BREAKING NEWS

১০ মাঘ  ১৪২৮  সোমবার ২৪ জানুয়ারি ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

পড়ুয়ার অভাবে ২০টি প্রাথমিক স্কুলে বন্ধের উদ্যোগ শিক্ষা দপ্তরের

Published by: Sulaya Singha |    Posted: March 12, 2019 9:28 pm|    Updated: March 12, 2019 9:28 pm

South Dinajpur: 20 primary schools to be closed

রাজা দাস, বালুরঘাট: প্রাথমিকে ২০ জনেরও কম পড়ুয়া রয়েছে, এমন ২০টি প্রাথমিক স্কুল বন্ধ করার উদ্যোগ নিল দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা প্রাথমিক শিক্ষা দপ্তর। এনিয়ে ইতিমধ্যে রাজ্য শিক্ষা পর্ষদের কাছে বিস্তারিত তথ্য পাঠানো হয়েছে। শিক্ষার অধিকার আইন বলবৎ রাখার জন্য এটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ বলে জানান জেলা বিদ্যালয় পরিদর্শক (প্রাথমিক) মৃণালকান্তি রায় সিংহ।

জানা গিয়েছে, দক্ষিণ দিনাজপুর জেলায় রয়েছে ১১৮৪ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়। সেখানে শিক্ষক রয়েছেন মোট ৪ হাজার ৯৯ জন। সব মিলিয়ে ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা প্রায় এক লক্ষ। সরকারি নির্দেশ অনুযায়ী, বর্তমানে ৩০ জন ছাত্রছাত্রী পিছু একজন শিক্ষক থাকবে। কিন্তু জেলার বহু প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এই অনুপাত বা সমতা বজায় নেই। কোথাও শিক্ষকের তুলনায় পড়ুয়ার সংখ্যা বেশি, আবার কোথাও পড়ুয়ার তুলনায় শিক্ষক। ফলে পঠনপাঠনের ক্ষেত্রে সমতা রক্ষা যায় না প্রাথমিক স্কুলগুলিতে। এমনকী শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রেও সঠিক পথে এগোনো সম্ভব হয় না। সেই কথা মাথায় রেখেই রাজ্য শিক্ষাদপ্তর থেকে একটি নির্দেশিকা জারি হয় গতবছরের ২২ অক্টোবর। যাতে বলা হয়, পড়ুয়া ও শিক্ষকদের অনুপাত বজায় রাখতে রাজ্যের প্রতিটি জেলাকে সমস্ত স্কুলের তথ্য দ্রুত পেশ করতে।

[ডেঙ্গি রুখতে তৎপর পঞ্চায়েত, তৈরি হয়েছে ‘সোক-পিট’]

এদিকে আবার দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার বহু প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়ুয়ার সংখ্যা কুড়ির অধিক নয়। শহর ও তার লাগোয়া প্রাথমিক স্কুলগুলিতে পড়ুয়ার সংখ্যা দিনদিন কমছে। উলটোদিকে পরিসংখ্যান অনুযায়ী, শহরের বেসরকারি স্কুলে ছাত্রছাত্রীর ভরতির সংখ্যা উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে। বালুরঘাট শহরেই এমন দশটি স্কুল রয়েছে যেখানে ছাত্র সংখ্যা ২০-র কম। দক্ষিণ দিনাজপুর জেলাজুড়ে এমন ৩৭ টি স্কুল রয়েছে। ২০-র নিচে পড়ুয়া রয়েছে, জেলার এমন ২০ টি স্কুলকে চিহ্নিত করে রাজ্য শিক্ষা পর্ষদে পাঠানো হয়।

জেলা বিদ্যালয় পরিদর্শক (প্রাথমিক) মৃণালকান্তি রায় সিংহ জানান, সিদ্ধান্তটা অনেক আগেই নেওয়া হয়েছে। ২০-র কম পড়ুয়া রয়েছে এবং এক কিলোমিটারের মধ্যেই অন্য সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় আছে সেগুলিকে চিহ্নিত করা হয়েছে। ওই স্কুলগুলি তুলে দেওয়ার প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। বন্ধ হতে চলা স্কুলের পড়ুয়াদের পাশের স্কুলে পাঠানো হবে। এতে শিক্ষার অধিকার আইনও অক্ষুণ্ণ থাকবে পড়ুয়াদের।

[পুরনো সেনাপতিতেই ভরসা, দলের প্রয়োজনে সহযোদ্ধাদেরই এগিয়ে দিলেন মমতা]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে