BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

শীতেই অধীরের গড় দখল, হুঙ্কার শুভেন্দুর

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: August 2, 2016 11:18 am|    Updated: September 10, 2020 1:47 pm

An Images

স্টাফ রিপোর্টার: প্রত্যাশামতোই মুর্শিদাবাদের আরও এক পুরসভা তৃণমূলের দখলে এল৷ এই নিয়ে তিন৷ সঙ্গে পুরুলিয়ার ঝালদা পুরসভা৷ টার্গেট মুর্শিদাবাদের বাকি আরও চার পুরসভা দখল৷ টার্গেট বস্তুত, কংগ্রেস শাসিত ওই জেলার বিরোধী দলের সব ক’টি পুরসভা, জেলা পরিষদের সব আসন৷

শীতের মধ্যেই অধীর চৌধুরির সেই গড় দখলের হুঙ্কার দিলেন শুভেন্দু অধিকারী৷ সোমবার দলের যুব সংগঠনের সর্বভারতীয় সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে সঙ্গে নিয়ে ডিসেম্বর মাসের মধ্যে মুর্শিদাবাদকে কংগ্রেস-শূন্য করার কথা ঘোষণা করলেন জেলা তৃণমূলের পর্যবেক্ষক রাজ্য মন্ত্রিসভার এই গুরুত্বপূর্ণ সদস্য৷ বললেন, “ডিসেম্বর মাসের মধ্যে মুর্শিদাবাদে কংগ্রেস বস্তুটা আর থাকবে না৷

চেয়ারম্যান শংকর মণ্ডল-সহ মুর্শিদাবাদের বাম পরিচালিত জিয়াগঞ্জ-আজিমগঞ্জ পুরসভার ১১ জন কাউন্সিলর যোগ দিয়েছেন তৃণমূলে৷ এখানে সিপিএমের ছিল ৫, ফরওয়ার্ড ব্লকের ২-সহ বাম সমর্থিত নির্দল ছিলেন ৬ জন ও কংগ্রেসের ছিল ৪ জন কাউন্সিলর৷ মোট আসন ১৭৷ ফরওয়ার্ড ব্লকের দুই কাউন্সিলর-সহ সিপিএমের ৩ জন ও নির্দল কাউন্সিলররা তৃণমূলে যোগ দিলেন৷ গোটা পুরসভা শাসক দলের দখলে এল৷ মুর্শিদাবাদ জেলা পরিষদের ফরাক্কার কংগ্রেস সদস্য মহাসেনা খাতুনও তৃণমূলে যোগ দিলেন৷ এই নিয়ে ৭২ আসনের জেলা পরিষদের মধ্যে ১৮টির দখল নিল তৃণমূল৷ পাশাপাশি পুরুলিয়ার ঝালদা পুরসভার ৭ কাউন্সিলর তৃণমূলে যোগ দিলেন৷ এটাই সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশ৷ ১২ আসন বিশিষ্ট কংগ্রেস পরিচালিত এই পুরসভায় কংগ্রেসের দখলে ছিল ৭ জন৷ নির্দল ২ ও বামফ্রন্টের দখলে ছিল ৩টি আসন৷

এদিন দু’জন নির্দল-সহ, কংগ্রেসের চারজন ও ফরওয়ার্ড ব্লকের এক কাউন্সিলর যোগ দিলেন তৃণমূলে৷ মুর্শিদাবাদের সাতটি পুরসভার মধ্যে আগেই ধুলিয়ান পুরসভার দখল নিয়েছিল তৃণমূল৷ আগের সপ্তাহে দখলে এসেছে জঙ্গিপুর পুরসভা৷ এদিন জিয়াগঞ্জ-আজিমগঞ্জ পুরসভা দখলে এল৷

জেলার পর্যবেক্ষক শুভেন্দু অধিকারীর ব্যাখ্যা, ২০১৪-র লোকসভা ভোটে ওই জেলায় ১৮ শতাংশ জনমত পেয়েছে তৃণমূল৷ সম্প্রতি বিধানসভা নির্বাচনে সেই শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩১.৯ শতাংশে৷ গোটা বাংলায় এবার ৪৬ শতাংশ ভোট পেয়েছে দল৷ আগামিদিনে শুধু মুর্শিদাবাদই সেই শতাংশের ভোট এনে দেবে দলকে৷ দুই নেতারই অভিযোগ, জোট করে মানুষকে বোকা বানানো হচ্ছিল৷ উন্নয়নের নিরিখে এবার মানুষ যোগ্যতমকে বেছে নেবে৷

প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরির অভিযোগ, লোভ দেখিয়ে কংগ্রেসকে ভাঙাচ্ছে তৃণমূল৷ শুভেন্দুর জবাব, “এসব হতাশার বহিঃপ্রকাশ৷ অধীরবাবু মাঝেমাঝে কাউকে তৃণমূল সাজিয়ে তাঁর দলে যোগ দেওয়ান৷ সূর্যকান্ত মিশ্র আর অধীরবাবুরা ভেবেছিলেন আড়াই বছর ভাগাভাগি করে মুখ্যমন্ত্রিত্ব করবেন৷ তাঁদের স্বপ্নের বেলুন ছেঁদা হয়ে গিয়েছে৷”

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement