১০ আষাঢ়  ১৪২৬  মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০১৯ 

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সুমিত বিশ্বাস, পুরুলিয়া: রাজ্যজুড়ে সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ১২ ঘণ্টা কর্মবিরতি৷ বহির্বিভাগের পরিষেবাও বন্ধ৷ জরুরি বিভাগ খোলা রাখার আশ্বাস মিললেও, অধিকাংশ জায়গায় বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে তাও বন্ধ হয়ে যায়৷ প্রত্যন্ত এলাকা থেকেও সরকারি হাসপাতালের দোরগোড়া থেকে হতাশ হয়ে ফিরে গিয়েছেন প্রচুর রোগী৷

[আরও পড়ুন: বিজেপি-পুলিশ সংঘর্ষে নানুরে বোমাবাজি, মাথা ফাটল ওসির]

এসবের মাঝে একেবারেই ভিন্নতর নিদর্শন রাখল পুরুলিয়া শহরের একমাত্র সরকারি চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান, পুরুলিয়া গভর্নমেন্ট মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল দেবেন মাহাতো (সদর)৷ এনআরএস হাসপাতালে ইন্টার্ন চিকিৎসককে মারধরের তীব্র প্রতিবাদ জানালেন এখানকার চিকিৎসকরাও৷ তবে পরিষেবা চালু রেখেই৷ যেখানে রাজ্যের অন্যান্য হাসপাতালগুলিতে সকাল ৯টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত আউটডোর পরিষেবা বন্ধ রেখেছে প্রতিবাদে শামিল চিকিৎসকরা, সেখানে দেবেন মাহাতো (সদর) হাসপাতালের চিকিৎসকরা মাত্র ঘণ্টা দুয়েকের কর্মবিরতি পালন করলেন৷ সকাল ৯টা থেকে সাড়ে এগারোটা পর্যন্ত হাসপাতাল চত্বরেই পোস্টার, ব্যানার নিয়ে প্রতিবাদ করেন৷ কিন্তু তারপর, সাড়ে এগারোটা থেকে ফের হাসপাতালে রোজকার মতো চালু হয়ে গিয়েছে চিকিৎসা পরিষেবা৷ সবকটি বিভাগেই স্বাভাবিক পরিষেবা৷ অপারেশন থিয়েটারও খোলা৷ রোগীদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেছেন সেখানে কর্মরত সব চিকিৎসকই৷

পুরুলিয়ার মতো প্রান্তিক জেলায় স্বাস্থ্য পরিষেবার জন্য সরকারি হাসপাতাল এবং স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলির উপর নির্ভর করা ছাড়া বিশেষ রাস্তা নেই জেলাবাসীর৷ তাই এই স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠানগুলি অর্ধদিবস বন্ধ থাকলে, সাধারণ মানুষকে বেশ দুর্ভোগের মধ্যে পড়তে হয়৷ তাঁদের কথা ভেবেই মানবিক হয়েছেন দেবেন মাহাতো (সদর) হাসপাতালের চিকিৎসকরা৷ আইএমএ-র জেলা সভাপতি মনোজিৎ মণ্ডলের কথায়, ‘চিকিৎসকরা বারবার প্রহৃত হচ্ছেন৷ তা তীব্র নিন্দনীয়৷ তবু স্বাস্থ্য পরিষেবার কথা ভেবে আমরা কাজে ফিরেছি৷ না হলে প্রত্যন্ত গ্রাম থেকে আসা রোগীরা হয়রান হবেন৷ তবে পরেরবার থেকে এধরনের ঘটনা ঘটলে আমরা সত্যিই পরিষেবা দিতে পারব না৷’

prl-active-hospital-2

চিকিৎসকদের এই ভূমিকার প্রশংসা করেছেন রাজ্যের মন্ত্রী তথা পুরুলিয়ার তৃণমূল সভাপতি শান্তিরাম মাহাতো এবং জেলা পরিষদের সভাধিপতি সুজয় বন্দ্যোপাধ্যায়৷ সেইসঙ্গে রোগীদেরও সহযোগিতা করার জন্য ধন্যবাদ জানিয়েছেন৷ আবেদন করেছেন, তাঁরা যেন চিকিৎসকদের সঙ্গে এমন আচরণ না করেন৷ প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন, চিকিৎসকদের নিরাপত্তায় রাজ্য সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করবেন৷

[আরও পড়ুন: দায়িত্ব পেয়ে নতুন জেলা কমিটি গঠন অর্পিতার, ব্রাত্যই প্রাক্তন সভাপতি বিপ্লব]

পুরুলিয়া গভর্নমেন্ট মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল দেবেন মাহাতো (সদর) এ একটা সময়ে ডাক্তার নিগ্রহের মতো ঘটনা ঘটেছে একাধিকবার৷ বিভিন্ন সমস্যার সমাধানে পুলিশের যাতায়াত নিত্য নৈমিত্তিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছিল৷ তবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যের ক্ষমতায় আসার পর সামগ্রিক চিকিৎসা ব্যবস্থার উন্নয়ন ঘটিয়েছেন৷ যার সুফল পেয়েছে দেবেন মাহাতো (সদর) হাসপাতালও৷ তাই এই হাসপাতালের উপর নির্ভরতাও বেড়েছে৷ আর সেই নির্ভরতার কথা মাথায় রেখেই মানবিক হলেন সেখানকার চিকিৎসকরা৷

ছবি: সুনীতা সিং৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং