BREAKING NEWS

১৯  আষাঢ়  ১৪২৯  সোমবার ৪ জুলাই ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

হাই কোর্টের নির্দেশ মেনে শিশুবান্ধব ধাঁচে সেজে উঠছে বর্ধমান পকসো আদালত

Published by: Tanujit Das |    Posted: July 29, 2018 2:01 pm|    Updated: July 29, 2018 2:01 pm

The Bardwan POKSO court is forming in a child-friendly form in order of Culcutta High Court

ছবি: মুকলেসুর রহমান

সৌরভ মাঝি, বর্ধমান: নির্যাতিতাদের বসার পৃথক ঘরে রাখতে হবে ছোটাভিম-মাইটি রাজুদের মত কার্টুন চরিত্রর ছবি। পকসো আদালত কক্ষকে সাজিয়ে তুলতে হবে বাচ্চাদের উপযোগী করে। শৌচাগারও যাতে শিশুদের উপযোগী হয় তার ব্যবস্থা করতে হবে। পরিকাঠামো ও অন্যান্য সুযোগসুবিধা দিয়ে নবরূপে হবে বিশেষ পকসো আদালত। পরিকাঠামোগত সুযোগসুবিধাও বাড়বে। পাশাপাশি নির্যাতিতারা যাতে স্বাচ্ছন্দ্য অনুভব করেন তারও ব্যবস্থা রাখা হবে পকসো আদালতে। শনিবার পরিদর্শনে এসে বর্ধমানে পকসো আদালতের পরিকাঠামোর উপর বিশেষ গুরুত্ব দিলেন হাই কোর্টের দুই বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় ও সব্যসাচী ভট্টাচার্য।

[শ্রাবণ মাসে পাতাল ফুঁড়ে ‘দেবতার জন্ম’! কুলটিতে চাঞ্চল্য]

পরিদর্শনের সময় পূর্ত দপ্তরের বাস্তুকারদের পকসো আদালতের কক্ষ, শৌচাগার বাচ্চাদের উপযোগী করে তোলার পরামর্শ দিয়েছেন বিচারপতি সব্যসাচী ভট্টাচার্য। এছাড়া পকসো আদালতের কীভাবে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে চালানো যাবে সেই ব্যাপারেও জেলা জজ কেশান ডোমা ভুটিয়ার কাছে বিস্তারিত খোঁজ নিয়েছেন হাই কোর্টের দুই বিচারপতি।পকসো আদালতের পাশাপাশি, বর্ধমান আদালত চত্বরের পরিকাঠামোগত উন্নতিকরণের কাজ কীভাবে হচ্ছে সেই ব্যাপারেও খোঁজখবর নিয়েছেন তাঁরা। এদিন আদালত চত্বর ঘুরে দেখার সময় বিচারপতিরা সংলগ্ন শিমূলপুকুরের দক্ষিণ দিকে অরক্ষিত জায়গা নিয়ে জেলাশাসক ও পুলিশ সুপারকে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানা গিয়েছে। আদালত চত্বরে  আইনজীবীদের বসার ঘর তৈরি নিয়ে সম্প্রতি বিতর্ক দেখা দেয়। সেই সমস্যারও দ্রুত নিরসন করা হবে বলে বিচারপতিরা আশ্বস্ত করেছেন বলে দাবি বর্ধমান বার অ্যাসোসিয়েশনের।

[ছাগল খেয়ে নেওয়ায় অজগর সাপকে পিটিয়ে মারার চেষ্টা গ্রামবাসীদের]

এদিন বিচারপতিদের পরিদর্শন চলাকালীন পুরসভার স্থানীয় কাউন্সিলর তথা পুরসভার চেয়ারম্যান ইন কাউন্সিল শিখা দত্ত (সেনগুপ্ত) অনুগামীদের নিয়ে আদালত চত্বরে হাজির হন। তিনি বলেন, আইনজীবীরা আইনের রক্ষক। আর তাঁরাই আইনভঙ্গ করে বেআইনিভাবে আদালত চত্বরে নির্মাণ কাজ চালাচ্ছেন। যদিও বিচারপতিরা বিক্ষোভকারীদের আমল দেননি বলে দাবি বার অ্যাসোসিয়েশনের। এমনকী স্মারকলিপি দিতে গেলে বিচারপতিরা তা গ্রহণও করেননি বলে দাবি। পরিদর্শনের সময় বিতর্কিত নির্মাণ কাজের জায়গাটিও ঘুরে দেখেন বিচারপতিরা।এদিন জেলা জজের চেম্বারে কয়েকদফা বৈঠকও করেন বিচারপতিরা।আদালত চত্বরে আইনজীবীদের ও বিচারপ্রার্থীদের বসার জায়গা না থাকার বিষয়টি। বসার ঘর তৈরি করা নিয়ে যে জটিলতা তৈরি হয়েছে তার দূর করার আবেদনও করা হয় বারের তরফে। বারের দাবি, বিচারপতিরা আশ্বাস দিয়েছেন জেলাশাসক ও বিচার সচিবের সঙ্গে আলোচনা করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এদিন বর্ধমানে পরিদর্শন সেরে দুর্গাপুরে গিয়েছেন বিচারপতিরা। সেখানে রাত্রিবাস করবেন। রবিবার দুর্গাপুরে নতুন আদালত ভবনের শিলান্যাস অনুষ্ঠানে হাই কোর্টের প্রধান বিচারপতি জ্যোতির্ময় ভট্টাচার্যর সঙ্গে তাঁরাও উপস্থিত থাকবেন বলে জানা গিয়েছে।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে