০২ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৯  বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

‘পদ্মাবতী’র মুক্তি আটকাতে এবার মোদিকে চিঠি রাজ পরিবারের

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: November 12, 2017 4:42 am|    Updated: September 24, 2019 5:49 pm

Padmavati should not be released, Udaipur royal writes to PM Modi

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ভারতের রাজপুত ইতিহাসকে রক্ষা করতে ‘পদ্মাবতী’র মুক্তি আটকে দেওয়া হোক। এমন আরজি জানিয়ে এবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি পাঠাল উদয়পুরের রাজ পরিবার।

উদয়পুরের মেওয়ারের রাজ পরিবারের অন্যতম সদস্য এমকে বিশ্বরাজ সিং মোদির পাশাপাশি এই মর্মে চিঠি পাঠিয়েছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রক ও সিবিএফসি প্রধান প্রসূন যোশীকেও। তাঁর একটিই আবেদন, পরিচালক সঞ্জয় লীলা বনশালির ড্রিম প্রোজেক্ট ‘পদ্মাবতী’র মুক্তি আটকে দেওয়া হোক। তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি, মানব সম্পদ ও উন্নয়ন মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকর, রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী বসুন্ধরা রাজে এবং এসপি-র কাছেও একই অনুরোধ জানিয়েছে ওই রাজ পরিবার। চিঠিতে বিশ্বরাজ সিং উল্লেখ করেছেন, “দেশের নাগরিকদের স্বার্থে এ দেশের ইতিহাসকে সংরক্ষিত করা, তা যে কোনওভাবেই বিকৃত না হয়, সেসব দেখার দায়িত্ব তো সরকারেরই। তাই আমাদের অনুরোধ এ ছবি মুক্তিতে যেন অনুমতি না দেওয়া হয়।”

[রূপকথাকে নতুন করে পর্দায় জীবন্ত করে তুলল শাহিদ-দীপিকার রসায়ন]

কিছু দিন আগেই বনশালি একটি ভিডিওর মাধ্যমে জানান, তাঁর ছবিতে কোনওভাবে ইতিহাসকে বিকৃত করা হয়নি। রানি পদ্মাবতীর শৌর্যের কথাই তুলে ধরা হয়েছে। তবে তাতেও মন গলেনি রাজ পরিবারের। বিশ্বরাজ সিং বলছেন, “রানি পদ্মিনীর ইতিহাসের সঙ্গে মেওয়ারের পরিবারও যুক্ত। কিন্তু ছবির নির্মাতারা কেউই সে ইতিহাস জানতে আমাদের পরিবারের কাছে আসেনি। আর সেই কারণেই এর সত্যতা নিয়ে সন্দেহ দানা বাঁধছে। পাশাপাশি সুফি কবির কাল্পনিক কবিতা ‘পদ্মাবত’ও যে এই ছবির কাহিনিতে রং চড়িয়েছে, সে সন্দেহও মুছে ফেলা যাচ্ছে না।” ছবির ‘ঘুমর’ গানেও ইতিহাস বিকৃত হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি। বিশ্বরাজের সংযোজন আর একবার ছবিটি মুক্তি পেলে ইতিহাসকে রক্ষা করার আর কোনও উপায় থাকবে না। এর সঙ্গে রাজ পরিবারের আবেগ ও সাধারণ মানুষের বিশ্বাস জড়িয়ে আছে। সেই কারণেই প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ জানানো হল।

[কেন নিজের ধর্ম হারাচ্ছেন, নেটদুনিয়ায় প্রশ্নের মুখে রণবীর]

যত দিন যাচ্ছে পদ্মাবতীর মুক্তি নিয়ে অনিশ্চয়তা যেন ততই বাড়ছে। কর্ণি সেনা, রাজপুতানা সংগঠন, ব্রাহ্মণ মহাসভা, একাধিক বিজেপি বিধায়ক, সাংসদের হুমকির পালা অব্যাহত। সুপ্রিম কোর্ট কোনও পক্ষ নেয়নি। বল সেন্ট্রাল বোর্ড অফ ফিল্ম সার্টিফিকেশন (CBFC)-এর দিকে ঠেলে দিয়েছে। এদিকে হরিয়ানার স্বাস্থ্যমন্ত্রী অনিল ভিজও জানিয়েছেন, দেশ জুড়ে পদ্মাবতীর মুক্তির উপর নিষেধাজ্ঞা জারির দাবি নিয়ে সিবিএফসি-র দ্বারস্থ হবেন তিনি। ফলে আদৌ ছবি পয়লা ডিসেম্বর মুক্তি পাবে কি না, তা নিয়ে সংশয় রয়েই গেল। ছবির মুক্তির ব্যাপারে অবশ্য সেন্সর বোর্ডের দিকে বল ঠেলেছে আদালত।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে