৬ ফাল্গুন  ১৪২৬  বুধবার ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সঙ্গমের আগে খদ্দেরকে সতর্ক করতে চেয়েছিলেন বারবনিতা। বারবার অনুরোধ জানিয়েছিলেন, যৌন মিলনের আগে যেন কন্ডোম ব্যবহার করেন খদ্দের। কিন্তু যৌনকর্মীর সে অনুরোধ কানে তোলেনি ওই ব্যক্তি। উলটে মেজাজ হারিয়ে যৌনকর্মীকে গলা কেটে করে খুন করে সে। মর্মান্তিক ঘটনায় শিউরে উঠেছে বেঙ্গালুরুর রাজাজিনগরের বাসিন্দারা। খুনের অভিযোগে ইতিমধ্যেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে ওই ব্যক্তিকে।

অভিযুক্তর নাম মুকুন্দ। বাড়ি ইলেকট্রনিক্স সিটির কাছে। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, গত ১১ জানুয়ারি বেঙ্গালুরুর ম্যাজেস্টিক বাসস্ট্যান্ডে দাঁড়িয়েছিল মুকুন্দ। সেই সময়ই তাঁর সঙ্গে আলাপ হয় ওই যৌনকর্মীর। মহিলা আড়াই হাজার টাকার বিনিময়ে তাকে মিলনের প্রস্তাব দেন। শেষমেশ ঠিক হয়, সঙ্গমের জন্য মহিলা পাবেন দেড় হাজার টাকা। কথা মতো, মহিলার হাতে ৫০০ টাকা অগ্রিম ধরায় সে। এরপর রাজাজিনগরে মহিলার বাড়িতে গিয়ে উপস্থিত হয় তারা। সেখানে গিয়েই বাকি এক হাজার টাকা মিটিয়ে দেয় মুকুন্দ।

[আরও পড়ুন: মহারাষ্ট্র সরকারকে এড়িয়ে ভীমা-কোরেগাঁও মামলার তদন্তে NIA! ক্ষুব্ধ বিরোধীরা]

এরপরই সঙ্গমের জন্য খদ্দেরকে কন্ডোম ব্যবহার করতে বলেন বারবনিতা। কিন্তু মুকুন্দ তাতে রাজি হয়নি। কন্ডোম ছাড়াই যৌন মিলনের আগ্রহ দেখায় সে। যে প্রস্তাবে সম্মতি দেননি মহিলা। ফলে মহিলার থেকে টাকা ফেরত চায় সে। কিন্তু বেঁকে বসেন যৌনকর্মী। মুকুন্দকে টাকা ফিরিয়ে দিতেও রাজি হন না তিনি। আর এতেই মেজাজ হারায় ব্যক্তি। টাকা ফেরত না দিলে মহিলাকে খুনের হুমকিও দেয় সে। তাতেও মহিলা উচ্চবাচ্য না করায় তাঁর গলা কেটে খুন করে মুকুন্দ। ঘটনার পরই চম্পট দেয় অভিযুক্ত।

এদিকে স্কুল থেকে বাড়ি ফিরে মায়ের রক্তাক্ত মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখে ছেলে। সঙ্গে সঙ্গে পুলিশকে খবর দেয় সে। পুলিশ এসে মৃতদেহ উদ্ধার করে। জানা যায়, পালানোর সময় মহিলার গলার চেন ও দু’টি মোবাইলও নিয়ে যায় সে। এরপর সিসিটিভি ফুটেজ এবং মহিলার ফোনের লোকেশনের সূত্র ধরে মুকুন্দকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। জেরায় মুকুন্দ নিজের অপরাধের কথা স্বীকারও করে নেয়। আদালতে পেশ করা হলে তাকে ১৪ দিনের জন্য বিচারবিভাগীয় হেফাজতের নির্দেশ দেওয়া হয়।

[আরও পড়ুন: চাপে মোদি সরকার, কাশ্মীরে আটক নেতাদের মুক্তির পক্ষে সওয়াল আমেরিকার]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং