৭ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

আগস্টেই খোলা হোক দেশের সিনেমা হলগুলি, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের কাছে আরজি তথ্য সম্প্রচার মন্ত্রকের

Published by: Sandipta Bhanja |    Posted: July 25, 2020 1:47 pm|    Updated: July 25, 2020 1:47 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: আগস্টেই খুলুক সিনেমা হলের দরজা, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের কাছে আবেদন জানাল তথ্য সম্প্রচার মন্ত্রক (Information and Broadcasting Ministry)। এই অতিমারী আবহে অন্যান্য ক্ষেত্রের মতো বিনোদন ইন্ডাস্ট্রিও যে বড়সড় আর্থিক ধাক্কার সম্মুখীন হয়েছে, তা বোধহয় আর আলাদা করে বলার অপেক্ষা রাখে না! শুটিংয়ের ছাড়পত্র মিললেও থিয়েটার, সিনেমা হলের দরজা এখনও বন্ধ! সেই তালা কবে খুলবে জানা নেই। কারণ দেশের বেশ কিছু রাজ্যে সংক্রমণের হার ক্রমাগত উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে। আর ঠিক সেই কারণেই ওটিটি প্ল্যাটফর্মে ভরসা রাখছেন প্রযোজক-পরিচালকেরা। কিন্তু এদিকে তো সিঁদুরে মেঘ দেখছেন থিয়েটার, মাল্টিপ্লেক্স, হল মালিকেরা। বিগত সাড়ে ৩ মাস ধরে বন্ধের জেরে যে লোকসান হয়েছে তাঁদের, তা সম্ভবত ক্যাশবাক্সের ভাঁড়ারে এবছরও কুলিয়ে উঠতে পারবেন না! এমতাবস্থায় সিনেমা হল মালিকদের কথা চিন্তা করেই তথ্য সম্প্রচার মন্ত্রকের তরফে আগস্ট মাসেই থিয়েটার, মাল্টিপ্লেক্স খোলার আবেদন জানানো হল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের (Union Home Ministry) কাছে।

এবার প্রশ্ন, তাহলে কি গোটা দেশজুড়ে আগামী আগস্টেই সিনেমা হলের দুয়ার খুলতে চলেছে দর্শকদের জন্য? সূত্রের খবর, শুক্রবার বিনোদন ইন্ডাস্ট্রির সিআইআই মিডিয়া কমিটির সঙ্গে এক গোপন বৈঠকে তথ্য সম্প্রচার মন্ত্রকের সচিব অমিত খারে এমন ইঙ্গিতই দিয়েছেন। এপ্রসঙ্গে খার সাফ জানিয়ে দিয়েছেন যে, চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের সচিব অজয় ভাল্লা। সংশ্লিষ্ট বৈঠকে অমিত খারে জানিয়েছেন যে, আগস্টের ১ থেকে ৩১ তারিখের মধ্যেই গোটা দেশে সিনেমা হল খোলার আলোচনা চলছে।

উল্লেখ্য, এই করোনা আবহে সিনেমা হল খুললেও দর্শকদের বসার আয়োজনের ক্ষেত্রে যে সামাজিক দূরত্বের কথা মাথায় রাখা হবে, সেকথাও জানিয়েছেন। প্রাথমিকভাবে তাঁরা চাইছেন, দুটো সারির মাঝখানে একটা সারি ফাঁকা রেখেই দর্শক বসানো হোক। শুধু তাই নয়, ২জন দর্শকের মাঝে অন্তত ২ মিটার দূরত্ব বজায় রেখে বসানোর কথাও বলা হয়েছে। তথ্য সম্প্রচার মন্ত্রকের এই পরিকল্পনামাফিক আদৌ তা সম্ভব কিনা, বিবেচনা করে দেখবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। তবে ইতিমধ্যেই কিন্তু, এই সিদ্ধান্ত থেকে পিছু হঠে গিয়েছেন বৈঠকে উপস্থিত সিনেমা হল কর্তৃপক্ষেরা। তাঁদের কথায়, এভাবে সামাজিক দূরত্বের নির্দেশিকা মানতে হলে একেকটা শো শুধুমাত্র ২৫ শতাংশ দর্শককে নিয়েই টানতে হবে। যাতে লাভ তো নেই-ই, বরং লোকসানই বেশি! কারণ, এক্ষেত্রে নিয়মিত থিয়েটার-হল রক্ষণাবেক্ষণের খরচও রয়েছে।

[আরও পড়ুন: সর্বকালের সব রেকর্ড ভাঙল সুশান্তের শেষ ছবি ‘দিল বেচারা’, IMDb’র রেটিংয়ে উচ্ছ্বসিত ভক্তরা]

প্রসঙ্গত, মার্চ মাসের মাঝামাঝি থেকে দেশের বিভিন্ন প্রান্তের সিনেমাহলগুলির দরজায় বন্ধ থাকায় সিনেমাওয়ালারা বড়সড় অর্থনৈতিক মন্দার সম্মুখীন হয়েছেন। ভারতের বিনোদন ইন্ডাস্ট্রির অর্থনৈতিক পরিকাঠামোতেও যে ধ্বস নামতে চলেছে, তা বোধহয় আর আলাদা করে বলার অপেক্ষা রাখে না! এক্ষেত্রে ছবির বাজেট কমবে। অভিনেতা-অভিনেত্রীদের পারিশ্রমিকেও কাটছাঁট হওয়ার সম্ভাবনা। এই কঠিন সময়ে ছবির নির্মাতারা ইতিমধ্যেই অনলাইন মুক্তির দিকে ঝুঁকেছেন, অচিরেই যার বড় মাশুল গুনতে হবে সিনেমাহল-মাল্টিপ্লেক্সগুলিকে। সেকথা ভেবেই চিন্তার ভাঁজ পড়েছে মাল্টিপ্লেক্স কর্তৃপক্ষের কপালে। ইতিমধ্যেই নেটফ্লিক্স (Netflix) ১৭টি সিনেমা মুক্তির কথা ঘোষণা করে ফেলেছে। অন্যদিকে পিছিয়ে নেই, হটস্টার, আমাজন প্রাইমও।

বিদ্যা বালানের ‘শকুন্তলা দেবী’ই হোক, অক্ষয় কুমারের ‘লক্ষ্মী বম্ব’ কিংবা জাহ্নবীর ‘গুঞ্জন সাক্সেনা’, এই প্রত্যেকটি ছবি ঘোষণার পর থেকেই সিনেপ্রেমীদের মনে আলাদা প্রত্যাশার সৃষ্টি করেছে। বিশেষ করে ‘লক্ষ্মী বম্ব’ ছবিতে অক্ষয় কুমারের লুক দেখেই দর্শকদের উত্তেজনার পারদ চড়েছিল। অন্যদিকে ‘ধড়ক’-এর পর শ্রীদেবীকন্যা জাহ্নবীকে একেবারে অন্য অবতারে দেখা যাবে মেঘবালিকা ‘গুঞ্জন সাক্সেনা’র বায়োপিকে। পর্দায় চ্যালেঞ্জিং এই চরিত্রের চিত্রায়ণ দেখতে অনেক আগে থেকেই মুখিয়ে রয়েছেন দর্শকরা। অতঃপর বহু প্রতীক্ষীত এই হিন্দি সিনেমাগুলি একের পর এক ওটিটি প্ল্যাটফর্মে রিলিজ করার কথা ঘোষণা করায় আনলক পরবর্তী সময়েও সিনেমা হল, মাল্টিপ্লেক্সগুলি যে জোর ধাক্কা খাবে, তা বলাই বাহুল্য। এক্ষেত্রে ভাগ্য নির্ধারণের জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের সিদ্ধান্তের দিকে তাকিয়ে সকলে।

[আরও পড়ুন: জলসা বন্ধ, বাংলার মাচাশিল্পীদের দুর্দশা নিয়ে বাবুল সুপ্রিয়র দ্বারস্থ ‘মীরাক্কেল’ খ্যাত রাজু মিদ্দা]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement