BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

ভারতীয় সংবিধানকে অপমান করে বিপাকে, ড্যামেজ কন্ট্রোল করতে দেশভক্তির পোস্ট কঙ্গনার!

Published by: Sandipta Bhanja |    Posted: September 1, 2020 3:18 pm|    Updated: September 1, 2020 5:16 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ভারতীয় সংবিধানকে ‘জাতিবাদী’ বলে কটাক্ষের জের! টুইটারে ক্রমাগত ফলোয়ার কমে যাচ্ছে কঙ্গনা রানাউতের (Kangana Ranaut)। যা দেখে কপালে ভাঁজ পড়েছে তাঁর। অতঃপর অ্যাকাউন্টের ফলোয়ার বাড়াতে বর্তমানে ‘দেশভক্তি’, ‘প্রকৃত ভারত’ বিষয়ক মন্তব্য করে উঠে-পড়ে লেগেছেন মরিয়া কঙ্গনা।

সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর পর থেকেই একের পর এক বিস্ফোরক মন্তব্য করে প্রায় রোজই খবরের শিরোনামে থাকেন তিনি! সোশ্যাল মিডিয়াতেও ট্রেন্ডিং কঙ্গনা প্রসঙ্গ। বিগত আড়াই মাসে ইন্ডাস্ট্রির নেপোটিজম, ফেভারিটিজম, মাফিয়ারাজ, মাদকচক্র নিয়ে মন্তব্য করে নানা বিতর্কের জন্ম দিয়েছেন অভিনেত্রী। আর তা নিয়ে অনুরাগীদের আস্ফালন দেখে টুইটার অ্যাকাউন্টের নাম থেকে ‘টিম’ শব্দটি সরিয়ে ব্যক্তিগত প্রোফাইলে পরিণত করেছেন সেটাকে। তবে টুইটারে পা রেখেই সংবিধান নিয়ে একটি বেফাঁস মন্তব্য করে ফেলেছিলেন কঙ্গনা।

অভিনেত্রী লিখেছিলেন, “আধুনিক ভারতীয়রা জাতিপ্রথাকে অস্বীকার করেন। ছোট শহরের বাসিন্দারাও জানেন যে বর্তমানে এটি আর আইনত গ্রহণযোগ্য নয়। আর কিছু কিছু মানুষের কাছে এই জাতিপ্রথা আসলে অন্যকে দুঃখ দিয়ে আনন্দ পাওয়ার একটা ইন্ধন ছাড়া আর কিছুই নয়। উল্লেখ্য, আমাদের সংবিধানেই কিন্তু শুধু সংরক্ষণের কথা আছে। চলুন এটা নিয়ে আওয়াজ তোলা যাক।” ব্যস এই মন্তব্যের পরই ভিমসেনার তরফে দেশদ্রোহিতার মামলা দায়ের হয় কঙ্গনার নামে। আর সেই থেকেই কঙ্গনার টুইটারে ফলোয়ার কমতে থাকে। সেই ফারাক চোখে পড়ার মতো! উদ্বিগ্ন অভিনেত্রী টুইটারে পোস্ট করে কারণ জানতে চান যে, কেন ফলোয়ারের সংখ্যা কমছে? যার প্রেক্ষিতে অনেকেই কঙ্গনাকে পরামর্শ দিয়েছেন, “দেশপ্রেম নিয়ে পোস্ট করুন, দেখবেন আবার আপনার প্রোফাইলে ফলোয়ারের সংখ্যা হু-হু করে বাড়ছে।” সেই পোস্ট শেয়ার করেই কঙ্গনার মন্তব্য, “হ্যাঁ তাই তো দেখছি, দেশভক্তদের সব জায়গাতেই লড়াই করতে হয়!”

[আরও পড়ুন: সুশান্তের মৃত্যু নিয়ে ‘সার্কাস’ চলছে! বিস্ফোরক তাপসী পান্নু]

আর তাই এবার টুইটারে ফলোয়ারের সংখ্যা বাড়াতে মরিয়া কঙ্গনা টুইট করে জানিয়েছেন যে, তাঁর মা একসময়ে এক দলিত মেয়েকে দত্তক নিয়েছিলেন। যাঁকে নিজের দিদি রঙ্গোলির মতোই মেনে চলেন তিনি। কঙ্গনার কথায়, “যাঁরা সেদিন আমার জাতি সংরক্ষণ নিয়ে সমালোচনা করছিলেন, এটা জেনে রাখুন যে আমার মা একজন দলিত কন্যাকে দত্তক নিয়ে বিয়েও দিয়েছিলেন। ওঁর পরিবারের সঙ্গে আমাদের এখনও সুসম্পর্ক। এটাই আসলে আমার কাছে প্রকৃত ভারত।”

কঙ্গনা রানাউত বরাবরই স্পষ্টবাদী। সোজাসুজি কথা বলতেই পছন্দ করেন তিনি। দেশে জাতি সংরক্ষণ, শ্রেণিবৈষম্যের বিরোধিতা করে পোস্ট করেছিলেন। এবার দলিত কন্যাকে ‘দিদি’ বলে পরিচয় দিয়ে তাতেই সিলমোহর বসালেন অভিনেত্রী।

[আরও পড়ুন: ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে কাটাছেঁড়া! একাধিক সাংবাদিকের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের রিয়ার]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement