BREAKING NEWS

১১ অগ্রহায়ণ  ১৪২৭  শনিবার ২৮ নভেম্বর ২০২০ 

Advertisement

মোদির ডাকে সাড়া, আজ রাত ৯টায় জ্বালতে দেদার বিকোচ্ছে মাটির প্রদীপ

Published by: Sulaya Singha |    Posted: April 5, 2020 1:41 pm|    Updated: April 5, 2020 1:41 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আহ্বানে সাড়া দেওয়ার প্রস্তুতি নিতে শুরু করে দিয়েছেন দেশের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষ। মোদির আহ্বানে ৫ এপ্রিল অর্থাৎ আজ ঠিক রাত ৯টায় ৯ মিনিট বাড়ির সমস্ত আলো নিভিয়ে মোমবাতি বা প্রদীপ জ্বালাবেন অনেকেই। রবিবার সকালের বাজারের ছবিটা অন্তত সে ইঙ্গিতই দিচ্ছে।

করোনার বিরুদ্ধে একজোট হয়ে লড়তে গত কয়েকদিনে একাধিকবার জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিয়েছেন মোদি। গত মাসের ২২ তারিখে জনতা কারফিউ পালনের আহ্বান জানিয়ে সেদিনই বিকেল পাঁচটায় দেশবাসীকে বাড়ির বারান্দায় দাঁড়িয়ে হাততালি দিতে বলেছিলেন তিনি। জরুরি পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত যোদ্ধাদের উৎসাহ দিতেই এই আহ্বান জানান মোদি। আর গত শুক্রবার সকাল ৯টায় লকডাউন শেষ হওয়ার ঠিক ন’দিন আগে ফের ভিডিওয় বার্তা দেন প্রধানমন্ত্রী। রবিবার রাত ৯টায় ৯ মিনিটের জন্য বাড়ির আলো বন্ধ করে দিতে বলেন তিনি। ঐক্যবদ্ধভাবে মহাশক্তির জাগরণ ঘটাতে জ্বালাতে বলেন প্রদীপ, মোমবাতি, টর্চ অথবা মোবাইলের ফ্ল্যাশ। মোদির ঘোষণার পরই সমালোচনায় সরব হয় বিরোধীরা। দেশের এমন কঠিন পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রীর আরও যুক্তিপূর্ণ মন্তব্য করা উচিত ছিল বলে কটাক্ষ করে বিরোধী দলগুলি। সোশ্যাল মিডিয়ার একাংশও মোদির বিপক্ষে গলা তোলে।

[আরও পড়ুন: ‘তবলিঘি জামাতের সদস্যদের গুলি করে মারা উচিত’, দাবি রাজ ঠাকরের]

তবে অনেকেই যে তাঁর আহ্বানে আজ সাড়া দিতে চলেছেন, তা স্পষ্ট। কারণ এদিন সবজির পাশাপাশি পাটনা, মোরাদাবাদ-সহ বিভিন্ন শহরের বাজারে দেদার বিক্রি হল মাটির প্রদীপ। একটা নয়, এক-একজন ১০, ২০ এমনকী ৫০টি প্রদীপ কিনে বাড়ি ফিরছেন। পাটনার এক বাসিন্দা বলেন, “আজ ৫০টা প্রদীপ কিনলাম। মোদি বলেছেন, ঘরের আলো নিভিয়ে প্রদীপ জ্বালাতে। তাই এই প্রস্তুতি।” এদিন বিভিন্ন বাজারে প্রদীপের বিক্রি চোখে পড়ার মতো। নানা আকারের নানা দামের প্রদীপ কিনলেন ক্রেতারা।

এদিকে, প্রধানমন্ত্রীর পাশে দাঁড়িয়ে রাত ৯টায় প্রদীপ জ্বালাতে অনুরোধ করেছেন ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি থেকে দলের অলরাউন্ডার হার্দিক পাণ্ডিয়া- প্রত্যেকেই। গেরুয়া শিবিরের আশা, হাততালির মতোই সফল হবে প্রদীপ জ্বালানোও। ভাইরাসের বিরুদ্ধে দেশকে একসঙ্গে লড়াইয়ের শক্তি ও সাহস জোগানে মোদির এই প্রয়াস।

[আরও পড়ুন: বৃদ্ধরা নন, দেশে করোনায় বেশি আক্রান্ত যুব সম্প্রদায়, কেন্দ্রের পরিসংখ্যানে বাড়ছে উদ্বেগ]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement