BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

আধাসেনাদের সাহায্যে কল্পতরু বি-টাউনের ‘খিলাড়ি’ বয়

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: January 21, 2018 7:31 am|    Updated: September 17, 2019 4:16 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: তিনি যে শুধুই ‘রিল’ লাইফ হিরো নন, বাস্তবের মাটিতে দাঁড়িয়ে সে কথা বারবার প্রমাণ করেছেন অক্ষয় কুমার। রুপোলি পর্দাতেও যেমন ভারতীয় জওয়ানদের বীরগাথা তুলে ধরেন, রিয়েল লাইফেও তেমন সেনার পরিবারের পাশে দাঁড়াতে দেখা যায় বলিউডের ‘খিলাড়ি’ কুমারকে। শনিবার ফের রাজধানীতে নজর কাড়লেন অক্ষয়।

[‘পদ্মাবত’ মুক্তি রুখতে বেপরোয়া কর্ণি সেনা, ভারত বনধের ডাক]

ভারতীয় সেনাদের কুর্নিশ জানিয়ে শনিবার মুক্তি পায় ‘ভারত কে বীর’ শীর্ষক সংগীত। দেশের প্রতি সেনাদের দায়বদ্ধতা ও আত্মত্যাগকে সম্মান ও শ্রদ্ধা জানানো হয়েছে কৈলাস খেরের এই গানের মাধ্যমে। গান মুক্তির অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী রাজনাথ সিং, তাঁর ডেপুটি কিরেণ রিজিজু ও হংসরাজ আহির। ছিলেন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল, স্বরাষ্ট্র সচিব রাজীব গৌবা এবং অবশ্যই অভিনেতা অক্ষয় কুমার। সেই অনুষ্ঠানেই অক্ষয়, কৈলাশ খের ও কর্পোরেট জগতের বিশিষ্টজন অংশ নেওয়ায় সীমান্তে শহিদ আধাসেনা জওয়ানদের পরিবারের সাহায্যের খাতে ১২.৯৩ কোটি টাকা জমা পড়ল।

[ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ড নমিনেশনে সবার আগে ‘তুমহারি সুলু’ ও ‘হিন্দি মিডিয়াম’]

কৈলাশ খের বলেন, “যাঁরা গান পছন্দ করেন, তাঁদের প্রত্যেকের কাছে অনুরোধ ‘ভারত কে বীর’ গানটি যেন ডাউনলোড করেন। ডাউনলোড থেকে যা অর্থ উঠে আসবে তার পুরোটাই সেনা খাতে জমা পড়বে।” রিজিজু বলেন, “এই বিশেষ দেশাত্মবোধক গানের জন্য আমরা কৈলাশ খেরকেই বেছে নিয়েছিলাম। তাঁকে গানের প্রস্তাব এক কথাতেই রাজি হয়ে যান। খুব তাড়াতাড়ি গানটি লিখে আমায় শুনিয়েছিলেন। দারুণ পছন্দ হয়ে যায় আমারও।”

কমব্যাট অপারেশনে যে আধাসেনারা শহিদ হয়েছিলেন, গত বছর এপ্রিলেই তাঁদের পরিবারকে অর্থ সাহায্যের জন্য বিশেষ ‘ভারত কে বীর’ উদ্যোগটি নিয়েছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। তারই অঙ্গ হিসেবে শনিবার মুক্তি পেল গানটি। রাজনাথ সিং বলেন, “দেশে শান্তি বজায় রাখতে সেনারা সর্বদা তৎপর। কিন্তু তাঁদের পরিবারের জন্য সেভাবে কিছু করা হয় না। সেনাদের আত্মত্যাগ অমূল্য। তাই তাঁদের পরিবারের পাশে দাঁড়ানোর সামান্য চেষ্টা করা হয়েছে। যদিও সেই আত্মবলিদানের কাছে কোনও কিছুই যথেষ্ট নয়। প্রত্যেক পরিবারের হাতে অন্তত এক কোটি টাকা তুলে দেওয়ার চেষ্টা করেছি আমরা।”

[OMG! এই কারণে বন্ধ হয়ে গেল ডায়ানা-সোনাক্ষীর শুটিং!]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement