০৯  আষাঢ়  ১৪২৯  রবিবার ২৬ জুন ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

অনুরাগহীন বোর্ড কি তবে এবার দেখবে সৌরভের ‘দাদাগিরি’?

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: January 2, 2017 3:10 pm|    Updated: January 2, 2017 3:11 pm

The war between BCCI and Lodha Committee and its consequences

আবেগ বলছে বোর্ডের মাথায় বসুন সিএবি সভাপতি৷ বাস্তবের পথ কতটা মসৃণ? সোশ্যাল ট্রেন্ডিং থেকে আবেগ ছেঁকে বাস্তবের সারবত্তাটুকু তুলে ধরলেন সুলয়া সিংহ 

বিসিসিআই-এর ব্যাটন এবার কার হাতে? সুপ্রিম কোর্টের ঐতিহাসিক রায়ের পরই সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে চলছে এই আলোচনাই৷ আর ভারতীয় ক্রিকেটপ্রেমীদের মুখ থেকে প্রথম যে নামটি বেরিয়ে আসছে, তা হল সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়৷ প্রাক্তন ভারতীয় অধিনায়ক কি ভারতীয় বোর্ডের সর্বোচ্চ পদে বসতে পারবেন? এ নিয়ে অনলাইন ভোটাভুটিও শুরু হয়ে গিয়েছে৷ তবে বাংলা ক্রিকেট সংস্থার সভাপতি তথা বিসিসিআই-এর টেকনিক্যাল কমিটির সদস্য সৌরভের প্রেসিডেন্ট হওয়ার পথে একাধিক আইনি জটিলতা রয়েছে৷

জগমোহন ডালমিয়ায় প্রয়াণের পর ভারতীয় ক্রিকেটের সর্বোচ্চ দায়িত্ব নিয়েছিলেন শশাঙ্ক মনোহর৷ তবে তিনি আইসিসি’র পথে হাঁটা দিলে বিসিসিআই-এ ফের শূন্যপদ তৈরি হয়৷ তখনও উঠে এসেছিল সৌরভের নাম৷ সেবারও আইনি সমস্যার জন্যই সভাপতির আসনে বসতে পারেননি তিনি৷ মনোহরের উত্তরসূরি হিসেবে বেছে নেওয়া হয়েছিল অনুরাগকে৷ শীর্ষ আদালতের ঘোষণার পরই ভক্তরা ফের সৌরভকে নিয়ে স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছেন৷ তবে আপাতত আদালত জানিয়ে দিয়েছে, বোর্ডের প্রবীণতম সহ-সভাপতি প্রেসিডেন্টের পদ সামলাবেন৷ সচিব পদে বহাল করা হল বর্তমান যুগ্ম-সচিবকে৷ পাশাপাশি বোর্ডের অন্তর্ভুক্ত সব রাজ্য সংস্থাকে লোধা কমিটির সুপারিশ পালন করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে৷ আগামী ১৯ জানুয়ারি বোর্ডের নিয়োগ সংক্রান্ত বিষয়ে নয়া অর্ডার পাস করবে আদালত৷

বেশ কয়েক মাস ধরে সহ্যের পারদটা ক্রমশ উর্ধ্বমুখী হচ্ছিল৷ আর পারদ চড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়ছিল উত্তাপ৷ অবশেষে ছাড়াল সহ্যের সীমা৷ তখনই বোমা ফাটল৷ অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাস এবং দম্ভকে সমূলে উপড়ে ফেলল দেশের সর্বোচ্চ আদালত৷ রীতিমতো অপমানজনকভাবে ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ড থেকে তাড়িয়ে দেওয়া হল অনুরাগ ঠাকুরকে৷ সভাপতি হিসেবে যোগ্যতা প্রমাণ করতে ব্যর্থ হলেন তিনি৷ কোনও স্বায়ত্তশাসিত সংস্থাও যে আইনের উর্ধ্বে নয়, সেটাই অনুরাগকে মনে করিয়ে দেওয়া হল৷ সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশকে প্রথম থেকেই গম্ভীরভাবে নেয়নি বিসিসিআই৷ দিনের পর দিন গড়িমসি করে গিয়েছেন বোর্ড কর্তারা৷ আদালতের নির্দেশ এক কান দিয়ে শুনে অন্য কান দিয়ে বের করে দিয়েছেন৷ কর্তারা ভেবেছিলেন, পুরোটা সামলে নেবেন৷ কিন্তু নতুন বছরের শুরুতে এমন একটা ঘোষণার সম্মুখীন হতে হবে, তা হয়তো স্বপ্নেও ভাবেননি অনুরাগ৷

ঘটনার সূত্রপাত ২০১৩ সালের আইপিএ-এ ম্যাচ ফিক্সিং কেলেঙ্কারি থেকে৷ তারপর থেকেই একের পর এক ইস্যুতে ধাক্কা খেয়েছে বিশ্বের ধনীতম ক্রিকেট বোর্ড৷ বহিষ্কৃত করা হয়েছিল তৎকালীন প্রেসিডেন্ট এন শ্রীনিবাসনকে৷ প্রশ্ন উঠেছিল বোর্ডের কাজকর্মের স্বচ্ছতা নিয়ে৷ সেই মর্মেই বোর্ডকে সুপারিশ দেওয়া জন্য গত বছর জানুয়ারিতে প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি আর এম লোধাকে দায়িত্ব দেয় সুপ্রিম কোর্ট৷ লোধা কমিটি শক্ত হাতেই নিজের দায়িত্ব পালন করেছিল৷ আর্থিক এবং প্রশাসনিক দিক থেকে বিসিসিআই-এর স্বচ্ছতা বজায় রাখতে বেশ কিছু পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল৷ গত জুলাইয়ে লোধা কমিটির সেই সুপারিশগুলি বোর্ডকে মেনে নেওয়ার নির্দেশ দেয় সুপ্রিম কোর্ট৷ কিন্তু শীর্ষ আদালতকেও মান্যি করার প্রয়োজন বোধ করেননি অনুরাগ অ্যান্ড কোম্পানি৷ এমনকী আদালতে দাঁড়িয়ে মিথ্যে বয়ানও দিয়েছিলেন বহিষ্কৃত সভাপতি৷ ফল যা হওয়ার তাই হল৷ বোর্ডের শীর্ষ পদ খোয়ালেন তিনি৷ ছেঁটে ফেলা হল সচিব অজয় শিরকেকেও৷ আদালতের এমন ঘোষণাকে অবশ্য সমর্থন জানাচ্ছে ক্রিকেটমহলের একটা বড় অংশ৷ প্রাক্তনদের মতে, এই রায়ের পর নিশ্চয়ই টনক নড়বে বিসিসিআই-এর৷

বোর্ড সভাপতি পদে সৌরভ বসতেই পারেন, সে যোগ্যতা তাঁর আছেও৷ সিএবি সভাপতি হিসেবে কর্মদক্ষতায় নিজেকে প্রমাণও করেছেন৷ আর ভারতীয় ক্রিকেটের নাড়ির স্পন্দন সৌরভ যেভাবে বোঝেন তা হয়তো কেউ বোঝে না৷ ক্রিকেটার থাকার দরুন মাঠের ভিতরে খেলোয়াড়দের মানসিকতা তাঁর জানা৷ অন্যদিকে দীর্ঘদিন অধিনায় থাকার সুবাদে প্রশাসনিক দিকটিও তাঁর নখদর্পনে৷ সিএবি সভাপতি হয়ে সে অভিজ্ঞতায় শান দিয়েছেন৷ বাংলার ক্রিকেটেও এসেছে একের পর এক নজরকাড়া বদল৷ ক্রিকেটার সৌরভের মতোই প্রশাসনিক সৌরভও এখন অনেকটাই তুখোড়৷ তাই বোর্ড সভাপতির পদে তাঁকে কল্পনা করা অমূলক কিছু নয়৷ এমনকী লোধা কমিটিরও পছন্দের পাত্র সৌরভ৷ তবে আদৌ স্বপ্ন পূরণ হবে কি না, তা সময়ই বলবে৷ সোশ্যাল মিডিয়ায় যদিও ক্রিকেটপ্রেমীদের আবেগ বাঁধ মানছে না৷ তাই বারবার উঠে আসছে সৌরভের নাম৷ ম্যাচ ফিক্সিং কেলেঙ্কারির পর একসময় আজহারউদ্দিন পরবর্তী ভারতীয় ক্রিকেটে নতুন অধ্যায়ের সূচনা হয়েছিল ক্রিকেটার-অধিনায়ক সৌরভের হাত ধরে৷ এবার প্রশাসনিক দিক থেকে নয়া সূর্যোদয়ও মহারাজকীয় মেজাজে হবে কিনা, তা সময়ের হাতেই৷ তবে সম্ভাবনা যে ক্রমশ উজ্জ্বল হচ্ছে, তা অস্বীকার করা যায় না৷

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে