটের আগে নদিয়ার রানাঘাটে বিজেপির জেলা পার্টি অফিসের মধ্যে দলের এক নেতার বিরুদ্ধে নেত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা চালানোর অভিযোগ উঠেছিল। অনেকদিন পেরিয়ে গেলেও অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার না করায় এবার পুলিশের পদস্থ আধিকারিকদের শরণাপন্ন হলেন বিজেপির ওই নেত্রী। চাকদহের বাসিন্দা ওই নেত্রী সোমবার রাজ্য পুলিশের নদিয়া-মুর্শিদাবাদ রেঞ্জের আইজি, পুলিশ সুপার, এসডিপিও, রানাঘাট থানার আইসির কাছে লিখিতভাবে আবেদন জানান। ওই আবেদনপত্রে তিনি অভিযোগ করেছেন, ‘গত ১৫ এপ্রিল তিনি রানাঘাট মহিলা থানায় বিজেপির জেলা পার্টি অফিসের অফিস সম্পাদক রাখাল সাহার বিরুদ্ধে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ দায়ের করেছিলেন। কিন্তু দীর্ঘদিন পেরিয়ে যাওয়ার পরেও রাখাল সাহার বিরুদ্ধে কোনওরকম ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। উলটে রাখাল সাহার ঘনিষ্ঠ কিছু লোক তাকে মামলা তুলে নেওয়ার জন্য চাপ দিচ্ছে। তার জন্য দশ লক্ষ টাকার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। মামলা তুলে না নিলে খুনের হুমকিও দেওয়া হচ্ছে। তিনি আতঙ্কের মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন।’

[আরও পড়ুন: কাটোয়ায় বিজেপি কর্মীর স্ত্রীকে ধর্ষণ, পলাতক ২ অভিযুক্ত]

পুলিশের উচ্চপদস্থ আধিকারিক দের কাছে অভিযুক্তরা রাখাল সাহাকে অবিলম্বে গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়েছেন ওই মহিলা। গত ১৫ এপ্রিল ওই নেত্রী রানাঘাটের মহিলা থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছিলেন। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, অভিযুক্তের নাম রাখাল সাহা। তিনি বিজেপির নদিয়া দক্ষিণ জেলা পার্টি অফিসের অফিস সম্পাদক। তার বাড়ি রানাঘাটের ছোট বাজার এলাকায়। রানাঘাট মহিলা থানায় তার বিরুদ্ধে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ দায়ের করেছেন চাকদহের বাসিন্দা বিজেপির মহিলা মোর্চার ওই নেত্রী। পুলিশের কাছে তিনি অভিযোগ করেছিলেন, গত ১১ এপ্রিল তিনি চাকদহ থেকে রানাঘাটে জেলা পার্টি অফিসে এসেছিলেন নির্বাচনী প্রচারের কিছু জিনিসপত্র নিতে। সেই সময় পার্টি অফিসে ছিলেন রাখাল সাহা। সেই সব জিনিসপত্র দেওয়ার নাম করে রাখাল সাহা তাকে পার্টি অফিসের দোতলায় একটি ফাঁকা ঘরে নিয়ে যান এবং ধর্ষণের চেষ্টা করেন। তিনি কোনওরকমে হাত ছিটকে ঘরের বাইরে বেরিয়ে আসেন এবং চিৎকার করেন ওই মহিলা। যদিও সেই সময় অভিযুক্ত রাখাল সাহা বলেছিলেন, ‘আমার নামে সম্পূর্ণ মিথ্যা অভিযোগ করে আমাকে ফাঁসানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। এর পিছনে অন্য কারওর ষড়যন্ত্র রয়েছে বলে আমার স্থির বিশ্বাস। পুলিশ সেটা তদন্ত করে দেখুক।’ যদিও এত দিনের মধ্যেও কেন রাখাল সাহাকে গ্রেপ্তার করা যায়নি, সে বিষয়ে পুলিশ জানিয়েছে, ‘অভিযুক্ত রাখাল সাহা বর্তমানে পলাতক। তার খোঁজে চারিদিকে তল্লাশি চালানো হচ্ছে।’

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে