BREAKING NEWS

২ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

‘করোনায় এগিয়ে বাংলা’, রাজ্যের ‘এগিয়ে বাংলা’ স্লোগান নিয়ে তীব্র কটাক্ষ দিলীপের

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: August 11, 2020 1:46 pm|    Updated: August 11, 2020 1:57 pm

An Images

সংগ্রাম সিংহরায়, শিলিগুড়ি: করোনা আবহে ভারচুয়াল মিটিং-মিছিল হয়েছে অনেক। একুশের আগে এবার মাঠে নেমে কাজ করার পালা। বুঝে নেওয়া দরকার জনতার মন। আর তা ভারচুয়ালি ঠিকমতো বোঝা সম্ভব নয়। তাই এবার ভোটারদের মন বুঝতে বঙ্গ বিজেপি শুরু করেছে নতুন কর্মসূচি – ‘আমার পরিবার বিজেপি পরিবার’, মিসড কলের মাধ্যমে সদস্য সংগ্রহ অভিযান। শক্ত ঘাঁটি উত্তরবঙ্গ থেকে তা শুরু করেছেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ (Dilip Ghosh)। আজ, শিলিগুড়ির দলীয় কার্যালয়ে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে স্বভাবসুলভ ভঙ্গিতেই ক্ষোভ উগরে দিলেন তিনি। রাজ্যের করোনা পরিস্থিতির সমালোচনা করতে গিয়ে বললেন, ”রাজ্য সরকারের ‘এগিয়ে বাংলা’ স্লোগান এখন ‘করোনায় এগিয়ে বাংলা’ বললে প্রযোজ্য হয়।”

আলিপুরদুয়ার, রায়গঞ্জ ঘুরে মঙ্গলবার ‘আমার পরিবার বিজেপি পরিবার’ – এই কর্মসূচিতে যোগ দিতে দিলীপ ঘোষ পৌঁছন শিলিগুড়িতে। হিলকার্ট রোডের দলীয় কার্যালয়ে কর্মী, সমর্থকদের সঙ্গে দেখা করেন। এরপর সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে আক্রমণ শানান। প্রথমেই সপ্তাহে দু’দিন করে সম্পূর্ণ লকডাউনের যথার্থতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন তিনি। বলেন, ”এই লকডাউন (Lockdown) যদি বিজ্ঞানসম্মত হয়, তাহলে সংক্রমণ কেন হু হু করে বেড়ে চলেছে? বেছে বেছে ২ দিন লকডাউনের অর্থ কী? যদি সত্যিই সংক্রমণ রুখতে হয়, তাহলে ইদ- স্বাধীনতা দিবস কিছুই দেখবেন না, যে কোনও দিন লকডাউন করুন। তা নয়, এসব দিন ছাড় দেবেন আর রাম মন্দিরের ভূমিপুজোর দিন লকডাউন ডাকবেন, তা কী করে হয়?” তাঁর এই বক্তব্য থেকেই স্পষ্ট, ৫ আগস্ট রাজ্যে লকডাউন প্রত্যাহার করার জন্য বারবার বিজেপির তরফে আবেদন সত্ত্বেও তা যে করা হয়নি, সেই ক্ষত ভুলতে পারেননি দিলীপ ঘোষরা।

[আরও পড়ুন: কোভিড নেগেটিভ ভেবে দেহ ছাড়ল হাসপাতাল, দাহ করার পর মিলল পজিটিভ রিপোর্ট]

করোনা প্রতিরোধে কেন্দ্রীয় সুযোগসুবিধা এ রাজ্যে লাগু করা হচ্ছে না বলে অভিযোগ তুলেছেন দলের সভাপতি। বিশেষত আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্প এবং কিষাণ নিধি সম্মাননা প্রকল্প রাজ্যে চালু না করার পিছনে রাজনীতি আছে বলেই মনে করেন তিনি। তাঁর মত, কেন্দ্রের সঙ্গে যথাযথ সমন্বয় রেখে কাজ করলে এ রাজ্যের করোনা পরিস্থিতি এতটা সঙ্গীন হত না। তিনদিনের উত্তরবঙ্গ সফর শেষে তিনি মঙ্গলবারই কলকাতায় ফিরছেন।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement