BREAKING NEWS

২ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

কাদায় বসে শঙ্খ বাজালেই ‘পালাবে’ করোনা! আজব নিদান দেওয়া বিজেপি সাংসদ নিজেই আক্রান্ত

Published by: Abhisek Rakshit |    Posted: September 16, 2020 3:58 pm|    Updated: September 16, 2020 4:01 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক:‌ পাঁপড় ভাজা থেকে শুরু করে নিরামিষ খাবার খাওয়া, কিংবা গোমূত্র পান করা। মারণ করোনা ভাইরাসের (Covid-19) প্রতিষেধক হিসেবে এমনই সব নিদান দিয়েছিলেন বিজেপির নেতা–মন্ত্রীরা। তাতে নবতম সংযোজন ছিল রাজস্থানের বিজেপি সাংসদ সুখবীর সিং জৌনপুরিয়ার (Sukhbir Singh Jaunapuria)। বলেছিলেন, কাদা মেখে শাঁখ বাজালে নাকি নিস্তার মিলবে করোনার হাত থেকে। ফেসবুকে ভিডিও আপলোড করে হাতে কলমে দেখিয়েও দিয়েছিলেন। কিন্তু তা নিজের জন্যই কাজে লাগাতে পারলেন না। বিজেপির এই সাংসদ সম্প্রতি আক্রান্ত হলেন মারণ করোনা ভাইরাসে। ‘‌আহমেদাবাদ মিরর’–এ প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, গত সোমবার করোনায় আক্রান্ত‌ হয়েছেন রাজস্থানের সাওয়াই মাধোপুরের এই বিজেপি (BJP) সাংসদ।

[আরও পড়ুন:‌ রাজস্থানের চম্বল নদীতে নৌকাডুবি, শিশু ও মহিলা-সহ কমপক্ষে ১৪ জনের মৃত্যুর আশঙ্কা]

মঙ্গলবার নিজের টুইটার হ্যান্ডেলে সেকথা স্বীকারও করে নেন সুখবীর সিং। লেখেন, ‘‌‘কাল করোনা টেস্ট করানোর পর আমার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। এরপর অনেকেই আমার স্বাস্থ্য সম্পর্কে খোঁজ খবর নিয়েছেন। আপনাদের জানাতে চাই, ঈশ্বরের কৃপায় আমি সুস্থ রয়েছি। শীঘ্রই আমি সুস্থ হয়ে ফের আপনাদের সেবার কাজে যোগ দেব।’‌

 

[আরও পড়ুন:‌ করোনা কালে ‘খেয়ালি পোলাও’ রান্না করেছে মোদি সরকার, কেন্দ্রকে ফের খোঁচা রাহুলের]

এর আগে নিজের ফেসবুক পেজে একটি ভিডিও পোস্ট করেন এই সুখবীর সিং। সেখানেই বলেন, কাদায় বসে শাঁখ বাজালেই দূরে থাকবে করোনা। ওই ভিডিওতে দেখা যায়, সারা শরীরে কাদা মেখে শাঁখ বাজাচ্ছেন তিনি। এরপরই তাঁকে বলতে শোনা যায়, ‘‌‘‌এই সময় কিডনি ও ফুসফুসের কার্যকারিতা যাচাই করা দরকার। আর তাই শাঁখ বাজাতে হবে। করোনার বিরুদ্ধে লড়তে হলে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে হবে। আর ওষুধ খেয়ে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়বে না। শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে হবে প্রাকৃতিক উপায়ে। বৃষ্টির মধ্যে বেরিয়ে পড়তে হবে। কাদায় বসে পড়তে হবে। সাইকেল চালাতে হবে। শাঁখ বাজাতে হবে। দেশি খাবার খেতে হবে। তা হলেই আর ওষুধ খেতে হবে না।’‌’‌ বিজেপি সাংসদের এই বক্তব্যের পরেই সোশ্যাল মিডিয়ায় হাসির রোল ওঠে। কেউ হাসতে থাকেন, কেউ আবার এ ধরনের পরামর্শ দেওয়ার জন্য তাঁর শাস্তির দাবি করেন।

দেখুন ভিডিও:‌

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement