BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

স্বাধীনতা দিবসে শান্তির বার্তা দিয়ে ভারতকে শুভেচ্ছা জানাল ‘হানাদার’ চিন

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: August 15, 2020 7:29 am|    Updated: August 15, 2020 3:27 pm

An Images

৭৪ বছরের মধ্যে ব্যতিক্রমী স্বাধীনতার দিবসের সাক্ষী গোটা দেশ। করোনা আবহে ভারতের ইতিহাসের সবচেয়ে গর্বের দিনটিতে আনন্দ উদযাপনের কোনও সুযোগই প্রায় নেই। লাল কেল্লায় প্রধানমন্ত্রীর পতাকা উত্তোলনে থাকছে না কোনও আড়ম্বর। কলকাতায় রেড রোডে মুখ্যমন্ত্রীর অনুষ্ঠানেও কাটছাঁট। জনসমাগম এড়িয়ে শুধুমাত্র নিয়মরক্ষাটুকুই হবে। ব্যতিক্রমী স্বাধীনতা দিবসের খুঁটিনাটি নিয়ে সমস্ত আপডেট:

সকাল ১২.০০: সীমান্তে আগ্রাসন চালালেও স্বাধীনতা দিবসে শান্তির বার্তা দিয়ে ভারতকে শুভেচ্ছা জানাল চিন।

সকাল ১১.০০: সীমান্ত বিবাদের মাঝেই ভারতকে স্বাধীনতা দিবসের শুভেচ্ছা জানালেন নেপালের প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা ওলি।  

সকাল ১০. ২৭:  নয়াদিল্লিতে নিযুক্ত রাষ্ট্রদূত রন মালকার মাধ্যমে স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে ভারতকে শুভেচ্ছা বার্তা দিল বন্ধু ইজরায়েল। শুভেচ্ছা জানিয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসনও।

সকাল ১০.০৩:  জাতীয় সঙ্গীতের পর রেড রোডে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করলেন মুখ্যমন্ত্রী। করোনা যোদ্ধাদের সংবর্ধনা দিচ্ছেন তিনি।  

সকাল ৯.৫২: পুলিশ মেমোরিয়াল ও নেতাজির মূর্তিতে পুষ্পস্তবক প্রদান করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

সকাল ৯.৪৪: নাগপুরে রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের সদরদপ্তরে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করলেন সংঘ প্রধান মোহন ভাগবত।  

সকাল ৯.০০: দেশবাসীকে ফের স্বাধীনতা দিবসের শুভেচ্ছা জানিয়ে ভাষণ শেষ করলেন প্রধানমন্ত্রী। 

সকাল ৮.৪০: নাম না করে চিনকে কড়া বার্তা দিলেন প্রধানমন্ত্রী। লাদাখে শহিদ জওয়ানদের শ্রদ্ধা জানিয়ে মোদি সাফ বলেন, “আমরা হানাদারদের তাদের ভাষায় জবাব দিয়েছি। সীমান্তে দেশের সুরক্ষায় আমাদের জওয়ানরা অত্যন্ত সাহসিকতার সঙ্গে লড়াই করেছেন।”  

সকাল ৮. ৩০: শীঘ্রই বদলাতে পারে মেয়েদের বিয়ের বয়স, ঘোষণা প্রধানমন্ত্রীর।

সকাল ৮.০০: লাদাখে স্বাধীনতা দিবস পালন ITBP জওয়ানদের। ১৭ হাজার ফুট উচ্চতায় সগর্বে হওয়ায় উড়ল জাতীয় পতাকা। প্যাংগং লেকের পাশে সগর্বে উড়ল তেরঙ্গা। 

 

সকাল ৭. ৫৮: পরিকাঠামোগত পরিবর্তন যেমন এক দেশ এক রেশন কার্ড। ব্যাংক সংযুক্তিকরণ, মেক ইন ইন্ডিয়া, বিদেশি বিনিয়োগ নিয়েও আলোচনা করেন প্রধানমন্ত্রী। প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ীর ‘সোনালী চতুর্ভুজ’ সড়ক প্রকল্পের কথা মনে করিয়ে দিয়ে পরিকাঠামো নির্মাণে নয়া দিশার সূচনার কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।  তিনি আরও বলেন, “নাগরিকদের মেডিক্যাল ডেটা রাখার জন্য হাসপাতাল, ক্লিনিক, চিকিৎসকদের একটি সার্ভারের সঙ্গে যুক্তকরা হবে৷ তবে এই প্রকল্পে যুক্ত হওয়া বাধ্যতামূলক নয়, নাগরিক বা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ চাইলে তবেই তারা এই প্রকল্পের সঙ্গে যুক্ত হতে পারেন৷ এই প্রকল্পে যুক্ত হলে প্রত্যেক নাগরিকের একটি সিঙ্গল ইউনিক আইডি তৈরি হবে৷ এই আইডি দিয়েই লগ ইন করা যাবে৷ গরীব কল্যাণ যোজনার অন্তর্গত গরীব মানুষদের কল্যাণের পথে কাজ করেছি আমরা। শহরে শ্রমিকদের জন্য আবাস যোজনা এনেছি আমরা।”

সকাল ৭.৫০: করোনা যোদ্ধাদের সম্মান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “আমরা কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছি। আজ এখানে বাচ্চাদের দেখছি না আমি। সব কিছু থামিয়ে দিয়েছে করোনা। এহেন সময়ে করোনা যোদ্ধারা ‘সেবা পরম ধর্ম’ মন্ত্রে দীক্ষিত হয়ে ভারতবাসীর সেবা করছেন।”
 

সকাল ৭.৪০: লালকেল্লা থেকে ভাষণে স্বাধীনতা সংগ্রামীদের আত্মত্যাগ ও মহাত্মা গান্ধীর লড়াইয়ের কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, “ভারতেকে দমিয়ে রাখার অনেক চেষ্টা করেছিল বিদেশি শক্তি। কিন্তু তারা পরাজিত হয়।” পাশাপাশি, তিনি আরও বলেন, “সম্প্রসারণবাদীরা পৃথিবীকে বিশ্বযুদ্ধের দিকে ঠেলে দিয়েছিল। কিন্তু ভারত নিজের স্বাধীনতার জন্য লড়াই থামায়নি। আজও সম্প্রসারণবাদীদের বিরুদ্ধে লড়াই করছে দেশ। আজ ১৩০ কোটি দেশবাসীর জন্য ‘আত্মনির্ভর ভারত’ একটা মন্ত্র হয়ে গিয়েছে। করোনা আবহে সবাই একসঙ্গে লড়াই করছে।” 

 

সকাল ৭.৩০: লালকেল্লায় পৌঁছলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ‘গার্ড ও ওনার’ পরিদর্শন করলেন তিনি। লালকেল্লায় জাতীয় পতাকা উত্তোলন করলেন প্রধানমন্ত্রী মোদি।  

সকাল ৭.১৮: মহাত্মা গান্ধীর সমাধিস্থল রাজঘাটে পৌঁছে জাতির জনককে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন প্রধানমন্ত্রীর।  

সকাল ৭: দিল্লির লালকেল্লা চত্বরে প্রধানমন্ত্রীর অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি। মুখে মাস্ক, স্বাস্থ্যবিধি মেনে অতিথিরা হাজির, পুলিশ ও নিরাপত্তারক্ষীদের শরীরেও সুরক্ষাবর্ম।

সকাল ৬. ৫০: নিজের বাসগৃহে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করলেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং। করোনা, আবহে রেড রোডে স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠান হবে মাত্র ১৫ মিনিট। ৯.৫০ নগাদ মুখ্যমন্ত্রী
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পতাকা উত্তোলনের পর ২৫জন কোভিড যোদ্ধাকে সংবর্ধনা। থাকবেন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম, বিধানসভার স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement