১০ মাঘ  ১৪২৬  শুক্রবার ২৪ জানুয়ারি ২০২০ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

ধীমান রায়, কাটোয়া: ঠাঁই ঠাঁই ঠাঁই। বর ভিটেয় পা রাখতেই লম্বা দোনলার মুখ ছিটকে পরপর তিনটে গগনভেদী আওয়াজ। শূন্যে গুলি ছুড়লেন কনের জেঠু। পারিবারিক পরম্পরায় ‘গার্ড অফ অনার’! বুধবার রাতে কাটোয়ার টেলিফোন ময়দানের এই ঘটনায় শোরগোল। সেখানকার মাধবীতলার মণ্ডলবাড়ির এটাই দুই পুরুষের রেওয়াজ। যখন থেকে তাঁদের জমিদারি তখন থেকে এমনটাই দেখে আসছে সে বাড়ির রোয়াক-দালান। পাত্র হোক বা পাত্রী, বিয়ের দিন বর-কনেকে এভাবেই অভ্যর্থনা জানান বাড়ির বর্তমান প্রবীণতম অভিভাবক।

কনের জেঠু রমণী মণ্ডল বাড়ির প্রবীণতম অভিভাবক, এদিন তিনি পরপর শূন্যে তিনটে গুলি চালান। এ বন্দুকের লাইসেন্স তাঁর রয়েছে। হলে কী হবে! হালের কাটোয়া শহরে এমন ঘটনা বিরল হয়ে গিয়েছে। এখন গুড়ুম গুড়ুম আওয়াজ শুনলেই বুক কেঁপে ওঠে। এই বুঝি খুন হয়ে গেল পড়শি কেউ। আওয়াজ শুনে তেমনটাই ঠাওরেছিলেন টেলিফোন ময়দানের পাড়া-পড়শিরা। কানে কানে খবর ছড়াতে সময় লাগেনি। শহর কাটোয়া তো রীতিমতো তোলপাড়। গুলির শব্দের থেকেও দ্রুতগতিতে ভাইরাল কনের ছবি। সেই দোনলা হাতে দাঁড়িয়ে। কনের বেশেই। খবর পেয়ে দ্রুত পৌঁছয় পুলিশ। হকচকিয়ে যায় পরিবারের লোক। বন্দুকটি হেফাজতে নিয়ে নেওয়া হয়। কিন্তু সেটি যে লাইসেন্সপ্রাপ্ত? সেই লাইসেন্সও সঙ্গে নিয়ে যায় পুলিশ।

[আরও পড়ুন: CAB পাশ হওয়ায় আনন্দের জোয়ার মতুয়া সমাজে, জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের কুশপুতুল দাহ]

বিয়ে শেষে বাড়ির ভুরিভোজও তখন বোধহয় শেষ হয়নি। শুধুমাত্র বিয়ে বাড়ি বলেই বোধহয় ছাড়। পরে থানায় দেখা করতে বলা হয়েছে রমণীবাবুকে। এখন অবশ্য দিনকাল বদলেছে। বিয়ে বসেছিল এলাকার একটি লজে। মাধবীতলার মণ্ডল পরিবারের কনে পায়েলের বিয়ে হয়েছে মাস্টারপাড়ার সৈকত মণ্ডলের সঙ্গে। কনের জেঠু জানিয়েছেন, “পারিবারিক শুভ কাজে আমাদের বংশ পরম্পরা বজায় রাখতেই শূন্যে গুলি ছুঁড়ে গান স্যালুট দিয়ে থাকি। এদিনও তা-ই করা হয়েছে।” কিন্তু রেওয়াজ হলেও এভাবে গুলি চালিয়ে বিয়ে বাড়িতে হুল্লোড় করতেও যে পুলিশের অনুমতি লাগে, তা জানা ছিল না মণ্ডল বাড়ির। সে কথাই জানাচ্ছে পুলিশ। সে কারণেই লাইসেন্স থাকলেও বন্দুক আর তার লাইসেন্স দু’টিই আটক করা হয়েছে।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং