BREAKING NEWS

১ আশ্বিন  ১৪২৭  শুক্রবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

সরকারি কর্মীদের সুস্থ রাখতে নয়া পদক্ষেপ, অফিসে সংক্রমণ রোধে নির্দেশিকা জারি কেন্দ্রের

Published by: Sucheta Chakrabarty |    Posted: June 9, 2020 1:28 pm|    Updated: June 9, 2020 1:28 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: করোনা সংক্রমণের নিরিখে ক্রমেই এগোচ্ছে ভারত। মাত্র ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্তের সংখ্যা ছুঁতে চলেছে ১০ হাজার গণ্ডি। এমতাবস্থায় দেশের সরকারি অফিসগুলিতে সংক্রমণ রুখতে নয়া নির্দেশিকা জারি করল কেন্দ্র। অফিসে আসতে হলে বাধ্যতামূলক ভাবে কেন্দ্রের সরকারি কর্মীকে এই নির্দেশিকাগুলি মেনে চলতে হবে।

হু হু করে বাড়ছে সংক্রমণের মাত্রা। মোট আক্রান্তের নিরিখে আনলক ওয়ানের মধ্যেই ভারত স্পেনকে পিছনে ফেলে বিশ্বের দরবারে পঞ্চম স্থান পেয়েছে। প্রতিদিনের সংক্রমণের নিরিখে আমেরিকার পরই দ্বিতীয় স্থান পেয়েছে ভারত। এরই মধ্যে লকডাউনের নিয়মে শিথিলতা জারি করা হয়েছে। খুলে দেওয়া হয়েছে সমস্ত সরকারি দপ্তর। দেশের অর্থনীতির হাল ফেরাতে ও জনজীবনকে স্বাভাবিক নিয়ে আসার চেষ্টায় রয়েছে কেন্দ্র ও রাজ্য সরকার। তবে প্রতিদিনই যেভাবে বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের কর্মীরা করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন তা উদ্বেগ বাড়িয়েছে কেন্দ্রের। এই বিপজ্জনক আবহে সরকারি অফিসগুলিতে সংক্রমণ এড়াতে কেন্দ্রের তরফে এবার বেশ কয়েক দফা নির্দেশিকা জারি করা হয়। অফিসে আসতে হলে বাধ্যতামূলকভাবে কেন্দ্রের সরকারি কর্মীদের এই নির্দেশিকা মানতে হবে।

[আরও পড়ুন:ভারতীয়দের পক্ষে ‘সস্তা’ চিনা পণ্য বয়কট সম্ভব নয়! দাবি সেদেশের সরকারি সংবাদমাধ্যমের]

নির্দেশিকাগুলি হল-

  • কোনও রকম উপসর্গ থাকলে কর্মীদের অফিসে ঢুকতে দেওয়া হবে।
  • সামান্যতম উপসর্গ থাকলেও কর্মীদের বাড়ি থেকে বের হওয়া চলবে না।
  • কনটেনমেন্ট জোনের বাসিন্দা কর্মীকে অফিসে আসতে দেওয়া হবে না
  • এক দিনে ২০ জনের বেশি কর্মী অফিসে আসতে পারবেন না।
  • বাকিদের বাড়িতে বসেই কাজ করতে হবে। সাপ্তাহিক দিনপঞ্জি বানানো হবে সে ভাবেই।
  • সেক্রেটারিয়েট ও ডেপুটি সেক্রেটারিয়েটে যদি দু’জনকে একই কেবিন শেয়ার করতে হয় তবে তাঁরা একই দিনে অফিস আসবেন না।
  • অফিসের ভিতরে সর্বক্ষণ মাস্ক পরে থাকা বাধ্যতামূলক। অন্যথা করলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
  • এই মুহূর্তে মুখোমুখি বসে বৈঠক না করে ভারচুয়াল কনফারেন্স করা যাবে না।
  • প্রতি আধ ঘণ্টায় হাত ধুতে হবে অফিসে উপস্থিত কর্মীকে।
  • বৈদ্যুতিন সুইচ, দরজা, সিড়ির হাতল, বাথরুমের কল প্রতি এক ঘণ্টা অন্তর স্যানেটাইজ করতে হবে।
  • ১০ শতাংশ সোডিয়াম হাইড্রোক্লোরাইড থাকা কোনও রাসায়নিক ব্যবহার করে। এসির রিমোট, মাউস, কী বোর্ড বারবার পরিষ্কার করতে হবে একজন কর্মীকে।
  • দুইজন কর্মীকে অন্তত ১ মিটার দূরত্বে রক্ষা করতে হবে।

[আরও পড়ুন:‘প্রধানমন্ত্রী ১০০০ কোটি দিলেও একবার তাঁকে ধন্যবাদ জানায়নি’, রাজ্যকে তোপ দিলীপের]

মে মাস থেকেই কেন্দ্রের বেশিরভাগ সরকারি দপ্তরের কর্মীরা করোনার কবলে পড়েন। ইডি, সিআরপিএফ, নির্বাচন দপ্তর-সহ একাধিক সরকারি দপ্তরের কর্মীরা আক্রান্ত হন। আতঙ্কের বিষয় হল কিছু সময় তাঁদের শরীরে করোনার উপসর্গ ধরাও পড়েনি। তাঁরা বাকি মানুষদের সঙ্গে মিশে স্বাভাবিক জীবন কাটিয়েছেন।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement