৬ ফাল্গুন  ১৪২৬  বুধবার ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: দিল্লির বিধানসভা নির্বাচনকে ভারত ও পাকিস্তানের যুদ্ধের সঙ্গে তুলনা করে টুইট করেছিলেন। বিষয়টি নিয়ে বিতর্ক শুরু হতেই দ্রুত টুইটটি ডিলিট করতে বলার পাশাপাশি এই মন্তব্যের কারণ জানতে চেয়েছিল নির্বাচন কমিশন। উত্তর পছন্দ না হওয়ায় বিজেপি নেতা ও দিল্লির মডেল টাউন বিধানসভার প্রার্থী কপিল মিশ্রের প্রচারের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করল তারা। এর ফলে শনিবার বিকেল পাঁচটা থেকে সোমবার বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত, মোট ৪৮ ঘণ্টা তিনি কোনও নির্বাচনী জনসভা বা প্রচারে অংশ তিনি পারবেন না বলে জানা গিয়েছে।

ঘটনাটির সূত্রপাত হয় বৃহস্পতিবার সকালে।অরবিন্দ কেজরিওয়ালের মন্ত্রিসভার প্রাক্তন সদস্য ও বর্তমান বিজেপি নেতা কপিল মিশ্রর হিন্দিতে লেখা একাধিক টুইটকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা ছড়ায় দিল্লির রাজনৈতিক মহলে। এর মধ্যে প্রথম টুইটটি উল্লেখ করা হয়েছিল, আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি দিল্লিতে ভারত ও পাকিস্তানের যুদ্ধ হবে।  পরের টুইটে কটাক্ষ করেন, দিল্লির শাহিনবাগের মধ্যে ইতিমধ্যেই ঢুকে পড়েছে পাকিস্তান। এখানে ছোট ছোট পাকিস্তান তৈরি করা হচ্ছে। পাকিস্তানি জঙ্গিরা চাঁদবাগ, ইন্দ্রলোক ও শাহিনবাগে ঢুকে পড়েছে। তাই দেশের আইন আর ওখানে মানা হয় না।

[আরও পড়ুন: চাপে পড়ে প্রত্যাঘাত প্রশান্ত কিশোরের! তোপ দাগলেন নীতীশের ডেপুটিকে ]

 

AAP ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেওয়া কপিল মিশ্রের এই টুইট ঘিরে প্রবল বিতর্ক তৈরি হয়। তিনি পাকিস্তান বলতে কোন রাজনৈতিক দলকে বলতে চেয়েছেন তা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে আরম্ভ করে। পাশাপাশি কপিল মিশ্রকে শোকজের নোটিস পাঠিয়ে টুইটার কর্তৃপক্ষকে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেয়। এরপরই বিজেপি নেতার ভারত-পাক যুদ্ধের টুইটটি ডিলিট করে দেওয়ার পাশাপাশি তাঁর বিরুদ্ধে FIR-ও দায়ের করে টুইটার। এবার তাঁর নির্বাচনী প্রচারের ওপর দুদিনের নিষেধাজ্ঞা জারি করল নির্বাচন কমিশন।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং