BREAKING NEWS

১৫  আষাঢ়  ১৪২৯  বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

বিয়ের নিমন্ত্রণপত্রেও উঠে এল মোদির ‘বেটি বাঁচাও, বেটি পড়াও’ স্লোগান

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: February 19, 2018 6:59 pm|    Updated: February 19, 2018 9:02 pm

Haryana family sends wedding cards with ‘Beti Bachao' logos, NaMo pic

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: একেবারে রাজনৈতিক ইস্তাহারের কায়দায় বিয়ের নিমন্ত্রণপত্রে  ‘বেটি বাঁচাও, বেটি পড়াও’ স্লোগান। সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদির ছবি। আত্মীয়, বন্ধু, পরিচিতদের এমনই অভিনব নিমন্ত্রণ পাঠিয়েছেন হরিয়ানার জিন্দের বাসিন্দা ২ ভাই ও ১ বোন। বিয়েতে নিমন্ত্রণপত্র পাঠানো হয়েছে প্রধানমন্ত্রী দপ্তরেও। চলতি মাসেই একই দিনে বিয়ে করছেন তিনজনই। সুনীল, চেতন ও তাঁদের বোন রেণুর বক্তব্য, তাঁরা মোদির বড় ভক্ত। প্রধানমন্ত্রীর বার্তা যত বেশি করে সম্ভব ছড়িয়ে দিতে চান। তাই নিজেদের বিয়ের নিমন্ত্রণপত্রের থিম হিসেবে মোদির ‘বেটি বাঁচাও, বেটি পড়াও’  স্লোগানটিকে বেছে নিয়েছেন সুনীল, চেতন ও রেণু। সুনীল জানিয়েছেন, নিমন্ত্রণপত্র পাওয়ার পর প্রধানমন্ত্রী তাঁদের উদ্দেশ্যে কোনও বার্তা পাঠান বা প্রাপ্তি স্বীকার যদি করেন, তাহলেই তাঁদের স্বপ্নপূরণ হবে।

[দুবাইয়ে কি গা ঢাকা দিয়েছেন নীরব? জেলে ঢোকানোর ইঙ্গিত বাবা রামদেবের]

সারা দেশে কন্যাভ্রুণ হত্যা রুখতে ও মহিলাদের ক্ষমতায়নের জন্য ‘বেটি বাঁচাও, বেটি পড়াও’  প্রকল্প চালু করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ঘটনাচক্রে, আবার বিজেপিশাসিত হরিয়ানাতেই পুরুষদের তুলনায় মহিলাদের অনুপাত সবথেকে কম। এই হরিয়ানার জিন্দ জেলার বারাহখালান গ্রামের বাসিন্দা সুনীল, চেতন ও রেণু। সম্পর্কে তাঁরা ভাই-বোন। তিনজনেই মোদির ভক্ত। মোদি ভক্তি এতটাই যে, নিজেদের বিয়ের নিমন্ত্রণপত্রের একদিকে প্রধানমন্ত্রীর ‘বেটি বাঁচাও, বেটি পড়াও’ স্লোগান আর অন্যদিকে প্রধানমন্ত্রীর ছবি ছাপিয়েছেন তাঁরা। বস্তুত, শুধুমাত্র স্লোগান ও মোদির ছবি ছাপানোই নয়, সেই নিমন্ত্রণপত্র দিল্লিতে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরের পাঠানো হয়েছে। বয়সে সবচেয়ে বড় সুনীল বলেন, ‘যখন মোদি গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন, তখন থেকে আমি ওঁর ভক্ত। আমি মনে করি, তিনিই একমাত্র দেশের সমস্ত দীর্ঘস্থায়ী সমস্যার সমাধান করতে পারবেন।’  তাঁর সংযোজন, মোদি যদি কোনও বার্তা পাঠান, তাহলেই তাঁদের স্বপ্ন সার্থক হবে।

[ব্যাংকে দুর্নীতি রোধে নয়া দাওয়াই, তিন বছর অন্তর অফিসারদের বদলি]

মাস কয়েক আগে আধার কার্ডের আদলে মেয়ের বিয়ের কার্ড ছাপিয়ে হইচই ফেলে দিয়েছিলেন মধ্যপ্রদেশের বীরেন্দ্র তিওয়ারি। পেশায় তিনি কৃষিবিজ্ঞানী। বীরেন্দ্র তিওয়ারি জানিয়েছিলেন, আধার নিয়ে সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে বাড়াতেই এমন অভিনব কার্ড ছাপিয়েছেন তিনি।

[এবার মেঘালয়ের ভোটযুদ্ধে কংগ্রেসের হাতিয়ার স্যানিটারি ন্যাপকিন]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে