BREAKING NEWS

২৮ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৭ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

‘আমাদের খারাপ করলে আপনাদের কপালে সবচেয়ে বেশি কষ্ট’, কনভয়ে হামলায় কড়া বার্তা দিলীপের

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: October 10, 2020 8:16 pm|    Updated: October 10, 2020 8:19 pm

An Images

সৌরভ মাজি, বর্ধমান: নবান্ন অভিযানে পুলিশের বাধার পর বর্ধমানের জামালপুরে বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের (Dilip Ghosh) কনভয়ে হামলার অভিযোগ। শনিবার বিকেলে এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে পূর্ব বর্ধমানের জামালপুরে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায়। দিলীপ ঘোষকে কালো পতাকা দেখানোর পাশাপাশি তৃণমূল কর্মী, সমর্থকদের বিরুদ্ধে তাঁর কনভয়ে হামলা চালানোর অভিযোগ তোলে বিজেপি। এ নিয়ে তৃণমূল ও বিজেপি কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ বেঁধে যায়। জামালপুর থানার পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

শনিবার জামালপুরে সাহাপুরে কৃষি আইনের সমর্থনে আয়োজিত জনসভায় যোগ দিতে যাচ্ছিলেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি। সভাস্থল থেকে কিছুটা দূরে রাস্তায় তাঁর উপর হামলা হয় বলে অভিযোগ। পরে সভায় দিলীপবাবু হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, ‘‘আসার সময় এইভাবে আক্রমণের সম্মুখীন হতে হবে, ইট-পাথর খেতে হবে, ভাবিনি। কালো পতাকা নিয়ে, তৃণমূলের পতাকা নিয়ে আমাদের কর্মীদের উপর হামলা করা। এইভাবে আক্রমণ করে বিজেপিকে কেউ আটকাতে পারবে না।’’

[আরও পড়ুন: ভোলবদল! ‘অপদার্থ’ বলার ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই আশিস বন্দ্যোপাধ্যায়কে প্রার্থী ঘোষণা অনুব্রতর]

সভায় বিজেপি সাংসদ এই নিয়ে পুলিশকেও একহাত নিয়েছেন। দিলীপ ঘোষ বলেন, “কলকাতায় নাবন্ন অভিযানে বিশাল সভা থেকে পুলিশ, তৃণমূল ভয় পেয়েছে। আমাদের এখানে আমাদের চার-পাঁচজনকে আটক করেছে পুলিশ। পুলিশের বন্ধুদের বলছি, আমরা খুব ভদ্রলোক। আমাদের খারাপ করবেন না। খারাপ করলে আপনাদের কপালে সব থেকে বেশি কষ্ট হবে।” এদিন দিলীপবাবুর কনভয় পেরিয়ে যাওয়ার পরেই উত্তেজনা ছড়ায় বিজেপি ও তৃণমূল কর্মীদের মধ্যে। দিলীপবাবুকে কালো পতাকা দেখানো নিয়ে বিজেপি সমর্থকরা প্রতিবাদ করতে গেলেই গোলমাল বাঁধে বলে অভিযোগ।

[আরও পড়ুন: মণীশ খুনে ‘মূল চক্রী’ তৃণমূল বিধায়ক নির্মল ঘোষ, বিস্ফোরক অভিযোগ অর্জুন সিংয়ের]

তৃণমূল অবশ্য দাবি করেছে এদিনের ঘটনা জনরোষের বহিঃপ্রকাশ। তৃণমূলের রাজ্যের অন্যতম মুখপাত্র দেবু টুডু বলেন, “বাঙালি বিদ্বেষী ও তাদের দালালদের বিরুদ্ধে বাংলার মানুষ সর্বত্রই প্রতিবাদ জানাচ্ছেন। বাংলাকে যারা কলুষিত করতে চাইছে, যারা বাংলার সংস্কৃতিকে নষ্ট করছে সেই বিজেপির বিরুদ্ধে সাধারণ মানুষ স্বতঃস্ফূর্তভাবে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন। তৃণমূলের কেউ এই কাজ করেনি। সাধারণ মানুষ করেছে। তৃণমূল সাধারণ মানুষকে আটকাতে যাবে না।”

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement