৯ অগ্রহায়ণ  ১৪২৯  শনিবার ২৬ নভেম্বর ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

লোকসভা ভোটেই বিজেপির শক্তি টের পাবে তৃণমূল, দাবি সুশীল মোদির

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: January 27, 2019 8:56 pm|    Updated: January 27, 2019 8:56 pm

Sushil Modi attacks TMC

রূপায়ণ গঙ্গোপাধ্যায়: লোকসভা নির্বাচনেই তৃণমূল বুঝতে পারবে, এ রাজ্যে বিজেপির শক্তি কতটা। রবিবার হাওড়ার চুনাভাঁটিতে বিজেপির গণতন্ত্র বাঁচাও সভা থেকে এভাবেই রাজ্যের শাসকদলকে হুঁশিয়ারি দিলেন বিহারের উপ মুখ্যমন্ত্রী সুশীল মোদি। তাঁর অভিযোগ, পশ্চিমবঙ্গে এখন অঘোষিত জরুরি অবস্থা চলছে। রাজ্যে গণতন্ত্র নেই। বিজেপিই রাজ্যে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে পারে বলে দাবি করলেন বিহারের উপ মুখ্যমন্ত্রী।

[‘মাঠ’ টানাটানি, অনিশ্চয়তায় প্রধানমন্ত্রীর ঠাকুরনগরের সভা]

রথযাত্রা কর্মসূচি বাতিল হওয়ার পর রাজ্যজুড়ে ‘গণতন্ত্র বাঁচাও’ সভা শুরু করেছে বঙ্গ বিজেপি। সেই সভায় কেন্দ্রীয় নেতা-মন্ত্রীরা আসবেন। আসছেন বিভিন্ন রাজ্যে বিজেপির বর্তমান এবং প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ও উপ মুখ্যমন্ত্রীরা। সেই গণতন্ত্র বাঁচাও সভায় যোগ দিতেই  এদিন হাওড়ার আন্দুল রোডের চুনাভাঁটিতে  বিবেকানন্দ যুব সমিতির মাঠে উপস্থিত ছিলেন বিহারের উপ মুখ্যমন্ত্রী সুশীল মোদি। ছিলেন রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ ও কেন্দ্রীয় সম্পাদক রাহুল সিনহা। সভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে বিভিন্ন ইস্যুতে তৃণমূলকে আক্রমণের নিশানা করেন সুশীল মোদি। তিনি দাবি করেন, পঞ্চায়েত নির্বাচনে বাংলায় বিজেপির ৬২জন কর্মী খুন হয়েছেন। অন্য কোনও রাজ্যে এরকম হয় না। ‘লোকসভা ভোটে তৃণমূলের ঘাম ছুটিয়ে দেব’- এই মন্তব্য করে তাঁর হুঁশিয়ারি, লোকসভা নির্বাচন পরিচালনা করবে কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশন। ভোটে এ রাজ্যের পুলিশ থাকবে না। কেন্দ্রীয় বাহিনী দিয়ে ভোট হবে।তাতেই জনরায় সঠিকভাবে বোঝা যাবে। কেন্দ্রীয় সরকারের বিভিন্ন প্রকল্পের বিষয়গুলি সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়ার জন্য দলের কর্মী-সমর্থকদের পরামর্শ দেন তিনি।

[‘ওরা একজন বিধায়ককে কিনলে আমরা ১০ জনকে কিনব’, হুমকি কংগ্রেস নেতার]

বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের অভিযোগ, কেন্দ্রীয় সরকারের আয়ুষ্মান প্রকল্পের কার্ড নিয়ে নিচ্ছে তৃণমূল। বিভিন্ন ইস্যুতে শাসকদলের বিরুদ্ধে তোপ দাগেন দলের কেন্দ্রীয় সম্পাদক রাহুল সিনহা। এদিন সভায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সঞ্জয় সিং, সুরজিৎ সাহা, উমেশ রাই প্রমুখ বিজেপি নেতারা। এদিকে, গণতন্ত্র বাঁচাও সভা করতে মঙ্গলবার কাঁথিতে পা রাখছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ। ওইদিনই আরামবাগে একটি সভা করবেন ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব। মালদহে সভা করার পর অসুস্থ অমিত শাহ ওইদিনই দিল্লি ফিরে গিয়েছিলেন। কাঁথিতে তাঁর দ্বিতীয় সভা। এই সভা থেকে শাহ তাঁর আক্রমণের ধার আরও কতটা বাড়ান, সেদিকে তাকিয়ে রাজনৈতিক মহল।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে