BREAKING NEWS

২৮ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২০ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

ভোটের আগে বিহার বিজেপিতে বড়সড় ভাঙন, দল ছাড়ছেন একের পর এক নেতা

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: October 9, 2020 8:52 am|    Updated: October 9, 2020 8:52 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বিহারে এলজেপিকে (LJP) উপেক্ষা করে জনতা দল ইউনাইটেডের সঙ্গে জোট করার সিদ্ধান্ত বিজেপির জন্য শাখের করাত হয়ে উঠছে। আসন-রফা নিয়ে অসন্তোষ। স্থানীয় জেডিইউ নেতাদের সঙ্গে অশান্তি এবং সদ্য পিতৃবিয়োগ হওয়া চিরাগ পাসওয়ানের লোকজন শক্তি পার্টির সঙ্গে সদ্ভাবের জেরে বিজেপির (BJP) একাধিক নেতা দলত্যাগ করে এলজেপির হাত ধরার সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন। ইতিমধ্যেই গেরুয়া শিবিরের রাজ্য সহ-সভাপতি এবং আরও অন্তত জনা তিনেক প্রভাবশালী নেতা চিরাগের দলে যোগ দিয়ে ফেলেছেন। শোনা যাচ্ছে আগামী দিনে আরও কয়েকজন নেতা শিবির বদল করতে পারেন।

আসলে গত নির্বাচনে (Bihar Election 2020) বিজেপি একাই লড়েছিল প্রায় ১৭০ আসনে। এবারে শক্তিশালী জেডিইউয়ের সঙ্গে জোট করার দরুন সেই আসন সংখ্যা নেমে এসেছে ১২১-এ। যার ফলে দলের অনেক প্রভাবশালী নেতাকে টিকিট দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। যে সমস্ত আসনে প্রথাগতভাবে গেরুয়া শিবির প্রার্থী দিত, সেসব আসনের মধ্যেও বেশ কয়েকটি ছেড়ে দিতে হয়েছে জোটসঙ্গী নীতীশ কুমারকে। ফলে টিকিট পাচ্ছেন না দলের বহু পুরনো এবং বিশ্বস্ত সৈনিক। অনিশ্চিত রাজনৈতিক ভবিষ্যতের আশঙ্কায় এরাই যোগ দিচ্ছেন গেরুয়া শিবিরের পুরনো জোট সঙ্গী এলজেপিতে। ইতিমধ্যেই চিরাগ পাসওয়ানের (Chirag Paswan) হাত ধরেছেন বিহার বিজেপির প্রাক্তন সহ-সভাপতি রাজেন্দ্র সিং। একটা সময় যাকে কিনা গেরুয়া শিবিরের মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী বলে মনে করা হচ্ছিল। এলজেপিতে যোগ দিয়েছেন প্রাক্তন বিধায়ক তথা বর্ষীয়ান নেতা রামেশ্বর চৌরাসিয়া, যিনি কিনা জাতীয় স্তরেও পরিচিত মুখ। চিরাগের দলে শামিল হয়েছেন দলের মহিলা মোর্চার প্রাক্তন নেত্রী ঊষা বিদ্যার্থীও। একটা সময় ইনিও বিধায়ক ছিলেন।

[আরও পড়ুন: ‘বাক স্বাধীনতার অপব্যবহার’, তবলিঘি ইস্যুতে সংবাদমাধ্যমকে কটাক্ষ সুপ্রিম কোর্টের]

এঁরা ছাড়াও ছোটবড় বহু নেতা গেরুয়া শিবিরে যোগ দিয়েছেন। এই বিদ্রোহী নেতাদের দাবি, নীতীশ কুমারের (Nitish Kumar) জেডিইউ নয়, বিহারে বিজেপির একমাত্র জোটসঙ্গী এলজেপি। বিজেপি-এলজেপি জোটই প্রকৃত এনডিএ। তবে দলবদলের অস্বস্তি যে শুধু শাসক শিবিরকেই গ্রাস করেছে, তা নয়। একই ছবি আরজেডিতেও। গতকালই লালুর দল ছেড়ে নীতীশের দলে যোগ দিয়েছেন, ইউপিএ জমানার প্রয়াত গ্রামোন্নয়ন মন্ত্রী রঘুবংশ প্রসাদ সিংয়ের ছেলে। তাছাড়া জেডিইউ বেশ কয়েকটি আসনে দলত্যাগী আরজেডি নেতাদের টিকিটও দিয়েছে। এদের মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য হলেন তেজপ্রতাপ যাদবের শ্বশুর চন্দিকা রাই।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement