×

৩ চৈত্র  ১৪২৫  মঙ্গলবার ১৯ মার্চ ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার
নিউজলেটার

৩ চৈত্র  ১৪২৫  মঙ্গলবার ১৯ মার্চ ২০১৯ 

BREAKING NEWS

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: গতবছর #MeToo ঝড়ের প্রভাব সূদুর পাশ্চাত্য থেকে আমাদের দেশেও আছড়ে পড়েছিল। একের পর এক বলিউডের তাবড় তাবড় ব্যক্তিদের নাম জড়িয়েছিল এই আন্দোলনে। শুরুটা হয়েছিল তনুশ্রী দত্তকে ঘিরে। নানা পাটেকরের বিরুদ্ধে তনুশ্রীর বিস্ফোরক মন্তব্যকে ঘিরে উত্তাল হয়েছিল গোটা দেশ। তনুশ্রীর পথে হেঁটে একে একে অনেক অভিনেত্রীই নিজেদের যৌন হেনস্তার কথা প্রকাশ্যে এনেছিলেন। একদিকে যখন নিজেদের যৌন হেনস্তার বিরুদ্ধে মুখ খুলে ইন্ডাস্ট্রির বেশিরভাগ মহিলা রুখে দাঁড়িয়েছেন, তখন সে পথে হাঁটতে রাজি নন ফাতিমা সানা শেখ।

[তৃণমূলের হয়ে ফের নির্বাচনী যুদ্ধক্ষেত্রে দেব, মুখ্যমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানালেন অভিনেতা]

ফাতিমার কথায়, আমাদের সমাজের প্রত্যেকটা স্তরেই মহিলারা রোজ কোথাও না কোথাও যৌন হেনস্তার শিকার হচ্ছেন। নিজের যৌন হেনস্তার কথা সোশ্যাল মিডিয়ায় বা পাবলিক ফোরামে শেয়ার করে তিনি নারাজ কারও আলোচনার বিষয়বস্তু হতে।

সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে দঙ্গল-গার্ল জানিয়েছেন, “আমি জীবনের এই দিকটা নিয়ে প্রকাশ্যে আলোচনা করতে চাই না। একমাত্র আমার ঘনিষ্ঠ ব্যক্তিদের সঙ্গেই এই বিষয়ে আলোচনা করেছি আমি। অনেকেই নিজের ভয়ংকর অভিজ্ঞতার কথা শেয়ার করেছেন। তবে, আমি আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা শেয়ার না করার জন্যও কারও দ্বারা সমালোচিত হতে চাই না।

[এবার বড়পর্দায় মাদার টেরিজার বায়োপিক]

নিজের অভিজ্ঞতা শেয়ার না করতে চাইলেও, #MeToo মুভমেন্টকে তিনি স্বাগত জানিয়েছেন। তাঁর মতে, যৌন হেনস্তার কথা প্রকাশ্যে আনাতে অনেকেরই লাভ হয়েছে। যাঁরা নিজেদের ক্ষমতার অপব্যবহার করে এতদিন মেয়েদের হেনস্তা করে এসেছেন, তাঁরা এখন সতর্ক হবেন। ভবিষ্যতেও কিছু করার আগে ভাববেন। সতর্ক থাকবেন বলে মনে করেন অভিনেত্রী ফাতিমা সানা শেখ। পর্দায় ‘ঠাগস্ অফ হিন্দোস্তান’-এ শেষ দেখা গিয়েছে ফাতিমাকে। ফাতিমা ছাড়াও এই ছবিতে অভিনয় করেছেন আমির খান, অমিতাভ বচ্চন।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং