BREAKING NEWS

৬ মাঘ  ১৪২৮  বৃহস্পতিবার ২০ জানুয়ারি ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

‘আফস্পা’-র প্রতি অনাস্থা

Published by: Monishankar Choudhury |    Posted: December 7, 2021 3:57 pm|    Updated: December 7, 2021 4:02 pm

Here is why public opinion against AFSPA growing | Sangbad Pratidin

মিনু মাসানি বিশ্বাস করতেন: গেরিলা বাহিনী শুধুমাত্র অনুকূল রাজনৈতিক আবহাওয়ায় কাজ করতে পারে। যতক্ষণ গ্রামের লোকেরা খাদ্য সরবরাহ করে এবং গেরিলাদের আশ্রয় দেয়, ততক্ষণ তাদের সঙ্গে লড়াই করা অত্যন্ত কঠিন। জোর করে জাতিসত্তা চাপিয়ে না দিয়ে গ্রামবাসীর মন জয় করা জরুরি। লিখছেন সুতীর্থ চক্রবর্তী

২০০২। সেনাবাহিনীর বিশেষ ক্ষমতা আইন ‘আফস্পা’ তোলার দাবিতে তখন মণিপুরে ইরম শর্মিলা চানু-র অনশন শুরু হয়ে গিয়েছে। নাগা জঙ্গিগোষ্ঠী ‘এনএসসিএন’-এর সঙ্গে সেনার শান্তিচুক্তি কখনও আছে, কখনও নেই। এইরকম এক পরিস্থিতিতে মণিপুরের প্রাক্তন মুখ‌্যমন্ত্রী রিশাং কেইশিংয়ের সঙ্গে তাঁর জন্মভূমি উখরুল-সহ নাগাজঙ্গি অধ্যুষিত পাহাড়ি এলাকার কয়েকটি গ্রামে ঘোরার সুযোগ হয়েছিল। ইম্ফল ছাড়ার পরই কার্যত দীর্ঘ পাহাড়ি রাস্তা ব‌্যারিকেড করে রেখেছিল সেনাবাহিনী। তা সত্ত্বেও নিশ্চিত হওয়া যাচ্ছিল না বনজঙ্গলের মধ‌্য দিয়ে অজগর সাপের মতো চলে যাওয়া মেটাল রোডের কোথায় ল‌্যান্ডমাইন লুকানো রয়েছে। কেইশিংয়ের লম্বা কনভয়ের গোড়ায় ছিল সেনার ‘মাইন সুইপার’।

কেইশিংয়ের গাড়িতে বসে দেখতে পাচ্ছিলাম কনভয়ে থাকা সেনা জওয়ানদের কয়েকশো তটস্থ চোখ ঘুরপাক খাচ্ছে দু’ধারের জঙ্গলের উপর। কেইশিং ভাঙা ভাঙা বাংলায় বলছিলেন, ‘যে কোনও সময় গুলি ছুটে আসতে পারে। তবে আমি যাচ্ছি গ্রামগুলোতে আগাম সেই খবর আছে। আশা করি তেমন কিছু ঘটবে না।’ অশীতিপর ‘তাংখুল নাগা’, একদা ‘নাগা জাতীয়তাবাদ’-এর মুখ কেইশিংকে নিয়ে যে জঙ্গিদের তখন মাথাব‌্যথা নেই, সেটা তাঁর সঙ্গে ওসব গ্রামে গিয়ে টের পেয়েছিলাম। যদিও বছর চারেক আগে মৃত্যুর পর কেইশিংয়ের দেহ নাগা গ্রামে সমাধিস্থ করার অনুমতি দেয়নি জঙ্গি নেতারা। সেটা অন্য প্রসঙ্গ।

[আরও পড়ুন: কৃষি আইন প্রত্যাহার নির্বাচনী চাল, না কি বোধোদয়?]

কেইশিংয়ের গাড়িতে সওয়ার হয়েছিলাম বলে মায়ানমার সীমানা-ঘেঁষা ওই সমস্ত নাগা গ্রামে ঘোরার সৌভাগ‌্য হয়েছিল। সাধারণভাবে ওই রাস্তায় স্থানীয় ছাড়া কাউকে যেতে সেনাও অনুমতি দেয় না। কারণ, জীবিত ফিরে আসার কোনও গ্যারান্টি নেই। নাগা গ্রামে পৌঁছেও বুঝেছিলাম, জঙ্গি আতঙ্কটা কত প্রবল। বছরের পর বছর ‘আফস্পা’ লাগু করেও যে কাজের কাজ হয়নি, সেই উপলব্ধি একনিষ্ঠ ‘গান্ধী অনুগামী’ প্রবীণ কেইশিংকেও স্বীকার করতে দেখেছিলাম। কেইশিংয়ের ভোট প্রচারে বস্তুত ওটাই ছিল তুরুপের তাস। বলা ভাল, ‘এন্ট্রি পাস’। জিতলে ‘আফস্পা’ তোলার জন্য লড়বেন- এই প্রতিশ্রুতির শর্তেই যেন শুধুমাত্র তাঁর প্রচারের অনুমতি।

মন জেলার সাম্প্রতিক ঘটনাটির পর ফের ‘আফস্পা’ খারিজের দাবি জোরদার হয়েছে। সংসদে ও সংসদের বাইরে একাধিক রাজনৈতিক দল ‘আফস্পা’ প্রত‌্যাহারের দাবিতে বিবৃতি দিতে শুরু করেছে। ইরম শর্মিলা চানুর ১৬ বছরের অনশনে ইম্ফল-সহ মণিপুরের একাংশে ‘আফস্পা’ প্রত‌্যাহার হয়েছে। কিন্তু ‘বৃহত্তর নাগালিম’ বলে বিস্তৃত অঞ্চলে ‘আফস্পা’ এখনও বহাল। অসম, অরুণাচল ও মণিপুরের নাগা অধ্যুষিত জেলা এবং সমগ্র নাগাল‌্যান্ড রাজ্য নিয়ে ‘নাগালিম’ নামে নাগা জঙ্গিদের আলাদা রাষ্ট্র গঠনের দাবি। এই অঞ্চল স্বাধীনতার পর থেকে এখনও সন্ত্রাস কবলিত।

জওহরলাল নেহরু-র আমলে উত্তর-পূর্ব ভারতের এই অঞ্চলের জন‌্য ‘আফস্পা’ (১৯৫৮) আইনটি তৈরির সময় সংসদে যে বিতর্ক হয়েছিল, সেখানে বেশ কয়েকজন সাংসদের বক্তব‌্য এখনও বেশ প্রাসঙ্গিক লাগে। বিশিষ্ট স্বতন্ত্রবাদী নেতা ও তৎকালীন সাংসদ মিনু মাসানি সেই বিতর্কে অংশ নিয়ে নেহরুকে বলেছিলেন, ‘গেরিলা বাহিনী শুধুমাত্র অনুকূল রাজনৈতিক আবহাওয়ায় কাজ করতে পারে। যতক্ষণ গ্রামের লোকেরা খাদ্য সরবরাহ করে এবং গেরিলাদের আশ্রয় দেয়, ততক্ষণ তাদের সঙ্গে লড়াই করা অত্যন্ত কঠিন। ভিয়েত কং-এর সঙ্গে এমনই অভিজ্ঞতা হয়েছে, আজ দক্ষিণ ভিয়েতনামেও সেই অভিজ্ঞতা। তাই এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ যে, গ্রামের সাধারণ মানুষ, যারা এদিক-ওদিক নয়, তাদের মন জয় করা। জোর করে জাতিসত্তা চাপিয়ে দেওয়া যাবে না। আপনাকে তাদের হৃদয় ও মন জয় করতে হবে এবং নাগাল্যান্ডে যাঁরা আমাদের পক্ষে দাঁড়াচ্ছেন, তাঁরা আজ এটিই করছেন।’

ওই ১৯৫৮ সালেই সংসদে দাঁড়িয়ে মুম্বইয়ের সাংসদ ও বিশিষ্ট আইনজীবী নওশির ভারুচা ‘অাফস্পা’ নিয়ে যা বলেছিলেন, তা এখন দাঁড়িয়ে আরও প্রাসঙ্গিক লাগে। তিনি বলেছিলেন, ‘আমি এটাও জানতে চাই যে, এই বিলের অন্তর্নিহিত গুলি করার নীতি নাগাদের উপর এবং সেনা-কর্মীদের উপর মানসিক প্রভাব ফেলবে কি না! আমি একমুহূর্তের জন্যও অভিযোগ করছি না যে, আমাদের সেনা ও প্রতিরক্ষা বাহিনী এতটা নির্লজ্জ যে, নিরীহদের উপর গুলি চালাবে। কিন্তু মানুষের স্বভাব যা তা-ই। সেনাবাহিনীকে, তারা যেখানেই থাকুক না কেন, খুব কঠিন পরিস্থিতিতে কাজ করতে হতে পারে। অতিরিক্ত পরিশ্রমের জন্য সেনা জওয়ানদের উপর মানসিক চাপ তৈরি হতে পারে। তাদের মধ্যে এই মনস্তত্ত্ব কাজ করতেই পারে যে, আমরা গুলি করতে পারি, কেউ আমাদের প্রশ্ন করতে পারে না। আমার প্রশ্ন, ভারতের অংশ হিসাবে আপনি যাদের অন্তর্ভুক্ত এবং একীভূত করার চেষ্টা করছেন, তাদের মন জয় করার জন্য এটি কী ধরনের নীতি?’

মিনু মাসানি বা নওশির ভারুচা ৬৩ বছর আগে সংসদে দঁাড়িয়ে নাগাল‌্যান্ডের পরিস্থিতি সম্পর্কে যে মন্তব‌্য করেছিলেন, তা কি আজও বাস্তব নয়? এনএসসিএন-কে দেশের সব জঙ্গি সংগঠনের প্রধান উৎস ধরা হয়। স্বাধীনতার পর থেকে আমরা শুধুই দেখে আসছি নাগা জঙ্গিদের সঙ্গে কখনও সরকারের যুদ্ধবিরতি চুক্তি হয়, আবার কখনও যুদ্ধ শুরু হয়। বছরের পর বছর শুধুই এই ঘটনা ঘটে চলেছে। ‘আফস্পা’ সেনাবাহিনীকে ক্ষমতাশালী করে, সে-কথা ঠিক। কিন্তু দেশের যে-অঞ্চলের জন‌্য সরকার এই আইনকে নতুনভাবে সাজিয়েছিল, সেই অঞ্চলের স্বাধীনতার পর প্রয়োজন ছিল নাকি সমস‌্যার রাজনৈতিক সমাধান? ‘আফস্পা’ আইন সমস‌্যাকে শুধুমাত্র সামরিক দৃষ্টিতেই দেখতে শেখায়। লাগাতার শান্তি চুক্তি আর যুদ্ধবিরতি দিয়েও এই সমস‌্যার সমাধান হবে না। মন-এর ঘটনা মনে হয় এই প্রসঙ্গকেই ফের সামনে আনল।

[আরও পড়ুন: সুবিধা না স্বার্থপূরণ, সিবিআই-ইডি অধিকর্তার পদের মেয়াদ বৃদ্ধি কীসের ইঙ্গিত?]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে