×

৮ ফাল্গুন  ১৪২৫  বৃহস্পতিবার ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার
নিউজলেটার

৮ ফাল্গুন  ১৪২৫  বৃহস্পতিবার ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 

BREAKING NEWS

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: রাজ্যে তৃণমূলের সঙ্গে কোনওভাবেই জোট নয়। রাহুল গান্ধীর কাছে সাফ জানিয়ে এলেন সোমেন মিত্ররা। প্রদেশ নেতারা সকলেই একমত, রাজ্যে কোনওভাবেই তৃণমূলের সঙ্গে জোটের পক্ষে নন। দিল্লিতে কংগ্রেস সভাপতির সঙ্গে বৈঠকে সেকথাই জানিয়ে এসেছেন এরাজ্যের দুই শীর্ষ নেতা। সোমেন মিত্র বলেন, রাজ্যে তৃণমূল যেভাবে দল ভাঙাছে, এই পরিস্থিতিতে জোট করলে কংগ্রেসের ক্ষতি ছাড়া লাভ কিছু হবে না। উদাহরণ হিসেবে মৌসম নুর এবং বেশ কয়েকজন বিধায়কের দলত্যাগের ঘটনাকে উদাহরণ হিসেবে দেখান সোমেন মিত্ররা। রাহুল তাদের বক্তব্য মেনে নিয়েছেন বলেও দাবি সোমেন মিত্রর। 

[শিলংয়ে সিবিআই দপ্তরে বেনজির নিরাপত্তা, রাজীব কুমারের জন্য তৈরি কঠিন প্রশ্নমালা]

এদিন নয়াদিল্লিতে প্রদেশ কংগ্রেস নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন রাহুল গান্ধী। মূলত বুথ ম্যানেজমেন্ট, প্রচার এবং প্রার্থীতালিকা নিয়ে আলোচনা করার কথা ছিল রাহুলের। বৈঠকে প্রদেশ কংগ্রেসের তরফে উপস্থিত ছিলেন সোমেন মিত্র এবং আবদুল মান্নান। সোমেন মিত্রর দাবি, তাদের কথামতো রাহুল গান্ধীও জানিয়ে দিয়েছেন প্রদেশ নেতাদের মতামত ছাড়া তৃণমূলের সঙ্গে জোট হবে না। রাজ্যে জোটের ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন প্রদেশ নেতারাই। রাহুল জানিয়েছেন, তৃণমূলের সঙ্গে তাদের সমঝোতা জাতীয় স্তরে এবং সংসদে সীমাবদ্ধ। রাজ্যস্তরে সমঝোতার জন্য প্রদেশ নেতৃত্বকে চাপ দেওয়া হবে না।শুধু যে জোট হচ্ছে না তাই নয়, রাহুল গান্ধী প্রদেশ নেতৃত্বকে মমতার বিরুদ্ধে জোরকদমে প্রচার চালানোর নির্দেশ দিয়েছেন। 

[রাফালে ইস্যুতে রাহুলের অভিযোগ উড়িয়ে পালটা আক্রমণ নির্মলার]

এদিকে, তৃণমূলের সঙ্গে জোটের রাস্তা বন্ধ করে দিলেও বামেদের সঙ্গে জোটের রাস্তা খোলাই রাখছে কংগ্রেস। প্রদেশ নেতারা এবিষয়ে জানান, দলের একাংশের মধ্যে বামেদের সঙ্গে জোট নিয়ে সংশয় আছে। রাহুল যদি, রাজ্যের বর্ষীয়ান নেতাদের আলাদা করে মতামত নেন তাহলেই ভাল হয়। সূত্রের খবর, বামেরা যদি সম্মানজনক জোটের প্রস্তাব দেয় তাহলে তা ভেবে দেখা হতে পারেন বলে সোমেন মিত্রদের জানিয়েছেন রাহুল। প্রদেশ নেতাদের একাংশের দাবি, বামেদের সঙ্গে জোট করলে আসন সমঝোতায় সমস্যা হতে পারে। কারণ, আপাতত বামেদের হাতে যে দুটি লোকসভা আসন রয়েছে, সে দুটিরও দাবিদার কংগ্রেস। অধীর চৌধুরি আবার গৌরব গগৈকে পাশে বসিয়ে মুর্শিদাবাদ লোকসভা কেন্দ্রের প্রার্থীর নাম ঘোষণা করে দিয়েছেন। এই আসনটি আপাতত সিপিএমের দখলে। আবার মহম্মদ সেলিমের রায়গঞ্জে কংগ্রেসের প্রার্থী হওয়ার দাবিদার হেভিওয়েট নেত্রী দীপা দাশমুন্সি। তাই জোটের অঙ্ক খুব একটা সহজ হবে না বলেই মত প্রদেশ নেতাদের।

 

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং