BREAKING NEWS

১৪  আষাঢ়  ১৪২৯  বুধবার ২৯ জুন ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

বাংলায় তৃণমূল, পাঞ্জাবে AAP-এর নেতৃত্বেই লড়তে হবে কংগ্রেসকে, ‘স্বীকারোক্তি’ চিদম্বরমের

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: March 18, 2022 11:58 am|    Updated: March 18, 2022 12:09 pm

Congress willing to be junior partner in alliance with AAP and TMC, says P Chidambaram | Sangbad Pratidin

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: দলের টালমাটাল পরিস্থিতির মধ্যে সাংগঠনিক দুর্বলতা নিয়ে এবার সরব হলেন পি চিদম্বরম (P Chidumbaram)। কার্যত স্বীকার করে নিলেন এই মুহূর্তে দলের যা পরিস্থিতি তাতে কংগ্রেসকে আপস করতেই হবে। বিজেপিকে রুখতে বাংলায় তৃণমূল এবং পাঞ্জাবে আম আদমি পার্টির মতো দলগুলির নেতৃত্ব মেনে নিতে হবে কংগ্রেসকে।

চিদম্বরমের বক্তব্য, কংগ্রেস ২০২৪ লোকসভার (2024 Lok Sabha Election) লড়াইয়ের জন্য প্রস্তুত। তবে, বিজেপিকে হারাতে কংগ্রেসকে আপস করতে হবে। শুধু কংগ্রেসকে নয়, সব দলকেই আপস করতে হবে। প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী বলছেন, “কংগ্রেসের মতো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee), অরবিন্দ কেজরিওয়ালকেও (Arvind Kejriwal) আপস করতে হবে। লড়াইটা হবে রাজ্য ধরে ধরে। বাংলায় আমাদের লড়তে হবে তৃণমূলের নেতৃত্বে। পাঞ্জাবে আমাদের লড়তে হবে আম আদমি পার্টির নেতৃত্বে। বিজেপির বিরুদ্ধে রাজ্য ধরে ধরে লড়াই করলেই তাঁদের হারানো সম্ভব।”

[আরও পড়ুন: গুজরাটের স্কুলে এবার পড়ানো হবে ভগবত গীতা, বিজেপি সরকারের সিদ্ধান্তে সমর্থন আপ, কংগ্রেসের]

কংগ্রেসের বিক্ষুব্ধ G-23 গোষ্ঠী এখনও রীতিমতো বিদ্রোহী। মাত্র একদিনের ব্যবধানে দু’ বার বৈঠক করে ফেলেছেন বিদ্রোহীরা। দলের হাইকম্যান্ড সংস্কৃতি তথা গান্ধীদের নেতৃত্ব নিয়ে যে তাঁদের তীব্র আপত্তি রয়েছে, সেটা গত দুদিনে স্পষ্টও করে দিয়েছেন জি-২৩ নেতারা। তাঁদের সাফ বক্তব্য, দলের এই হালের দায়বদ্ধতা কেউ এড়িয়ে যেতে পারে না। চিদম্বরম এই বিক্ষুব্ধদের তালিকায় না থাকলেও দায়বদ্ধতার কথা বলছেন তিনিও। বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতার বক্তব্য, “কেউ দায়বদ্ধতা এড়িয়ে যাচ্ছে না। হারের দায় গান্ধীরা স্বীকার করেছেন। একই সঙ্গে আমাদেরও স্বীকার করতে হবে। এই হারের জন্য আমরাও দায়ী। গোয়ায় হারের জন্য আমিও দায়ী।”

[আরও পড়ুন: ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই ফের বৈঠকে কংগ্রেসের বিক্ষুব্ধরা, পরবর্তী পদক্ষেপ নিয়ে আলোচনা]

চিদম্বরম স্বীকার করে নিয়েছেন, দলের সাংগঠনিক অবস্থা সঙ্গীন এবং এখন প্রয়োজন পুরোপুরি নতুন করে দলকে গড়ে তোলা। প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী বলেন, “বহু জায়গায় কংগ্রেসের কোনও সংগঠনই নেই। গোয়ায় গিয়ে আমি দেখেছি শুধু খাতায়-কলমে ব্লক কমিটি ছিল। সব ভেঙে নতুন করে সংগঠন গড়তে হয়েছে। কপিল সিব্বল (Kapil Sibbal), গুলাম নবি আজাদও এই সাংগঠনিক দুর্বলতার কথাই বলছেন। আমিও সাংগঠনিক দুর্বলতার কথাই বলছি। বিক্ষুব্ধদের বলব, দল ভেঙে দেবেন না। নিজের নিজের এলাকায় ফিরে গিয়ে সংগঠন গড়ে তোলার চেষ্টা করুন।”

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে