BREAKING NEWS

২৮ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ২৪ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

‘কতদিনে দেশের সবাই ভ্যাকসিন পাবেন বলা কঠিন’, সংশয়ের সুর এইমসের ডিরেক্টরের গলায়

Published by: Biswadip Dey |    Posted: October 3, 2020 9:13 am|    Updated: October 3, 2020 9:13 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কবে আসবে করোনা ভ্যাকসিন (Covid vaccine)? আপাতত এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে ব্যস্ত দেশবাসী। এর আগে স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষবর্ধন জানিয়েছিলেন, আগামী বছরের গোড়াতেই চলে আসতে পারে ভ্যাকসিন। এবার একই কথা শোনালেন এইমসের ডিরেক্টর রণদীপ গুলেরিয়াও (Randeep Guleria)। কিন্তু সেই সঙ্গে তিনি জানিয়ে দিয়েছেন প্রাথমিকভাবে গোটা দেশের জন্য সেই ভ্যাকসিনের ডোজ পর্যাপ্ত পরিমাণে থাকবে না।

ভ্যাকসিন প্রসঙ্গে শুক্রবার রণদীপ জানিয়েছেন, ভ্যাকসিন কবে মিলবে তা বলা বেশ কঠিন। কেননা তা অনেকগুলি ফ্যাক্টরের উপরে নির্ভর করে। তবে ভারতে ক্লিনিকাল ট্রায়াল যেভাবে এগোচ্ছে সেদিকে তাকিয়ে এটা বলাই যায় ২০২১ সালের জানুয়ারির মধ্যেই দেশে চলে আসবে করোনা ভ্যাকসিন।

[আরও পড়ুন: ‘দোষীদের শাস্তি দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে’, হাথরাস নিয়ে নীরবতা ভেঙে দাবি যোগীর]

কিন্তু ভ্যাকসিন চলে আসার পরে ব্যাপক হারে তার উৎপাদন ও সারা দেশে তার বিতরণও যে একটা বড় চ্যালেঞ্জ হতে চলেছে সেটাও পরিষ্কার করে দিয়েছেন রণদীপ। তিনি জানাচ্ছেন, ‘‘ভ্যাকসিন আসার পরে দ্বিতীয় চ্যালেঞ্জটা হবে এত ব্যাপক আকারে তার উৎপাদন এবং সারা দেশে বিতরণ।’’

তাহলে প্রাথমিকভাবে কোভিড ভ্যাকসিন পাওয়ার ক্ষেত্রে কারা অগ্রাধিকার পেতে পারেন? এই প্রশ্নের উত্তরে রণদীপ জানাচ্ছেন, ‘‘দু’ধরনের মানুষকে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। যাঁদের সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি যেমন স্বাস্থ্যকর্মী ও অন্যান্য করোনা যোদ্ধারা, তাঁরা অগ্রাধিকার পাবেন। এছাড়া যাঁদের করোনা আক্রান্ত হলে মৃত্যুর সম্ভাবনা বেশি তাঁরাও অগ্রাধিকার পাবেন। যদি আমরা ঠিকভাবে অগ্রাধিকার মেনে তালিকা প্রস্তুত করতে পারি তাহলে ন্যায়সঙ্গতভাবে ভ্যাকসিনের সরবরাহ সম্ভব।’’

[আরও পড়ুন: ফের ফিঁদায়ে হামলার ছক! কাশ্মীর সীমান্তে অনুপ্রবেশের অপেক্ষায় পাকিস্তানি জঙ্গিরা]

ভারত সংক্রমণের চূড়ান্ত অবস্থান পেরিয়ে এসেছে কিনা, সে বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, গত কয়েক দিনে আক্রান্তের সংখ্যা কিছুটা স্থিতিশীল অবস্থায় এসেছে। যদি এই ট্রেন্ডটা আগামী দু’সপ্তাহ ধরে একই থাকে তাহলে এটা নিশ্চিত করেই বলা যাবে দেশ সংক্রমণের চূড়ান্ত অবস্থান পেরিয়ে এসেছে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement