১৩ অগ্রহায়ণ  ১৪২৮  মঙ্গলবার ৩০ নভেম্বর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

বমি করে ফেলার ‘অপরাধে’ অন্তঃসত্ত্বাকে বেধড়ক মার প্রতিবেশীর

Published by: Sayani Sen |    Posted: March 17, 2019 1:15 pm|    Updated: March 17, 2019 1:15 pm

Pregnant woman allegedly beaten at Nadia

ছবি: প্রতীকী।

পলাশ পাত্র, তেহট্ট: ‘অপরাধ’ বলতে বমি করে ফেলেছিলেন অন্তঃসত্ত্বা৷ তাও আবার নিজের বাড়ির পিছনেই৷ তা সত্ত্বেও সেই ‘অপরাধে’র শাস্তি হিসাবে গৃহবধূকে বেধড়ক মারধর প্রতিবেশীর৷ নদিয়ার মুরুটিয়া থানার রশিদপুরের ঘটনা৷ গুরুতর অসুস্থ ওই মহিলা তেহট্ট হাসপাতালে ভরতি৷ তাঁর শারীরিক অবস্থা অত্যন্ত আশঙ্কাজনক৷

[জঞ্জালের স্তূপে জীবন্ত পুড়িয়ে খুন, চাঞ্চল্য বেলুড়ে]

নদিয়ার মুরুটিয়া থানার রশিদপুরের বাসিন্দা শিখা বিবি৷ দীর্ঘদিন ধরেই ওই এলাকায় বাস করেন তিনি৷ বর্তমানে ছ’মাসের অন্তঃসত্ত্বা শিখা৷ অসুস্থতা প্রায় লেগেই রয়েছে৷ অহরহই বমি হয় গৃহবধূর৷ শনিবার সন্ধেবেলায় শারীরিক অসুস্থতা বাড়তে থাকে৷ বমি শুরু হয়৷ আচমকাই বমি করতে করতে বাড়ির পিছনে চলে যান তিনি৷ বমি করার পর সেভাবে সুস্থও হয়ে ওঠেননি শিখা৷ তার আগেই প্রতিবেশী দৌড়ে আসেন শিখার কাছে৷ কেন তিনি এখানে বমি করলেন, সেই প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করতে থাকে প্রতিবেশী৷ শিখার পরিবার এবং প্রতিবেশীর মধ্যে কথা কাটাকাটি শুরু হয়৷ অভিযোগ, বচসা চলাকালীন প্রতিবেশী মাসুম শেখের পরিবারের পাঁচ-ছজন অন্তঃসত্ত্বার দিকে রীতিমতো তেড়ে আসে৷ তাঁর পেটে লাথি মারতে শুরু করে৷ শিখাকে বাঁচাতে গিয়ে তাঁর পরিজনেরাও পালটা প্রতিবেশীর উপর চড়াও হয়৷ একে অপরকে লাঠি, কোদাল দিয়ে মারধর করতে শুরু করে৷ বেশ কিছুক্ষণ পর অন্যান্য প্রতিবেশীদের মধ্যস্থতায় পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়৷ 

[শ্রাদ্ধানুষ্ঠানের পর পৃথক মহাভোজ, ফের প্রকাশ্যে বড়মার পরিবারের তরজা]

এদিকে, ততক্ষণে মাটিতে শুয়ে পড়েছেন অন্তঃসত্ত্বা৷ যন্ত্রণায় ছটফট করতে থাকেন তিনি৷ তড়িঘড়ি ওই গৃহবধূকে উদ্ধার করে করিমপুর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়৷ কিন্তু গৃহবধূর শারীরিক অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাঁকে তেহট্ট হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়েছে৷ সেখানেই আপাতত মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন গৃহবধূ৷ চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, গৃহবধূর শারীরিক অবস্থা বেশ আশঙ্কাজনক৷ তাঁর গর্ভস্থ ভ্রূণের অবস্থাও ভাল নয়৷ এছাড়াও প্রতিবেশী এবং শিখার পরিজনদের একে অপরের উপর আক্রমণের ঘটনায় অন্তত চারজন জখম হয়েছেন৷ তাঁরা ভরতি রয়েছেন হাসপাতালে৷

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে