BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

মর্যাদা পাননি নেতাজি, জাতীয় ছুটি চেয়ে ফের সরব মমতা

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: January 23, 2018 10:08 am|    Updated: January 23, 2018 10:08 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: দেশের নেতা কারও একার হন না। তিনি সকলের নেতা। নেতাজি জন্মজয়ন্তীতে ফের কেন্দ্রীয় বঞ্চনা নিয়ে সরব হলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। জানালেন, যে মর্যাদা পাওয়া উচিত ছিল তা পাননি নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু

[ নেতাজি ফিরে আসবেন, আজও বিশ্বাস করে কাটোয়ার এই আশ্রম ]

DUNk-XkU8AAwyFp

মাত্র এক মিনিটেই নেতাজির নিখুঁত ছবি! বাংলার বিস্ময় বিশ্বনাথ ]

নেতাজি ও স্বামীজির জন্মদিন জাতীয় ছুটি হিসেবে ঘোষণা করা হোক। এ দাবি বরাবর তুলেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু কেন্দ্র তাঁর দাবিতে সায় দেয়নি। ফলে আরও একটি জন্মদিন পেরচ্ছে নেতাজির। থেকে যাচ্ছে সেই একই বঞ্চনার তত্ত্ব। এবার তা নিয়ে ফের সরব হলেন মুখ্যমন্ত্রী। নেতাজির জন্মদিনে কেন্দ্রের বৈষম্যের বিরুদ্ধে তোপ দেগে তিনি জানালেন, জাতীয় নায়ক হিসেবে মর্যাদা পাওয়া উচিত ছিল নেতাজির। কিন্তু তাঁকে তা দেওয়া হয়নি। এমনকী তাঁর জন্মদিন জাতীয় ছুটি হিসেবেও ঘোষণা করতে নারাজ কেন্দ্র। প্ল্যানিং কমিশনের রূপকার ছিলেন সুভাষচন্দ্র বসু। কেন্দ্র তাও তুলে দিয়েছে। সব মিলিয়ে নেতাজির প্রতি কেন্দ্র যে বিমাতৃসুলভ আচরণ করতে তা আরও একবার স্পষ্ট করে তুলে ধরেন মমতা। জানান, দেশ স্বাধীন হয়েছে। আজও নেতাজির অন্তর্ধান রহস্যাবৃতই থেকে গেল। আজও সে সব সামনে এল না। কেন্দ্র ইচ্ছে করেই এই ফাইল চেপে রেখেছে বলে ইঙ্গিত মুখ্যমন্ত্রীর। ঘটনাচক্রে, নরেন্দ্র মোদি ক্ষমতায় আসার আগে নির্বাচনী প্রতিশ্রুতিতে নেতাজির ফাইল সামনে আনবেন বলেই জানিয়েছিলেন। দফায় দফায় কিছু ফাইল প্রকাশও করা হয়। কিন্তু ওই পর্যন্তই। তাতে কিছু তথ্য মেলে মাত্র। রহস্য অধরাই থেকে যায়। সেটাই কি কেন্দ্রের ইচ্ছে? জন্মজয়ন্তীতে সে প্রশ্ন তুলে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী।

রাজ্যে অবশ্য নেতাজিকে মর্যাদা দিতে আয়োজনে ত্রুটি করেননি মুখ্যমন্ত্রী। গোটা রাজ্য জুড়ে চলছে সুভাষ উৎসব। গতকাল থেকেই রাজ্যের প্রতিটি ব্লকে ব্লকে চলছে উৎসব। নেতাজির প্রতিকৃতিতে মাল্যদানের পাশাপাশি চলছে তাঁকে নিয়ে প্রদর্শনী। নেতাজির জীবন ও কর্মকাণ্ডকেই তুলে ধরা হচ্ছে তরুণ প্রজন্মের সামনে। এই পুরো আয়োজনকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী নিজেই। বাংলার বীরকে কেন্দ্র পর্যাপ্ত মর্যাদা না দিতে পারে, কিন্তু রাজ্য যথাযোগ্য সম্মান দিয়েই জানিয়ে দিচ্ছে, নেতাজিকে বাংলা ভোলেন।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement