২২ আষাঢ়  ১৪২৭  মঙ্গলবার ৭ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

বন্ধ হচ্ছে ৪টি বাংলা ধারাবাহিক, উদ্বিগ্ন আর্টিস্ট ফোরামের কার্যকর সভাপতি শংকর চক্রবর্তী

Published by: Sandipta Bhanja |    Posted: May 17, 2020 7:35 pm|    Updated: May 17, 2020 7:35 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ১২মে একদিকে যখন রাজ্য সরকারের তরফে পোস্ট প্রোডাকশনের কাজ শুরু করার ছাড়পত্র মিলেছে, ঠিক সেই দিনই শোনা গেল এক দুঃসংবাদ! জনপ্রিয় এক বাংলা চ্যানেলের চারটি ধারাবাহিক বন্ধ হতে চলেছে। ওই ধারাবাহিকগুলির প্রযোজনা সংস্থাকে মৌখিকভাবে ইতিমধ্যেই জানিয়ে দেওয়া হয়েছে চ্যানেলের কর্তৃপক্ষের তরফে যে এই অর্থকষ্ট নিয়ে সিরিয়ালগুলি আর টানা সম্ভব নয়! সেই পরিস্থিতিতেই বাংলা টেলিভিশন ইন্ডাস্ট্রির অভিনেতা-অভিনেত্রীদের কথা ভেবে উদ্বিগ্ন আর্টিস্ট ফোরামের কার্যকর সভাপতি শংকর চক্রবর্তী।

প্রাথমিকভাবে জানা গিয়েছে, সংশ্লিষ্ট চ্যানেলের ‘নিশির ডাক’, ‘কনক কাঁকন’, ‘মঙ্গলচণ্ডী’ এবং ‘চিরদিনই আমি যে তোমার’ এই ৪টি ধারাবাহিক বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। এভাবে চলতে থাকলে বাংলা ইন্ডাস্ট্রির শিল্পীরা যে অচিরেই আর্থিক সমস্যার পড়বে, তা বলাই যায়।

ধারাবাহিক বন্ধ হলে যে সবথেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হবেন জুনিয়র টেকনিশিয়ানরা, তা বলাই বাহুল্য। এমনিতেই লকডাউনের জেরে দৈনন্দিন পারিশ্রমিকের ভিত্তিতে যারা কাজ করেন, তারা ভীষণরকম সংকটের মধ্যে পড়েছেন। দুশ্চিন্তায় রয়েছেন অভিনেতা-অভিনেত্রীরাও। সিরিয়ালের শুট বন্ধ থাকায় রোজগারহীন হয়ে পড়েছেন তাঁরা। যাঁদের কাছে টেলিপর্দাটাই একমাত্র ভরসা, তাঁরা চরম আশঙ্কার মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন। কারণ, আজ একটা চ্যানেল এই সিদ্ধান্ত নিলে অচিরেই অন্যান্য চ্যানেলগুলিও একই পন্থা অবলম্বন করতে পারে! এভাবে চলতে থাকলে প্রায় সব চ্যানেলের পক্ষ থেকেই ধারাবাহিকের বাজেট কমে যাবে। কাটছাঁট হবে কর্মীসংখ্যাও। স্বাভাবিকবশতই টান পড়বে অভিনেতা-অভিনেত্রীদের পারিশ্রমিকেও। লকডাউনের মেয়াদ যত বাড়ছে, ততই জোরালো হচ্ছে আশঙ্কা।

[আরও পড়ুন: রাস্তাই মঞ্চ, গান-অভিনয়ের মাধ্যমে করোনা সচেতনতা প্রচার ‘অ্যাম্বুল্যান্স দাদা’ করিমুলের]

অনিশ্চয়তার সুর শোনা গেল আর্টিস্ট ফোরামের কার্যকরী সভাপতি শংকর চক্রবর্তীর কণ্ঠেও। অভিনেতার কথায়, “এর আগেও বাংলা টেলিভিশন ইন্ডাস্ট্রিতে একাধিক সিরিয়াল মাঝপথে বন্ধ হয়ে গিয়েছে৷ তবে এবার করোনার জেরে পরিস্থিতিটা একেবারেই আলাদা। যে ৪টি সিরিয়াল বন্ধ হতে চলেছে, তার অভিনেতা এবং কলাকুশলীদের কথা ভেবে ভীষণই খারাপ লাগছে। তবে সংশ্লিষ্ট ধারাবাহিকের প্রযোজকরা যদি নতুন কাজের বরাত পান, সেক্ষেত্রে অবশ্য আলাদা কথা। কারণ, সেখানে তাঁদের আগের টিমের টেকনিশিয়ানদেরও তাঁরা নিতে পারবেন। কিন্তু অভিনেতাদের যে কী হবে! ধারাবাহিকের গল্প পরিবর্তন হলে তো অভিনেতাদেরও মুখ বদলাবে! অন্যদিকে, এই পরিস্থিতিতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য কোনও কোনও চ্যানেল মোবাইলে শুট করার ভাবনাচিন্তা করলেও সেটা কতটা দীর্ঘমেয়াদে হবে, তা বলা মুশকিল!”

[আরও পড়ুন: করোনা আবহে ভুয়ো খবর এড়াতে ‘পাতাল লোক’-এর দ্বারস্থ মুম্বই পুলিশ, ভাইরাল পোস্ট]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement