BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

মোজো বিস্ত্রোর হুকাহ থেকেই আগুন, কমলা মিলস কাণ্ডে দমকলের রিপোর্ট

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: January 6, 2018 8:29 am|    Updated: January 6, 2018 8:29 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: মুম্বইয়ের কমলা মিলস অগ্নিকাণ্ডের মূলে হুকাহ-ই মূল কারিগর। তদন্তে নেমে এমনই রিপোর্ট দিল দেশের বানিজ্যনগরীর দমকল কর্তৃপক্ষ। রুফটফ পাব লাগোয়া মোজো বিস্ত্রোতেই হুকাহ মজুত ছিল।সেখান থেকেই আগুন লাগে। বেআইনি হুকাহ থেকে আগুন লাগার কারণে নড়েচড়ে বসেছে মুম্বই পুলিশ। হুকাহ প্রসঙ্গ সামনে আসতেই কমলা মিলস অগ্নিকাণ্ডে আরও অনেককে কাঠগড়ায় তোলার পরিকল্পনা শুরু হয়েছে। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩০৪, ৩৩৭, ৩৩৮, ৩৪ ধারা যুক্ত করতে চলেছে পুলিশ। মোজো পাবের কর্তাব্যক্তিদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি হয়েছে। অভিযুক্ত পাব কর্তৃপক্ষকে ধরিয়ে দিলে ১ লক্ষ টাকা পুরস্কার মূল্যও ঘোষণা হয়েছে।

[শপিং মলে বিউটি মালিকের রুদ্রমূর্তি, অবাক মধ্যমগ্রাম]

২৯ ডিসেম্বর কমলা মিলসের ভয়াবহ আগুন ১৪ জনের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে। আগুন কেড়ে নিয়েছে বার্থ ডে গার্লের প্রাণ। প্রত্যক্ষদর্শীদের বয়ানে ঘটনার দিন মোজো বিস্ত্রোতে হুকাহ সাজানোর তোড়জোড় চলছিল। হুকাহ-র সঙ্গে ঘটনাস্থলে ছিল আনুষঙ্গিক কয়লা, হুকাহ-র পাইপসহ আরও অনেককিছু।হুকাহ সাজানোর সময়ই আচমকা আগুন লেগে যায় পাশে রাখা জ্বলন্ত কয়লায়। আগুন ছড়াতে বেশিক্ষণ সময় নেয়নি। রেস্তোরাঁর সাজানো ইনটেরিয়রকে জ্বালিয়ে দিয়ে লেলিহান শিখা কিছুক্ষণের মধ্যেই লাগোয়া রুফটফ পাবের জন্মদিনের পার্টিকে গ্রাস করে নেয়। ভিডিও ক্লিপিংসে দেখা গেছে বেড়ে যাওয়া আগুনকে নিয়ন্ত্রণে আনতে বারবার অগ্নিনির্বাপক ব্যবহারের দৃশ্য। জরুরি পরিস্থিতিতে পাব থেকে বেরিয়ে যাওয়ার রাস্তাটিও খুঁজে পায়নি আটকে পড়া মহিলারা। সেই দরজার মুখেই বিয়ারের ক্যানের স্তূপ ছিল। কমলা মিলস কম্পাউন্ডে নির্মাণকার্য চলছিল। তাই মোজস বিস্ত্রো লাগোয়া বাঁশ কাঠও কাপড়ে আগুন লেগে গেলে খুব সহজেই রুফটপ পাবে আগুন ছড়িয়ে পড়ে।

[ডাক্তারিতে ভরতির নামে প্রতারণা চক্রের পর্দাফাঁস সল্টলেকে, ধৃত ৬ পড়ুয়া]

দমকলের প্রাথমিক রিপোর্টে অভিযোগের তির এখন মোজো বিস্ত্রো পাবের দিকেই। অভিযোগের আঁচ থেকে রেহাই পাচ্ছে না রুফটপ পাবও। মুম্বই পুরনিগমের তরফে দুই পাবের কোনওটিকেই মদ ও হুকাহ পরিবেশনের ছাড়পত্র দেওয়া হয়নি।

এই প্রসঙ্গে মেয়র অজয় মেহতা বলেন, শহরের পাব, রেস্তরাঁগুলির যেখানে যা অবৈধ নির্মাণ হচ্ছে তা বন্ধ করতে হবে। অবৈধ নির্মাণ ভেঙে ফেলার জন্য প্রত্যেক পাব, রেস্তরাঁ কর্তৃপক্ষকে ১৫ দিনের সময় দেওয়া হবে।এতে রেস্তরাঁ কর্তৃপক্ষের সম্মানও বজায় থাকবে।

[জমি দখলকে কেন্দ্র করে ওসির মাথায় শাবলের ঘা, গ্রেপ্তার মূল অভিযুক্ত]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement