BREAKING NEWS

১২ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

স্বচ্ছ ভারত মিশনে অংশ নিলেই পড়ুয়াদের অতিরিক্ত ৫ নম্বর!

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: October 6, 2017 11:51 am|    Updated: August 20, 2020 10:30 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক:  ২০১৪ সালে প্রধানমন্ত্রীর কুর্সিতে বসেই নরেন্দ্র মোদি ঘোষণা করেছিলেন, ২০১৯ সালের মধ্যে দেশকে স্বচ্ছ করে তুলবে হবে। ওই বছরের ২ অক্টোবর, মহাত্মা গান্ধীর জন্মদিনে চালু হয়েছিল স্বচ্ছ ভারত মিশন। এরপর সময় যত গড়িয়েছে, স্বচ্ছ ভারত গড়ে তুলতে প্রচারের মাত্রাও তত বেড়েছে। আর এবার প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্নের এই প্রকল্পকে সফল করতে এক অভিনব উদ্যোগ নিল অন্ধ্রপ্রদেশ। চন্দ্রবাবু নাইডুর সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, যেসব পড়ুয়ার স্বচ্ছ ভারত মিশনের অংশ নেবে, তাঁদের পরীক্ষায় অতিরিক্ত পাঁচ নম্বর দেওয়া হবে। তবে এই অতিরিক্ত নম্বর পাবে শুধুমাত্র নবম শ্রেণি ও তার থেকে উঁচু ক্লাসের পড়ুয়ারা।

[স্বচ্ছতার অভিযান সফল করতে তারকাদের খোলা চিঠি মোদির]

প্রধানমন্ত্রীর স্বচ্ছ ভারত মিশন প্রকল্পের শরিক হয়েছে অন্ধ্রপ্রদেশ সরকার। ২০১৯ সালের মধ্যে খোলাস্থানে শৌচকর্মমুক্ত রাজ্যের তকমা পাওয়ার জন্য নানা উদ্যোগ নিয়েছে চন্দ্রবাবু নাইডুর সরকার। আগামী দু’বছরে অন্ধ্রপ্রদেশের ২১ লক্ষ শৌচাগার তৈরির লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে। আর এই লক্ষ্যপূরণে রাজ্যের পড়ুয়াদের পাশে পেতে চাইছে অন্ধ্রপ্রদেশ সরকার। তাই ঠিক হয়েছে অন্ধ্রপ্রদেশে যেসব পড়ুয়া স্বচ্ছ ভারত মিশনের অংশ নেবে এবং সরকারকে শৌচাগার তৈরিতে সাহায্য করবে, তাদের পরীক্ষায় অতিরিক্ত পাঁচ নম্বর দেওয়া হবে। বস্তুত, স্বচ্ছ ভারত মিশনের অংশগ্রহণকারী পড়ুয়াদের চিহ্নিত করার জন্য ইতিমধ্যেই স্বচ্ছ অন্ধ্র কর্পোরেশনের আধিকারিকদের নির্দেশ দিয়েছেন পঞ্চায়েত ও তথ্য-প্রযুক্তি মন্ত্রী নারা লোকেশ। কিন্তু, কোন শ্রেণির পড়ুয়ারা এই অতিরিক্ত নম্বর পাবেন?  জানা গিয়েছে, স্বচ্ছ ভারত মিশনের অংশগ্রহণ করার জন্য নবম শ্রেণি বা তার থেকে উঁচু ক্লাসের পড়ুয়াদের অতিরিক্ত ৫ নম্বর দেওয়া হবে।

[রাখিবন্ধনেও ছোঁয়া স্বচ্ছ ভারতের, বোনদের জন্য ভাইদের উপহার শৌচালয়]

স্বচ্ছ অন্ধ কর্পোরেশনের ম্যানেজিং ডিরেক্টর মুরলীধরণ রেড্ডি বলেন, ‘ আমরা চাই, পড়ুয়ারাই এলাকার কোন কোন বাড়িতে শৌচাগার নেই, তা চিহ্নিত করে প্রশাসনকে সাহায্য করুক। আর তাঁদের নিজেদের বাড়িতে যদি শৌচাগার না থাকে, তাহলে বাবা-মাকে শৌচাগার তৈরিতে উৎসাহ দিক।’ শুধু স্কুল বা কলেজের পড়ুয়াদেরই নয়, এলাকাভিত্তিক শৌচাগারের নকশা তৈরিতে ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ুয়াদের ও সচেতনতা বাড়াতে ডাক্তারির পড়ুয়াদের সাহায্য নেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে অন্ধ্রপ্রদেশ সরকারের।

[অরুণাচল প্রদেশে বায়ুসেনার চপার ভেঙে নিহত ৭]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement