BREAKING NEWS

২৯ শ্রাবণ  ১৪২৭  শনিবার ১৫ আগস্ট ২০২০ 

Advertisement

উত্তরবঙ্গ ও সিকিমে ধস, আটকে পড়েছে বহু পর্যটক

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: October 13, 2016 7:09 pm|    Updated: October 13, 2016 7:14 pm

An Images

নিজস্ব সংবাদদাতা, শিলিগুড়ি: টানা বৃষ্টিতে দৃশ্যমানতা কমে যাওয়ায় বাগডোগরা বিমানবন্দরে বুধবার একাধিক বিমান বাতিল হয়েছে৷ আগেই ধস নামতে পারে এমন অনুমান ছিলই তাই সতর্কতাও জারি হয়েছিল৷ ফলে পাহাড়ে ধস নামায় বড় ক্ষতি হয়নি৷ কিন্তু উত্তরবঙ্গ ও সিকিমে আটকে পড়েছে বহু পর্যটক৷ এর মধ্যে আবহাওয়া খারাপ থাকায় বিমান বাতিল হওয়ায় চরম দুর্ভোগে যাত্রীরা৷ বুধবার সন্ধ্যায় সিকিমগামী কালিঝোরায় ১০ নম্বর জাতীয় সড়কে ধস নামে৷ ধসের জেরে বড় গাড়ি চলাচলও বন্ধ হয়ে যায়৷ যাত্রীবাহী বহু গাড়ি আটকা পরে ধসে৷

উত্তর পশ্চিম ভারত থেকে বর্ষার বিদায় নেওয়া শুরু হয়েছে৷ এরই মধ্যে ঘূর্ণাবর্ত এবং নিম্নচাপ অক্ষরেখার জেরে উত্তরবঙ্গের পাহাড়-সমতলের বিস্তীর্ণ এলাকায় টানা বৃষ্টিতে জনজীবন বিপর্যস্ত৷ পাহাড়ে ধসের সঙ্গে অস্থায়ী সেতু ভেসে যাওয়া থেকে শুরু করে সমতলের তরাই-ডুয়ার্সের নদীগুলির ফের জল বাড়তে শুরু করে৷ টানা তিনদিন বৃষ্টিতে পাহাড়-ডুয়ার্সে বেড়াতে আসা পর্যটকরাও ঘরবন্দি৷ বুধবার দিনভর বৃষ্টি হয়েছে কোচবিহার থেকে আলিপুরদুয়ার, জলপাইগুড়ি, দার্জিলিং উত্তর দিনাজপুর জেলার বিস্তীর্ণ এলাকায়৷ টানা বৃষ্টিতে জল বেড়েছে ডুয়ার্সের লিস,ঘীস, মাল, তিস্তা, চেল এবং জলঢাকা নদীর৷ পুজোয় পরিবার নিয়ে পাহাড়ে বেড়াতে আসেন উত্তর চবিবশ পরগনার বাসিন্দা মহিরুদ্দিন মোল্লা৷ মঙ্গলবার দুপুরে বিন্দুর জলঢাকা নদীতে নামে মহিরুদ্দিন মোল্লার ১২ বছরের ছেলে আর্মান কুবের৷ এরপর স্রোতে ভেসে যায় সে৷ বুধবারও তার দেহ উদ্ধারে নদীতে তল্লাশি চালানো হয়৷

অন্যদিকে, গাড়িধুরার কাছে রক্তিখোলার জলোচ্ছ্বাসে অস্থায়ী সেতুর একাংশ ভেসে যাওয়ায় পানিঘাটা হয়ে ঘুরপথে চলছে শিলিগুড়ির সঙ্গে মিরিকের সড়ক যোগাযোগ৷ উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জনবসতি এলাকা জলমগ্ন হয়ে থাকে বাড়িতেই আটকে বাসিন্দারা৷ দার্জিলিংয়ের জেলাশাসক অনুরাগ শ্রীবাস্তব জানিয়েছেন, প্রবল বৃষ্টিতে দার্জিলিং, মিরিক-সহ বিভিন্ন এলাকা থেকে ধসের খবর মিলেছে৷ তবে কোনও হতাহতের খবর নেই৷ যদিও ধসের আশঙ্কায় সতর্ক রয়েছেন জেলার বিপর্যয় মোকাবিলা বিভাগের কর্মীরা৷ বৃহস্পতিবার বৃষ্টি কম থাকায় জাতীয় সড়কে মেরামতির কাজ শুরু হয়ে গিয়েছিল সকাল থেকেই৷ কিন্তু নিম্নচাপ এখনও স্বক্রিয় থাকায় আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, আগামী ২৪ ঘন্টায় ফের ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে উত্তরবঙ্গ, সিকিম ও অসমে৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement