২২  আশ্বিন  ১৪২৯  শুক্রবার ৭ অক্টোবর ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

ঘুমের ওষুধ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা সিপিএম প্রার্থীর, চাঞ্চল্য রানিগঞ্জে

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: April 13, 2018 2:25 pm|    Updated: January 10, 2019 4:07 pm

West Bengal panchayat polls: CPM candidatea attempts suicide in Raniganj

চন্দ্রশেখর চট্টোপাধ্যায়, আসানসোল: আত্মহত্যার চেষ্টা করলেন সিপিএমের এক মহিলা প্রার্থী। বৃহস্পতিবার অতিরিক্ত ঘুমের খেয়ে আত্মঘাতী হওয়ার চেষ্টা করেন রানিগঞ্জের গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রার্থী সোমা বাউরি। ইঞ্জেকশনও নেন তিনি। রানিগঞ্জের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভরতি সোমাদেবী। এই ঘটনার জন্য তৃণমূলকে দুষেছেন সিপিএম। তাঁদের অভিযোগ, সোমা বাউরিকে মনোনয়ন প্রত্যাহারের জন্য চাপ দিচ্ছিলেন শাসকদলের কর্মী-সমর্থকরাই। শাসকদলের পালটা দাবি, পারিবারিক বিবাদে এই কাণ্ড ঘটিয়েছেন সিপিএম প্রার্থী। সোমা বাউরির পরিবারের তরফে অবশ্য এখনও পর্যন্ত কোনও অভিযোগ দায়ের করা হয়নি।

[এক আসনে একাধিক প্রার্থী! হুগলিতে দলীয় কোন্দলে বিপাকে তৃণমূল]

পঞ্চায়েতে মনোননয়ন পর্বে গোটা রাজ্যেই শাসকদলের বিরুদ্ধে বিরোধীদের বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠেছিল। মনোনয়ন পেশের সময়সীমা পেরিয়ে গিয়েছে। বিরোধীদের অভিযোগ, তাদের হয়ে যাঁরা মনোনয়ন পেশ করেছেন, তাঁদের এখন প্রার্থীপদ প্রত্যাহারের জন্য চাপ দিচ্ছেন শাসকদলের কর্মী-সমর্থকরা। আর এই সেই মানসিক চাপ সহ্য করতে না পেরেই মাত্রারিক্ত ঘুমের ওষুধ আত্মহত্যা চেষ্টা করেছেন পঞ্চায়েতে সিপিএম প্রার্থী সোমা বাউরি।  গতবারের পঞ্চায়েত ভোটে রানিগঞ্জের বল্লভপুরের একনম্বর সংসদ থেকে বিরোধী দলের প্রার্থী হিসেবেই নির্বাচিত হয়েছিলেন তিনি। এবার বল্লভপুর তিন নম্বর সংসদ থেকে সিপিএমের হয়ে মনোনয়ন জমা দিয়েছিলেন। পরিবারের লোকেরা জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার সকালে বাড়িতে অচেতন অবস্থায় পড়েছিলেন সোমা। পাশেই ছিল ঘুমের ওষুধের খালি পাতা ও একটি খালি সিরিঞ্জ। তড়িঘড়ি তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় হাসপাতালে। এখন রানিগঞ্জের একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ওই সিপিএম প্রার্থী। কিন্তু, কেন আত্মহত্যার  চেষ্টা করলেন? তা নিয়ে সোমাদেবীর পরিবারের অন্দরে মত মতভেদ স্পষ্ট। সোমা বাউরির দাদা পরিমল বাউরি জানিয়েছেন, বোনের প্রার্থী হওয়া নিয়ে পরিবারে অশান্তি চলছিল। প্রার্থীপদ প্রত্যাহারের জন্য সিপিএম ও তৃণমূল দুইপক্ষই। সোমার দিদি ও ভাই আবার অন্য কথা বলছেন। তাঁদের দাবি, তৃণমূল কোনও হুমকি দেয়নি। ওরা বোঝাতে এসেছিল ওদের প্রার্থী ওই আসনে জয় লাভ করলে কি কি সুযোগ সুবিধা দেওয়া হবে। বাড়িতে সিপিএম ও তৃণমূল কর্মীদের আনাগোনা বেড়েছিল। রাজনৈতিক বিবাদে জড়িয়ে পড়েছিলেন সোমা বাউরির পরিবারের লোকেরাও। এই অশান্তিতেই সে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন তিনি।

[বিক্ষুব্ধ সিপিএম কর্মীকে টিকিট দিয়েই টার্গেট হলেন শাসনের সইফার রহমান!]

এদিকে আবার এই ঘটনায় শাসকদলের বিরুদ্ধে পুলিশ ও নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ জানানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সিপিএমের স্থানীয় নেতৃত্ব। রানিগঞ্জের দলের বিধায়ক রুনু দত্তের দাবি, বল্লভপুর তিন নম্বর সংসদে জিততে, তৃণমূল প্রার্থীর পঞ্চায়েত প্রধান হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল। তাই বিরোধীদের  প্রার্থীপদ প্রত্যাহারের জন্য লাগামছাড়া চাপ দিচ্ছে শাসকদল। তিনি জানিয়েছেন, সোমা বাউরি সুস্থ হলেই কমিশন ও পুলিশে অভিযোগ জানাবে সিপিএম। অন্যদিকে রানিগঞ্জের তৃণমূল নেতা তথা প্রাক্তন জেলাপরিষদের সভাধিপতি বিশ্বনাথ বাউরি বলেন, ‘ওই মহিলাকে কেউ হুমকি দেয়নি। হয় ওঁনাকে প্রার্থী হওয়ার জন্য চাপ দিচ্ছিল সিপিএম নতুবা পরিবারে কোনও অশান্তি ছিল।’

[আদিবাসী ভোটারের মন পেতে ভরসা ভাষাতে, সাঁওতালিতে প্রচার তৃণমূলের]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে