BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

সপ্তাহান্তে বৃষ্টিতে ভিজবে বঙ্গ, কালবৈশাখীর পূর্বাভাস আগামী সপ্তাহেও

Published by: Subhamay Mandal |    Posted: April 25, 2020 11:31 am|    Updated: April 25, 2020 11:47 am

An Images

নব্যেন্দু হাজরা: কথা ছিল, সপ্তাহান্তে ঝড়বৃষ্টি চলবে রাজ্যের বিভিন্ন জেলায়। চরম অস্বস্তির মধ্যে একটি স্বস্তি মিলবে। তবে হাওয়া অফিসের নয়া পূর্বাভাস বলছে, আগামী সপ্তাহের শুরুর দিকেও কালবৈশাখীর সম্ভাবনা আছে। অন্তত মঙ্গলবার পর্যন্ত বিক্ষিপ্তভাবে বৃষ্টি হবে বিভিন্ন জায়গায়। যার জেরে তাপমাত্রার পারদ কিছুটা কমবে বলে মনে করা হচ্ছে। তবে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ বেশি থাকায়, আর্দ্রতা থাকবে।

বিহারে একটি ঘূর্ণাবর্ত এবং সেই ঘূর্ণাবর্ত থেকে মধ্যপ্রদেশ পর্যন্ত নিম্নচাপ অক্ষরেখা বিস্তৃত হয়েছে, যেটা ঝাড়খণ্ড-ছত্তিশগড়ের উপর দিয়ে গেছে। এর প্রভাবেই বঙ্গোপসাগর থেকে জলীয় বাষ্প ঢুকে ঝড়বৃষ্টির সম্ভাবনা তৈরি করছে।চলতি সপ্তাহের মধ্যভাগ থেকে প্রায় ফি দিনই বিকেল অথবা সন্ধের দিকে কয়েক পশলা বৃষ্টিতে ভিজেছে কলকাতা তথা দক্ষিণবঙ্গ। দিনভর চরম উষ্ণতা ও আর্দ্রতা থেকে স্বস্তি মিলেছে বঙ্গবাসীর। কোথাও কোথাও শিলাবৃষ্টিও হয়েছে। বিশেষত উত্তরবঙ্গের কয়েকটি জেলায় ঝড়বৃষ্টির দাপট ছিল ভালই।

[আরও পড়ুন: খড়গপুর IIT’র টেক মার্কেটে বিধ্বংসী অগ্নিকাণ্ড, পুড়ে ছাই ১২টি দোকান]

এই সপ্তাহান্তেও একই আবহাওয়া থাকবে। আজ, শনিবার বিকেলের দিকে বজ্রবিদ্যুৎ-সহ বৃষ্টি হবে বলে পূর্বাভাস আলিপুর আবহাওয়া দপ্তরের। দিনের প্রথমার্ধ্বে চড়া রোদ ও আকাশ পরিষ্কার থাকলেও, বিকেলের পর থেকে আবহাওয়া পালটে যাবে। রবিবারও কালবৈশাখীর সম্ভাবনা রয়েছে দক্ষিণবঙ্গের ৫ জেলা ও উত্তরবঙ্গের দুই জেলায়। বিশেষত পশ্চিমাঞ্চলের জেলা অর্থাৎ বাঁকুড়া, পুরুলিয়া, বীরভূমে। বৃষ্টিতে ভিজতে পারে দুই ২৪ পরগনা, দুই মেদিনীপুরও।

আলিপুর হাওয়া অফিসের আরও পূ্র্বাভাস, বুধ বা বৃহস্পতিবার নাগাদ আন্দামান সাগরে তৈরি হতে পারে নিম্নচাপ যা শক্তি বাড়িয়ে ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হতে পারে দক্ষিণ-পূর্ব বঙ্গোপসাগরে। ঘণ্টায় ৫০ থেকে ৬০ কিলোমিটার বেগে ঝোড়ো হাওয়া বইতে পারে।  আজ কলকাতায় মূলত মেঘলা আকাশ। তাপমাত্রা বেশ কিছুটা নেমে গেছে। সকালে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ২৩.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিকের তিন ডিগ্রি কম। শুক্রবার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৩ ডিগ্রি, স্বাভাবিকের চেয়ে ৩ ডিগ্রি কম। বাতাসে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ সর্বোচ্চ ৯০ শতাংশ।যার জেরে সারাদিন আর্দ্রতা ও অস্বস্তি বজায় থেকেছে।

[আরও পড়ুন: রাজ্যে ফের মিলল করোনা আক্রান্তের হদিশ, ব্যাংক কর্মীর শরীরে ভাইরাস সংক্রমণ]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement