BREAKING NEWS

১২  আষাঢ়  ১৪২৯  সোমবার ২৭ জুন ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

দুর্গাপুরে মিলল নিষিদ্ধ প্লাস্টিক বিক্রির দোকানের সন্ধান, বিক্রেতা আটক

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: June 1, 2018 7:49 pm|    Updated: June 1, 2018 7:49 pm

সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়, দুর্গাপুর: নিষিদ্ধ প্লাস্টিকের ক্যারিব্যাগের সন্ধানে বাজারে হানা দিয়ে ধরা পড়ল নিষিদ্ধ প্লাস্টিকের কারিগর৷ ৫০ মাইক্রনের নিচে থাকা ক্যারিব্যাগ বাজারে বিক্রি করার প্রতারককে ধরল প্রশাসন৷ দোকান সিল করে তার বিরু‌দ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন মহকুমা শাসক৷ নিষিদ্ধ কালো রঙের ক্যারিব্যাগ ব্যাবহার করার কারণে এক মাংসের দোকানও সিল করে প্রশাসন৷ শুক্রবার সকাল এগারোটা নাগাদ দুর্গাপুরের বেনাচিতি বাজারে নিষিদ্ধ ক্যারিব্যাগের সন্ধানে হানা দেয় মহকুমা প্রশাসন, দুর্গাপুর নগর নিগম, রাজ্য দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ, বণিকসভা ও পুলিশ৷

[ অলীক চক্রবর্তীর মুক্তির দাবিতে ফের অশান্ত ভাঙড় ]

বেনাচিতি বাজারের খুচরো ব্যবসায়ীদের কাছে তল্লাশি চালাতে গিয়েই ধরা পড়ে নিষিদ্ধ প্লাস্টিকের এই কারিগর৷ পরীক্ষা করে দেখা যায়, বেশ কিছু প্লাস্টিকের ক্যারিব্যাগ ৫০ মাইক্রনের অনেক কম হওয়া সত্ত্বেও তাতে ৫০ মাইক্রনের ছাপ রয়েছে৷ স্থানীয় দোকানদাররাই ঘোষ মার্কেটের এই দোকানটি দেখিয়ে দেয় হানাদারদের৷ দোকানে গিয়ে চক্ষু চড়ক গাছ পুলিশ ও প্রশাসনের৷ দেদার নিষিদ্ধ প্লাস্টিকের ক্যারিব্যাগ মজুত ছিল সেখানে৷ বেআইনি বিদ্যুৎ সংযোগই শুধু নয়, নিয়মমাফিক ফায়ারের লাইসেন্স ও ট্রেড লাইসেন্সও নেই এই দোকানের৷ দোকান মালিক চন্দ্রনাথ গড়াইকে পাকড়াও করে জেরা শুরু করে পুলিশ৷ বেআইনি বিদ্যুৎ সংযোগ কেটে দেওয়া হয়৷ প্রিণ্টিং মেশিন ও বেআইনি প্লাস্টিকের ক্যারিব্যাগের ভাণ্ডারও বাজেয়াপ্ত করে পুলিশ৷ এই দোকানেই থার্মোকলের সামগ্রীও নজরে পড়ে প্রশাসনের৷ তাও বাজেয়াপ্ত করা হয়৷

[ পর্যটক সেজে পাচারের চেষ্টা, ৩১ কেজি সোনা-সহ গ্রেপ্তার ৩ পাচারকারী ]

এদিন বেনাচিতির প্রচুর খুচরো দোকানে এই নিষিদ্ধ ক্যারিব্যাগ দেখা গিয়েছে৷ তল্লাশি চলার সময় একটি মাংসের দোকান নিষিদ্ধ কালো রঙের ক্যারিব্যাগ ব্যবহারের দায়ে সিল করে দেওয়া হয়৷ প্রায় ঘণ্টাখানেক এই অভিযান চলে৷ পরে দুর্গাপুরের মহকুমাশাসক শঙ্খ সাঁতরা জানান, “নিষিদ্ধ প্লাস্টিকের ক্যারিব্যাগকে ছাপ মেরে ব্যবহারযোগ্য করে তোলার একটি ছাপাখানার হদিশ মিলেছে৷ দোকানদারকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদও করা হচ্ছে৷ তার দোকান সিল করে দেওয়া হয়েছে৷” মহকুমা শাসক আরও বলেন, “বহু জায়গায় ক্রেতারাই বাধ্য করছে নিষিদ্ধ ক্যারিব্যাগ দিতে৷ এই ক্ষেত্রে ক্রেতাদের মধ্যে সচেতনতা না আসলে সমস্যা৷ পুরো প্রক্রিয়াটাই ভবিষ্যতে প্রশ্নের মুখে পড়তে পারে৷ তাই আগে ক্রেতাদের সচেতনতা জরুরি৷” আটক ব্যবসায়ী চন্দ্রনাথকে জেরা করে এই নিষিদ্ধ ক্যারিব্যাগ কোথায় কোথায় পাঠানো হত বা আর কার কাছে এই ক্যারিব্যাগ মজুত করা আছে তার হদিশ পেতে চাইছে পুলিশ৷ চন্দ্রনাথ গড়াই সম্পর্কে জানা গিয়েছে যে, মহকুমা শাসকের দপ্তরে ক্যারিব্যাগ নিষিদ্ধ করতে যে দফায় দফায় বৈঠক হয়েছিল তাতে নিয়ম করে উপস্থিত থাকত এই ব্যক্তি৷ এই বৈঠকগুলি থেকেই সে এই জাল ব্যাবসার ছক কষে বলে প্রশাসনের অনুমান৷

এই বিধি প্রয়োগের পর থেকেই অন্যান্য ব্যবসাদাররা যখন ৫০ মাইক্রনের নিচে থাকা ক্যারিব্যাগ নষ্ট করে দিচ্ছেন তখন সস্তায় সেই ক্যারিব্যাগ কিনে তাতে ৫০ মাইক্রনের ছাপ দিয়ে চড়া দরে সে বিক্রি করত বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে৷ এই অসাধু ব্যবসায়ীকে জরিমানাও করা হবে বলে জানা গিয়েছে৷ দুর্গাপুরের সব বাজারেই এই নিষিদ্ধ ক্যারিব্যাগের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছে মহকুমা প্রশাসন৷

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে