BREAKING NEWS

১২ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৯  শনিবার ২৮ মে ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

এবছরই ‘গুপী বাঘা’ বানাবেন, লক্ষ্য স্থির পরিচালক পাভেলের

Published by: Bishakha Pal |    Posted: January 4, 2019 4:01 pm|    Updated: January 4, 2019 4:01 pm

Pavel's next venture Goopy Bagha

শম্পালী মৌলিক: ‘রসগোল্লা’র তরুণ পরিচালক পাভেলের সঙ্গে কথা হচ্ছিল ছবি রিলিজের ঠিক আটদিন পরে। শনিবার দুপুরে। ২৫ বছর বয়সে তাঁর প্রথম ছবি ‘বাবার নাম গান্ধীজি’ শুরুতেই চমকে দিয়েছিল। তিন বছর পর তাঁর দ্বিতীয় ছবি ‘রসগোল্লা’ এল শিবপ্রসাদ-নন্দিতার ‘উইন্ডোজ’-এর ব্যানার থেকে। ফলত, এবারে পাভেলকে আরও গোছানো দেখাচ্ছে। ‘ভাল ছবি হওয়া সত্ত্বেও পিছিয়ে গেল’-র গল্প নেই, প্রোমোশন-স্ট্র‌্যাটেজি সবদিক থেকেই জমাট। সিঙ্গল স্ক্রিন কম পাওয়ার আক্ষেপও মিটে গিয়েছে সাম্প্রতিক সাফল্যে!

কেমন হাউসফুল যাচ্ছে?

পাভেল: গতকাল ১৭টা হাউসফুল ছিল। আগেরদিন কুড়িটা মতো। আজকে রাত অবধি ১৫-১৭টা ছুঁয়ে ফেলবে মনে হয়। এখনও যদিও বুক মাই শো-টা দেখিনি। মফস্বলেও প্রচুর হাউসফুল যাচ্ছে। যেটা ভাল লাগছে প্রতিদিন গড়ে ১৭-২০ টা হাউসফুল যাচ্ছে। আর দ্বিতীয় সপ্তাহে এসে শো বাড়ল। (শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ৩০, ৩১ তারিখও প্রচুর হাউসফুল।)

এতটা আশা করেছিলেন?

পাভেল: সত্যি কথা যদি বলি, হ্যাঁ আশা করেছিলাম।

এতটা আত্মবিশ্বাসী?

পাভেল: কারণ, তিনবছর একটা ছবিকে এমনি এমনি তো কেউ দেয় না। যেটা আমি ‘রসগোল্লা’-র জন্য দিয়েছিলাম। আমি ভেবেচিন্তেই ঠিক করেছিলাম, আমার দ্বিতীয় ছবি ‘রসগোল্লা’-ই হবে অন্য কিছু করব না। কিন্তু রিলিজের দু’-তিনদিন আগে আমাদের হল-টল কমে গিয়েছিল এবং প্রথমদিনের ওপেনিং দেখে আমি খুব টেনশনে পড়ে গিয়েছিলাম। মনে হচ্ছিল, তাহলে কি আমার ভুল হচ্ছে! প্রথমদিনের দুপুরের পর থেকে রিঅ্যাকশন আসতে শুরু করে। প্রথম দিন বিকেল অবধিও কোনও হাউসফুল ছিল না। দ্বিতীয় দিন থেকে কনফিডেন্স ফিরে পেলাম। সবাই এমন জানাতে শুরু করল। ২৫ ডিসেম্বর তো যা হওয়ার হয়ে গেল। মানে সব হাউসফুল (হাসি)।

পাভেল, প্রথম ছবি বানিয়ে যতটা খুশি হয়েছিলেন, এবারে কি তার চেয়েও বেশি?

পাভেল: ননা, প্রথম ছবি তো প্রথম ছবিই হয়। আসলে প্রথম ছবির কারণেই আমার এই স্বীকৃতি। অনেক লোক হলে পেয়েছি, যারা বলেছে ‘দাদা তোমার প্রথম ছবিটা দেখেছিলাম, দ্বিতীয় ছবিটা তাই দেখলাম, অসাধারণ।’ আবার অনেকে আছে, যারা ‘রসগোল্লা’ দেখে ‘বাবার নাম গান্ধীজি’ দেখতে চাইছে। জিজ্ঞেস করছে ‘কোথায় পাব দাদা?’

উজান আর অবন্তিকার ডেবিউ হল আপনার ‘রসগোল্লা’-য় ওদের কাজে কতটা খুশি?

পাভেল: প্রচণ্ড হ্যাপি। খুব খুশি। বিশেষ করে অবন্তিকার কথা বলতে চাই। কারণ উজান তো সিনেমার পরিমণ্ডলেই বড় হয়েছে। নিশ্চয়ই ও খুব খেটেছে এবং ভাল করেছে। অবন্তিকা যে পরিশ্রমটা করেছে, বলার নয়। মাধ্যমিক দিতে দিতে ও শুট করেছে। শুধু তাই নয়, খেটে নিজের ওজন কমিয়েছে। ও রোজ সকাল পাঁচটা – সাড়ে পাঁচটায় আমার কাছে আসত, ওকে দৌড় করাতাম। প্রায় দু’মাসের পরিশ্রমে ও ১৪-১৫ কেজি ওজন কমিয়েছে।

‘ভবিষ্যতের ভূত’-এর ট্রেলার দেখলে চমকে যাবেন  ]

এত আনন্দের মধে্যও একটা বিতর্ক তো দানা বেঁধেছে। আপনার সঙ্গে কি শিবপ্রসাদ-নন্দিতার তিনটে ছবির চুক্তি রয়েছে…

পাভেল: এই চুক্তি নিয়ে মিডিয়ায় কোনও কথাবার্তা আমি বলছি না। ‘উইন্ডোজ’ থেকেও কেউ বলছে না। অনেকেই জিজ্ঞেস করছে আমার আর শিবুদার মধে্য কোনও গোলযোগ আছে কি না। আমি পরিষ্কার বলে দিতে চাই, দূর-দূরান্তেও এরকম কিছু নেই। উনি আমার বড়দাদার মতন। শিবুদা আমাকে সারাক্ষণ ‘ছোটভাই’ বলেন। এবং প্রোমোশনের সবক’টা জায়গায় আমরা কাঁধেকাঁধ মিলিয়ে লড়ে যাচ্ছি। আমি ভবিষ্যতেও ‘উইন্ডোজ’-এর সঙ্গে কাজ করব।

এখনও পর্যন্ত ‘বাচ্চা শ্বশুর’ ছবিটায় পরিচালকের নাম দেখা যাচ্ছে না।

পাভেল: একটা কথাই বলব, এই ছবিটার স্টোরি, স্ক্রিনপ্লে, ডায়লগ আমার।

পরিচালনা?

পাভেল: আমি এটা নিয়ে কোনও কমেন্ট করছি না।

পরমব্রতর কাছ থেকে কোনও ফিডব্যাক পেলেন ‘রসগোল্লা’র?

পাভেল: না, এখনও পরমদা কিছু জানায়নি। দেখেছে কি না তাও জানি না।

পরমব্রতর সঙ্গে সমস্যাটা মিটেছে?

পাভেল: মেটার কিছু নেই। আমার কিছু জিনিস পছন্দ হয়নি খারাপ লেগেছিল, সেটাই আমি বলে দিয়েছিলাম। তারপর থেকে পরমদা আমাকে ওটার রিঅ্যাকশন জানায়নি। কেন এরকম করলি? ঠিক করিসনি বা ছাড় না, ভুলে যা। তাও না। কোনও যোগাযোগই করেনি। আমিও আর করিনি। তাই সেই ‘সোনার পাহাড়’-এর পর থেকে এখনও অবধি কথাবার্তা নেই আমাদের। হবে হয়তো। না, সরি ‘সোনার পাহাড়’-এর একমাস আগে থেকেই কথা নেই।

আনফরচুনেট…

পাভেল: আমাদের ইন্ডাস্ট্রিতে স্টোরি রাইটার, স্ক্রিপ্ট রাইটারদের যোগ্য মর্যাদা দেওয়া হয় না। যদিও লোকে বলে স্ক্রিপ্টই আসল হিরো। আশা করি স্ক্রিপ্ট রাইটাররাও কোনও দিন হিরোর রেমুনারেশন পাবে।

‘আর ডি বর্মনের মিউজিক ছিল বলেই আজও সংগীত বেঁচে আছে’, স্মৃতিচারণায় অভিজিৎ ]

আজকে দুটো ছবিই বছরের সেরার তালিকায়। সেটা তো বড় ব্যাপার।

পাভেল: হ্যাঁ, (হাসি)। আমি ভাগ্যবান।

নেক্সট প্ল্যান কী?

পাভেল: এই মুহূর্তে প্ল্যান করা অফ রেখেছি। ‘রসগোল্লা’ নিয়ে ব্যস্ত। শুধু এটুকু জানি, যে করেই হোক এই বছর আমি আমার ‘গুপী বাঘা’-টা করব। করবই। অনেকের সঙ্গে কথা হয়েছে, অনেকে আগ্রহ দেখিয়েছে, কিন্তু পরে সিদ্ধান্ত নেব।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে