BREAKING NEWS

১৬ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৭  শনিবার ৩০ মে ২০২০ 

Advertisement

মোদির বায়োপিক ইস্যুতে প্রসূন যোশীর পদত্যাগ দাবি মহারাষ্ট্র নবনির্মাণ সেনার

Published by: Sandipta Bhanja |    Posted: April 7, 2019 7:31 pm|    Updated: April 7, 2019 7:31 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: জল্পনা আর বিতর্ক যেন কিছুতেই পিছু ছাড়ছে না মোদি বায়োপিকের। আগামিকাল ছবির মুক্তি নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে শুনানির আগেই এক নতুন বিতর্কের সৃষ্টি হল ‘পিএম নরেন্দ্র মোদি’কে  নিয়ে। একেই ছবির মুক্তি পিছিয়ে যাওয়া, একের পর এক জনস্বার্থ মামলা দায়েরে জেরবার ছবির নির্মাতারা, আর এবার শুনানির আগের দিনই এহেন বিতর্ক ফের উসকে দিল মোদি বায়োপিক ইস্যুকে। তবে, এবার খাঁড়ার কোপটা সরাসরি বায়োপিক নির্মাতাদের উপর নয়। বরং, সেন্সর বোর্ডের প্রধান প্রসূন যোশীর উপর। সেন্সর বোর্ডের নিজস্ব নির্দেশিকা লঙ্ঘন করে মোদি বায়োপিককে মুক্তির ছাড়পত্র দেওয়ার অভিযোগে আঙুল উঠেছে তাঁর দিকে। আর সেই অভিযোগে প্রসূন যোশীর পদত্যাগের দাবি তুলেছে মহারাষ্ট্র নবনির্মাণ সেনা।

[আরও পড়ুন:  বিজেপিকে বয়কটের আবেদনকারী শিল্পীদের নিয়ে মুখ খুললেন মোদি]

মোদি বায়োপিকের জন্য প্রসূন পক্ষপাত দোষে দুষ্ট, এমনটাই দাবি তুলেছে রাজ ঠাকরের দল। তাদের অভিযোগ, সেন্সর বোর্ডের প্রধান হওয়ার সুবাদে প্রসূন ‘পিএম নরেন্দ্র মোদি’র নির্মাতাদের অনেক ছাড় দিচ্ছেন। নাহলে, সেন্সর বোর্ডের ছাড়পত্র না মিললেও কীভাবে নির্মাতারা ঘোষণা করেন যে, এই ছবি লোকসভা ভোটের আগে এপ্রিলের ৫ তারিখেই মুক্তি পাবে! শুধু তাই নয়, ৫ তারিখে ছবির মুক্তি আটকানোর পর এবার তারা প্রথম দফা লোকসভা ভোটের পরের দিন অর্থাৎ ১২ এপ্রিলে ছবির মুক্তি পাওয়ার জন্য মুখিয়ে রয়েছে। সেন্সরের ছাড়পত্র সেভাবে এখনও তাদের হাতে না এলে কীভাবে তাঁরা এই পদক্ষেপ নেন! উপরন্তু ছবি মুক্তির নির্ধারিত দিনের কমপক্ষে ৫৮ দিন আগে সিএফবিসি’র কাছে ছবির চূড়ান্ত কপি জমা দেওয়া বাঞ্ছনীয়। কিন্তু, ‘পিএম নরেন্দ্র মোদি’ নির্মাতারা সেই নির্দেশ মোটেই মানেননি। তাহলে, কেন মোদি বায়োপিক নির্মাতাদের ক্ষেত্রে বিশেষ ছাড় দিচ্ছেন প্রসূন? নেপথ্যে কি অন্য কোনও কারণ রয়েছে? প্রশ্ন তুলেছেন মহারাষ্ট্র নবনির্মাণ সেনার নেতা আমে খোপকার।

এমনকী, সরকারকে তৈলমর্দন করার জন্য ‘পিএম নরেন্দ্র মোদি’কে মুক্তির ছাড়পত্র দেওয়ার সুযোগ করে দিয়ে সিএফবিসি’র নিজস্ব নির্দেশিকা লঙ্ঘন করছেন প্রসূন, অভিযোগ খোপকারের। আর যার জন্যই প্রসূনের অপসারণের দাবি তুলেছে তারা। তাদের মতে, এই কর্মকাণ্ডের জন্য প্রসূনের পদত্যাগ করা উচিত।

[আরও পড়ুন:  কবীর সুমনকে পালটা, ফেসবুকে খোলাখুলি ‘নিজেকেই’ চিঠি লিখলেন অনিকেত]

লোকসভা ভোটের প্রাক্কালে ছবির মুক্তি আটকানোর জন্য বিভিন্ন জায়গা থেকে জনস্বার্থ মামলা দায়ের হয়েছে। দেশের শীর্ষ আদালতের তরফে আপাতত মোদি বায়োপিক মুক্তি স্থগিত রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আগামী শুনানির দিন হিসেবে ধার্য হয়েছে ৮ এপ্রিল। যদিও, মহারাষ্ট্র নবনির্মাণ সেনার তরফে ওঠা এই অভিযোগে প্রসূন কোনও মন্তব্য করেননি এখনও পর্যন্ত।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement