৪ আশ্বিন  ১৪২৬  রবিবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

ভাস্কর মুখোপাধ্যায়, বোলপুর:  কখনও স্বাস্থ্যকেন্দ্রে বিস্ফোরণ, তো কখনও আবার বোমা মেরে বিজেপি নেতাকে খুন। এলাকায় একের এক ঘটনায় পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছিল। শেষপর্যন্ত বীরভূমের লাভপুর থানার ওসি চয়ন ঘোষকে সরিয়ে দিল প্রশাসন। তাঁকে পুলিশ লাইনে ক্লোজ করে শোকজের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। লাভপুর থানার ওসির দায়িত্ব পেয়েছেন বোলপুর থানার সাব ইন্সপেক্টর পার্থসারথি মুখোপাধ্যায়।

[আরও পড়ুন: মর্মান্তিক! টিকটক ভিডিও তৈরির নেশায় ট্রেনের সামনে অভিনয়, মৃত কিশোর]

লোকসভা ভোটের পর থেকে বারবার উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে বীরভূমের লাভপুর। গত শনিবার রাতে এক বিজেপি নেতাকে খুনের ঘটনায় ধুন্ধুমার কাণ্ড ঘটে মীরবাঁধ গ্রামে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, রাতে গ্রামের কয়েকজনের সঙ্গে গল্পগুজব করে বাড়ি ফিরছিলেন ডলু শেখ। বাড়িতে ঢোকার মুখে তাঁকে লক্ষ্য করে পরপর বেশ কয়েকটি বোমা ছোঁড়ে চার-পাঁচজন দুষ্কৃতী। প্রাণ বাঁচানোর জন্য যখন পালাতে যান ওই বিজেপি নেতা, তখন তাঁর মাথার ঠিক পিছনে একটি বোমা ফেটে যায়। বোমার আঘাতে ছিন্নভিন্ন হয়ে যায় দেহ। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গেলে গ্রামবাসীদের তুমুল বিক্ষোভের মুখে পড়েন লাভপুর থানার পুলিশকর্মীরা। গ্রামবাসীদের তাণ্ডবে প্রথমে গ্রামে ঢুকতেই পারেনি পুলিশ। দীর্ঘক্ষণ ডলু শেখের দেহ রাস্তাতেই পড়েছিল। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ লাঠিচার্জ করে বলে অভিযোগ। শেষপর্যন্ত অবশ্য গ্রামে ঢুকে পুলিশ মৃতদেহটি উদ্ধার করে।

গত মাসে আবার মীরবাঁধ গ্রামে একটি স্বাস্থ্যকেন্দ্রে বিস্ফোরণ ঘটে। বিস্ফোরণ তীব্রতা এতটাই ছিল যে, স্বাস্থ্যকেন্দ্রের বাড়িটির একতলা পুরোপুরি ভেঙে পড়েছিল। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, ওই স্বাস্থ্যকেন্দ্রটি দীর্ঘদিন ধরেই বন্ধ ছিল। বন্ধ স্বাস্থ্যকেন্দ্রে রোজ রাতে আসর বসাত দুষ্কৃতীরা। এমনকী, স্বাস্থ্যকেন্দ্রে বোমা মজুত করা ছিল বলেও অভিযোগ। আর এই দুটি ঘটনায় লাভপুর থানার পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছিল। তার জেরেই লাভপুর থানার ওসি চয়ন ঘোষকে সরিয়ে দেওয়া হল বলে জানা গিয়েছে।

[আরও পড়ুন: আশা দেখাচ্ছে ‘দিদিকে বলো’, আমতায় হৃত জমি পুনরুদ্ধারের চেষ্টায় মরিয়া তৃণমূল]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং